artk
বৃহস্পতিবার, নভেম্বার ২১, ২০১৯ ২:২৫   |  ৬,অগ্রহায়ণ ১৪২৬

নিউজ ডেস্ক

শুক্রবার, আগষ্ট ২৩, ২০১৯ ১০:৫৮

বউ কথা কও

media

বউ কথা কও একাকী বা জোড়ায় বিচরণ করে। শুঁয়াপোকা, ঘাসফড়িং, পঙ্গপাল, উড়ন্ত উইপোকা, ফল, গিরগিটি খায়। ‘বুকো-টাকো-বুকো-টাকো…’ স্বরে ডাকে, যা কতকটা বউ কথা কও শোনায়।

‘ভারতীয় কোকিল’ বা ‘বউ কথা কও’ গ্রীষ্মের প্রজনন পরিযায়ী পাখি। কোকিল গোত্রীয় পাখি পরিবারের এ সদস্যের ইংরেজি নাম Indian Cuckoo। বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশ, দ‌ক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, চীন, কোরিয়া, জাপান, ফিলিপাইন ও রাশিয়ায় দেখা যায়।

একাকী, নিভৃতচারী ও লাজুক পাখি হিসেবে এর পরিচিতি রয়েছে। বনাঞ্চলসহ উন্মুক্ত গাছ-গাছালিপূর্ণ এলাকা থেকে শুরু করে ৩,৬০০ মিটার উঁচুতেও এদের দেখা যায়।

বউ কথা কও পাখিটি ৩০ থেকে ৩৫ সেন্টিমিটার লম্বা হয় এরা। ওজন ১২০-১৩০ গ্রাম। স্ত্রী-পুরুষের পালকের রং ভিন্ন হলেও দেখতে অনেকটা একই রকম লাগে। প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ পাখির দেহের উপরিভাগ ধূসর বাদামি। গলা ও বুকের ওপরটা বাদামি ছাই। লেজে রয়েছে চওড়া কালচে ডোরা। স্ত্রী পাখির গলা ফিকে ধূসর। ধূসর বুকের গোড়ায় লালচে পীতাভ আমেজ। চোখের মণি হালকা বাদামী থেকে লোহিত আকারের হয়ে থাকে। ঠোঁট কালো। পা, আঙুল ও নখ হলুদ। স্ত্রী বউ কথা কও পাখি সনাক্তকরণের সহজ উপায় হল, পুরুষের তুলনায় এদের গলা, বুক ও লেজের দিক হালকা ধূসর বর্ণের হয়। পেটের অংশটুকু সরু থাকে।

বউ কথা কও একাকী বা জোড়ায় বিচরণ করে। শুঁয়াপোকা, ঘাসফড়িং, পঙ্গপাল, উড়ন্ত উইপোকা, ফল, গিরগিটি খায়। ‘বুকো-টাকো-বুকো-টাকো…’ স্বরে ডাকে, যা কতকটা বউ কথা কও শোনায়।

পাখিটি অতি উচ্চৈস্বরে সুর করে ডেকে ওঠে। সাধারণভাবে তাদের ডাকে যে চারটি বোল শনাক্ত করা হয়ে থাকে, সেগুলো শুনতে লাগে অনেকটা – অরেঞ্জ-পিকো, বুকো-টাকো-বুকো-টাকো, ক্রসওয়ার্ড পাজল বা ওয়ান মোর বোটল। অঞ্চলভেদে সুরের ভিন্নতা খুব কমই দেখা যায়। বাংলা ভাষায় বুকো-টাকো-বুকো-টাকো-ই আঞ্চলিকভাবে বৌ কথা কও নামে অভিহিত করা হয়। চীনে এ সুরটির মাধ্যমে শেষ থেকে জেগে ওঠাকে নির্দেশ করে। ভারতের কাঙ্গরা উপত্যকায় পাখির ডাককে হোয়ার ইজ মাই শিপ নামে শোনা যায়, যার অর্থ হচ্ছে মৃত রাখালের আত্মা।

