artk

কক্সবাজার প্রতিনিধি

রোববার, আগষ্ট ২৫, ২০১৯ ৮:৫৪

ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে রোহিঙ্গারা

media
দুই বছরে ৪৩ হত্যা মামলার আসামি : ৪৭১টি মামলায় আসামি ১ হাজার ৮৮ জন ২ শতাধিক মাদক মামলার পাশাপাশি রয়েছে মানবপাচারের মামলাও

রোহিঙ্গা সংকটের দুবছর পূর্ণ হলো রোববার। এই দীর্ঘ সময়ে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রাখাইনের মুসলিম জনগোষ্ঠী।

ভয়াবহ অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা। বেড়েই চলছে তাদের অপরাধ প্রবণতা। ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে নিজ দেশ থেকে বিতাড়িত এই জাতিগোষ্ঠী। 

গত দুই বছরে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধে চারশ ৭১টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে হত্যাকাণ্ড ৪৩টি। রয়েছে ধর্ষণ, অপহরণ, মাদক চোরাচালানের অভিযোগও।

বৃহস্পতিবার রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমুরা এলাকায় হত্যা করা হয় স্থানীয় যুবলীগ নেতা ওমর ফারুককে। তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এই হত্যার সাথে রোহিঙ্গা অস্ত্রধারীরা জড়িত বলে জানিয়েছে পুলিশ। প্রতিবাদে জাদিমুরা ক্যাম্পের আশেপাশে ভাঙচুর ও সড়ক অবরোধ করে স্থানীয়রা।

এই ঘটনার পর শুক্রবার গভীর রাতে টেকনাফের জাদিমুরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মোহাম্মদ শাহ ও মো. শুক্কুর নামে দুই রোহিঙ্গা শরণার্থী নিহত হন।

এ প্রসঙ্গে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাস জানান, ওই দুই জন যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক হত্যা মামলার আসামি। তারা জাদিমুরা ক্যাম্পে অবস্থান করছে খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালালে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে ওই দুই জন নিহত হয়। তাদের অবস্থান থেকে দুটি দেশে তৈরি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

এর আগে গত ২২ আগস্ট বিজিবির সাথে বন্দুকযুদ্ধে দুই জন রোহিঙ্গা শরণার্থী নিহত হন। তারা ইয়াবার চালান নিয়ে আসছিলে বলে জানিয়েছিল বিজিবি। মায়ানমারের রাখাইনে নিপীড়নের শিকার হয়ে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে নতুন করে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বাংলাদেশে আশা শুরু করে। এই ধাপের আট লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা আসে কক্সবাজারে। তারা বিভিন্ন ক্যাম্পে অবস্থান করছে।

এ ব্যাপারে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বলেন, “সম্প্রতি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে অপরাধ প্রবণতা বাড়ছে। গত দুই বছরে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চারশ ৭১টি মামলা হয়েছে। আর এইসব মামলায় আসামির সংখ্যা এক হাজার ৮৮ জন।”

দুই শতাধিক মাদক চোরাচালান মামলা রয়েছে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিরুদ্ধে। মানব পাচারের মামলাও রয়েছে চারটি। এছাড়া অস্ত্র, ধর্ষণ, ধর্ষণচেষ্টা, নারী নির্যাতন, অপহরণ ও পুলিশের ওপর হামলার মামলাও রয়েছে। কিছু রোহিঙ্গা নারীর বিরুদ্ধে যৌন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ার অভিযোগও রয়েছে।

পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেনের মতে, রোহিঙ্গারা সবচেয়ে বেশি মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। ইয়াবার উৎস যেহেতু মিয়ানমার, আর তারা এসেছেনও মিয়ানমার থেকে, তাই এই ব্যবসায় তাদের যোগাযোগ ভালো। সে কারণেই তারা ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে বলে মনে হয়।

তবে রোহিঙ্গাদের এই অপরাধ প্রবণতা তাদের নিজেদের মধ্যেই বেশি বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, “স্থানীয় সাধারণ মানুষের সাথে তাদের তেমন বিরোধ নেই। দুই বছরে যে ৪৩ জনকে রোহিঙ্গারা হত্যা করেছে, তাদের মধ্যে বৃহস্পতিবার নিহত যুবলীগ নেতা ওমর ফারুকই স্থানীয় বাংলাদেশি। বাকি ৪২ জনই রোহিঙ্গা শরণার্থী।

