artk
শনিবার, ডিসেম্বার ৭, ২০১৯ ৩:০৪   |  ২২,অগ্রহায়ণ ১৪২৬

রাঙামাটি সংবাদদাতা

মঙ্গলবার, আগষ্ট ২৭, ২০১৯ ৯:৫১

ঝরণা অপরূপ, অভাব নিরাপত্তা ও ভালো যোগাযোগ ব্যবস্থার

media

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরূপ লীলাভূমি রাঙ্গামাটি। পুরো জেলা জুড়ে রয়েছে পর্যটকদের জন্য পর্যটন স্পট ও মিঠা পানির কৃত্রিম কাপ্তাই হ্রদ। হ্রদের পাশে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে সুউচ্চ পাহাড়। হ্রদ-পাহাড়ের মিতালী শহরে সবুজ অরণ্যর গহীন পাহাড়ে কয়েকটি ঝরণার সন্ধান মিলে। তার মধ্যে রাঙ্গামাটির কাউখালী উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের কলাবাগান ঝরণাটি অন্যতম। স্থানীয়দের কাছে এটি ‘কলাবাগান’ ঝরণা নামে বেশ পরিচিতি। প্রতিদিন গড়ে ৩০০ জনের মতো পর্যটকের সমাগম ঘটে এখানে।

দিন দিন ঝরণাটি এখন স্থানীয় পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বর্তমানে জেলার বাইরে বিভিন্ন দূর দূরান্ত থেকে পর্যটকরা ছুটে আসছেন দুর্গম এলাকায় অবস্থিত ঝরণাটিতে অবগাহন করতে।

তবে ঝরণাটি দেখতে বেশ বেগ পেতে হয়। মূল সড়ক থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার পায়ে হেঁটে কঠিন পথ মাড়িয়ে তবেই কাঙ্খিত ঝরণার কাছে পৌঁছাতে হবে।

ঝরণার কাছে পৌঁছানোর আগে পাহাড়ি ঝিরি (ছড়া) মাড়ানোর সময় সবুজ গাছপালা, দুর্গম পাহাড়, পাখির কিচিরমিচির এবং ঝিরির মাঝে সাদা নুড়ি পাথর আপনার মনকে মাতিয়ে তুলবে। তবে হাঁটার সময় সাবধান থাকতে হবে। কেন না পাথরের মধ্যে শেওলা জমে থাকে। তাই যে কোনো সময় শেওলার আস্তরে পিছলে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন। এজন্য অভিজ্ঞদের সাথে নিয়ে পথ চলা বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

হাঁটার সময় পথিমধ্যে ছোট দুটি ঝরণা চোখে পড়বে। ক্লান্তি দূর করতে প্রশান্তির ছোঁয়া পেতে কিছুক্ষণ গা ভিজিয়ে নিতে পারেন। এরপর লক্ষ্য সুউচ্চ স্থানে অবস্থিত বড় ঝরণাটির দিকে। শত বাধা বিপত্তি পেরিয়ে বড় ঝরণাটি দেখার পর আপনার সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। এইবার মেতে উঠুন তারুণ্যের জোয়ারে।

ঝরণার শো শো শব্দের গানের সাথে হারিয়ে যান স্বপ্ন বিলাসী মন নিয়ে। হ্যা বলে রাখা ভালো, বিকেলের মধ্যে ঝরণার স্থল ত্যাগ করতে হবে। কেন না এখানে পর্যটকদের নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা নেই।

আনন্দের সাথে মুখরোচক কিছু খেতে চাইলে নিজের সঙ্গে নিয়ে যাবেন। সেখানে পর্যটকদের রুচির স্বাদ নিতে কোনো স্টল বসেনি। তবে দুয়েকজন ব্যক্তি উদ্যোগে স্বল্প পরিসরে ঝালমুড়ি এবং পেয়ারা বিক্রি করে। চাইলে কিনে খেতে পারেন সেইসব খাবার।

সরেজমিনে গেলে পর্যটকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, একদিকে ঝুঁকিপূর্ণ দুর্গম পথ অন্যদিকে পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের ভয়, আনন্দ আবার বেদনা হয়ে যেতে পারে। তাই যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি, নিরাপত্তা জোরদার ব্যবস্থা গ্রহণ, সৌন্দর্যবর্ধন, বিশ্রামাগার এবং খাবারের জন্য কয়েকটি রেস্টুরেন্ট তৈরি করা গেলে এ এলাকাটি হবে পর্যটন সমৃদ্ধ। সরকার পাবে রাজস্ব। বেকার যুবদের জন্য সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থানের।

চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা রহমত উল্লাহ খান বলেন, “আমরা একঝাঁক বন্ধু সিএনজি নিয়ে অপরূপা ঝরণাটি দেখতে এসেছি। পাহাড়ি পথ মারানোর কোনো অভ্যাস আমাদের নেই। তবুও মনের প্রশান্তি নিতে ঝুঁকি নিয়ে এখানে ছুটে এসেছি।” এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও জানান, সবকিছু ভালো লাগলেও এখানে মূল সমস্যা হলো নিরাপত্তার অভাব। নিরাপত্তা জোরদার করা গেলে পর্যটকদের ঢল নামবে বলে মনে করেন তিনি।

চট্টগ্রামের রাণিরহাট এলাকা থেকে বেড়াতে আসা পর্যটক আহসান শামীম বলেন, “আসার সময় যত কষ্ট পেয়েছি। এখানে আসার পর সব ভুলে গেছি। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি, বিশ্রামাগার এবং কয়েকটি খাবারের দোকান থাকলে এ এলাকাটি নতুন পর্যটন স্পট হিসেবে আলাদা সুখ্যাতি অর্জন করবে।”

কিভাবে যাবেন:

রাঙ্গামাটি শহরে থেকে অটোরিকশা (সিএনজি) ভাড়া করে সোজা চলে যাবেন কলাবাগান নামক এলাকায়। যেকোনো অটোরিকশা চালককে বললে নিয়ে যাবে। এজন্য পুরো অটো ভাড়া গুণতে হবে ২৫০ টাকা। এরপর ছোট্ট গ্রামের মেঠো পথ পাড়ি দিয়ে পাহাড়ি ঝিরি মাড়িয়ে চলে যাবেন অপরূপা ঝরণার কাছে।

বাংলাদেশের ১৭ জেলেকে ফেরত দিয়েছে মিয়ানমার বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব বাতিলের দাবিতে গণস্বাক্ষর শনিবার বাঁশখালীতে জেলের জালে বিশাল হোয়েল শার্ক! সিলেট আ.লীগের নেতৃত্ব হারালেন কামরান পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনায় আমরা মেধাবী: তথ্যমন্ত্রী ধর্মঘটে অচল অবস্থা বিরাজ করছে ফ্রান্সে চট্টগ্রামে এবার থানায় বিক্রি হবে পেঁয়াজ ভারতের অবদান ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অসম্পূর্ণ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শিকাগোর অফিস-আদালতে বাংলা ভাষা! খালেদার স্বাস্থ্য বিষয়ে নিরপেক্ষ প্রতিবেদন নিয়ে ফখরুলের সংশয় ১৭ জেলেকে আটক করেছে মিয়ানমার উল্টোপথের বাসের চাকায় পিষ্ট পথচারী অবশেষে বিয়ের পিঁড়িতে মিথিলা-সৃজিত রুম্পার মৃত্যুর ধোঁয়াশা কাটেনি ১ জন ছাড়া অন্য যেকোনো পদে পরিবর্তন: কাদের আপিল বিভাগে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার: মন্ত্রী বীরত্বে পদক পাচ্ছেন ডিজিসহ বিজিবির ৬০ সদস্য আইএস এর সেই টুপি খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ নামাজ পড়লে সুস্থ থাকা যায়: মার্কিন গবেষণা মৌলভীবাজারে ৪শ একর জমিতে কমলার চাষ ২০১৯ সালের সেরা অ্যাপ কল অফ ডিউটি আ.লীগে এখন কর্মীর চেয়ে নেতার সংখ্যা বেশি: কাদের প্রকৌশল শিক্ষায়ও সৃজনশীলতার প্রচুর সুযোগ রয়েছে: রাষ্ট্রপতি ‘সুদের হার কমেনি, ১১ মাস কী করলেন অর্থমন্ত্রী’ ৬ রানে অলআউট মালদ্বীপ পিরোজপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ জনের মৃত্যু পুঁজিবাজারে সূচকের পতন, লেনদেনও মন্দা রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়দের কর্মসংস্থানের সুযোগ কমছে: টিআইবি বিএনপির আইনজীবীদের বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করা উচিত: নাসিম আপিল বিভাগে এমন অবস্থা আগে কখনো দেখিনি: প্রধান বিচারপতি