বউ কথা কও পরজীবী পাখি হিসেবে পরিচিত। স্ত্রীজাতীয় পাখিটি একটিমাত্র ডিম পাড়ে। ফিঙে এবং কাকের ন্যায় কালো পাখির বাসায় ডিম পেড়ে উধাও হয়ে যায়। অবশ্য ডিম পাড়ার পূর্বে ফিঙে অথবা কাকের একটি ডিম খেয়ে ফেলে কিংবা নীচে ফেলে দেয়। চীনের উত্তরাংশে পাখিটির ডিম পাড়ার মৌসুম হচ্ছে মে থেকে জুলাই, ভারতীয় উপমহাদেশে মার্চ থেকে আগস্ট, বার্মায় জানুয়ারি থেকে জুন এবং মালয় উপত্যকায় জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত সময়কাল। ১২ দিন অতিবাহিত হবার পর ডিম ফুটে বাদামী বর্ণের বাচ্চা জন্মে। আমুর এলাকায় ১৪ দিন সময় ব্যয় হয়। ছানা উড়তে শেখে ১৮-২০ দিনে। আয়ুষ্কাল প্রায় ৭ বছর।  সূত্র: উইকিপিডিয়া

রাজধানী সুপার মার্কেটের আগুন নিয়ন্ত্রণে ময়মনসিংহে এক বাড়িতেই ৭ হাজার কেজি লবণ ট্রান্সফাররেবল এলসির সঠিক ব্যবহারে বায়িং হাউজের দক্ষতা বাড়ানো জরুরী জনগণকে শাস্তি দেবেন না প্লিজ: কাদের কাউন্সিলর সাঈদের বিরুদ্ধে মামলা সৈয়দ নূরুল আলমের ‘আমার জীবন ও উন্নয়নের ৪৪ বছর’ টিকাটুলিতে রাজধানী সুপার মার্কেটে ভয়াবহ আগুন শিগগিরই ২২১ বন্ড লেনদেনযোগ্য হবে দেশের মানুষ এখন খোলা জেলে বন্দী: মির্জা আব্বাস ধর্মঘটের প্রভাব চালের বাজারে পড়বে না: খাদ্যমন্ত্রী বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা, ২৫ নভেম্বর আন্তমন্ত্রণালয় সভা চট্টগ্রামে পাহাড়ে অস্ত্র তৈরির কারখানা: ২০ অস্ত্রসহ ‘ডাকাত সর্দার’ গ্রেপ্তার ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক বাস নেই, ভোগান্তি মাথায় নিয়ে হাঁটছে মানুষ ভুঁড়িওয়ালা পুরুষের কদর বেশি কেন নারীর কাছে ? সায়েদাবাদ থেকে দূরপাল্লার বাস বন্ধ শিক্ষকের থাপ্পড়ে কান ফাটলো ছাত্রের রাজধানীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত আমার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চালালে অনেক এমপি-মন্ত্রীর যাবজ্জীবন হবে: নাজমুল আইনের লাগাম ছেড়ার ধর্মঘটে সারাদেশে অচলাবস্থা দিনাজপুরে ট্রাকচাপায় ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত কাউন্সিলর রাজিবের তিন গাড়ি জব্দ সেফুদার সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সরকার রাজস্ব আদায় ২ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে বুধবার থেকে বাস চলবে খুলনায় ৩৯তম বিসিএসে ৪ হাজার ৪৪৩ চিকিৎসক নিয়োগ অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলার ঘটনায় ছাত্রলীগের ৫ কর্মী গ্রেপ্তার খালেদা জিয়া দাঁড়াতে-বসতে বা হাতে তুলে খেতে পারেন না: রিজভী দুই সিটির ভোটবিরোধী ৩৬ কাউন্সিলর