তিনি আরো বলেন, “তাকে (ফারুক) রোহিঙ্গা ডাকাতরা হত্যা করেছে। ফারুক ক্যাম্পগুলোতে ঠিকাদারির কাজ করত। আমরা ধারণা করছি, রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা আধিপত্যের দ্বন্দ্বে তাকে হত্যা করেছে।”

কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মুখপাত্র মো. ইউনূস আরমান বলেন, “আমাদের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ক্ষুদ্র একটি অংশের অপরাধে জড়িয়ে পড়া অত্যন্ত দুঃখজনক। এটা আমাদেরও বিব্রত করে। কিন্তু যারা মাদক পাচারসহ নানা অপরাধ করছেন, তাদের মূলত স্থানীয় সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরা ব্যবহার করছে। আর যেসব রোহিঙ্গা এসব অপরাধ করছে তারা ক্যাম্পে থাকে না। ক্যাম্পের নম্বর থাকলেও তারা বাইরে থাকে। তবে অপরাধ করার পর অনেকে ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়।”

মো. ইউনূস আরমানের অভিযোগ, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দারিদ্র্যের সুযোগ নিয়ে তাদের ইয়াবা পাচারের ক্যারিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীরা। তিনি এই বলেন, “কক্সবাজারে মাদক ব্যবসা করে কারা বিলাসবহুল বাড়ি ও সম্পদের মালিক তা তো সবাই জানে। স্থানীয় সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোও একইভাবে গরিব রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করে। হত্যাকাণ্ডগুলোও ক্যাম্পের বাইরে হয়েছে।”

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বলছেন, “রোহিঙ্গাদের অপরাধ প্রবণতা বাড়লেও নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়নি। রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলোতে নয়টি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। ক্যাম্পগুলোতে ১১শ পুলিশ ফোর্স সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন।”

সংসদে ৮২৩৮ জন ঋণখেলাপির তালিকা প্রকাশ কুকুর হত্যার দায়ে আট মাসের কারাদণ্ড একুশ ফার্স্ট প্রসপেক্টাস অনুমোদন ধনী-গরিব নির্বিশেষে সুবিচার নিশ্চিতে সরকার বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী ডিএসই-সিএসইর নতুন এমডি নিয়োগের অনুমোদন বিএসইসির এশিয়া ও বিশ্ব একাদশের ম্যাচ আয়োজন করছে না ভারত অনিয়মের বিরুদ্ধে দুদকের অভিযান মানিকগঞ্জে বাসায় ঢুকে মেয়ের চোখের সামনে মাকে হত্যা নির্বাচনী গণসংযোগে হামলা: ইসির পদক্ষেপের অপেক্ষায় তাবিথ এসকে সিনহাকে হাজিরে গেজেট প্রকাশের নির্দেশ ই-পাসপোর্ট পেতে আবেদন করবেন যেভাবে চাটার্ড বিমানে রাতে পাকিস্তানে উড়াল দিচ্ছে টাইগাররা দুর্নীতি করে জনগণের হক নষ্ট করবেন না: দুদক কমিশনার চাই না, নির্বাচনে কোনো অভিযোগ ইসি পর্যন্ত গড়াক: সিইসি টাইগারদের নতুন পেস বোলিং কোচ গিবসন সব ধরনের সূচকে উত্থান নিউজিল্যান্ড সফরে ভারতের দল ঘোষণা পাকিস্তান-বাংলাদেশ ম্যাচ দিয়ে অভিষেক হচ্ছে মাদুগালের গণতন্ত্র সূচকে বাংলাদেশের ৮ ধাপ অগ্রগতি ঢাবির ৪ শিক্ষার্থীকে রাতভর পিটিয়েছে ছাত্রলীগ ফারমার্স ব্যাংকের তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চার্জশিট কাশ্মীর ইস্যুতে পাক-ভারতকে সাহায্য করতে চান ট্রাম্প বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কাজ শুরু পর্তুগালে সংঘর্ষে মৃত্যুর খবর সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও গুজব হাতীবান্ধা সীমান্তে দুই বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা বিএসএফের নেতাজি ও বঙ্গবন্ধুর দেশপ্রেম তরুণদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে: খাদ্যমন্ত্রী সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএসকে তলব বনানীতে রাস্তা পারাপারের সময় বাসের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত রাজধানীর হাজারীবাগে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু পলিথিনে মোড়ানো পোস্টার লাগানো কেন বেআইনী নয়