artk
রোববার, সেপ্টেম্বার ২২, ২০১৯ ১০:১৯   |  ৭,আশ্বিন ১৪২৬
রোববার, জুলাই ৭, ২০১৯ ১১:০৩

সিডনিতে দেশীয় সাংবাদিকতা: একটি সামাজিক আন্দোলন

নাইম আবদুল্লাহ
media
সমস্যা বোধ করি নতুন লেখকদের নিরুৎসাহিত করা। তাহলে তো আর পুরনো লেখকদের খদ্দরের পাঞ্জাবি আর কাপড়ের ব্যাগের কোন চল থাকবে না।

পূর্ব প্রকাশের পর: সিডনিতে এখন প্রায় সবাই পড়াশুনা করে। আমি বুঝাতে চাইছি পাঠক সংখ্যা বেড়ে চলেছে। অনেক পাঠক পড়তে পড়তে লিখতে শুরু করেছে। তারা লজ্জা বা পাছে লোকে কিছু বলে কিংবা সমালোচনার বেড়াজাল ডিঙ্গিয়ে বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। এটা সামাজিক আন্দোলনের একটি অন্যতম সুফল।

কেউ কেউ বলছেন, লেখকদের চেয়ে পাঠকরাই বেশি কলাম লিখছেন। তাই নামী দামি লেখকরা লিখতে বিব্রত বোধ করছেন। নামী দামি লেখকদের বরং পাঠক কিংবা নবীন লেখকদের জন্য বেশি বেশি লিখে উৎসাহিত করা উচিত। লেখক প্লাটফর্মের এই দাম্ভিকতার কারণেই গত একযুগ সিডনিতে লেখালেখির চর্চা মুখ থুবড়ে পড়েছিল। যখন আবার পালে বাতাস পেলো তখন আবারো নবীনদের থামিয়ে দেওয়ার পাঁয়তারা চলছে।

আমি মনে করি লেখালেখি কিংবা মনের ভাব প্রকাশ করা কোন ব্যাকরণ বই নয় যে ণত্ব বিধান সত্ত্ব বিধান কিংবা পাগুটাদীপতি মেনে চলতে হবে। আর যারা পুরানো লেখক বলে দাবি করছেন তাদের লেখায়ও কোন ব্যাকরণ কপচা নেই। তাহলে সমস্যা কোথায়?

সমস্যা বোধ করি নতুন লেখকদের নিরুৎসাহিত করা। তাহলে তো আর পুরনো লেখকদের খদ্দরের পাঞ্জাবি আর কাপড়ের ব্যাগের কোন চল থাকবে না।

লেখক কবিরা লিখবেন, দেশে গিয়ে বইমেলায় বই প্রকাশ করবেন অটোগ্রাফ দিয়ে সেই ছবি ফেজবুকে পোস্ট করবেন তারপর সিডনিতে এসে বইমেলায় বই বিক্রি করে প্রতিষ্ঠিত লেখক হিসেবে জাহির করবেন। তাতে কারও কোন আপত্তি নাই। কিন্তু তাতে সিডনিতে নতুন প্রজন্ম কতটুকু উপকৃত হবে? সাহিত্য চর্চা নতুন পাঠক কিংবা লেখক তৈরিতে কতটুকু অবদান রাখবে?

আমি কোন লেখক কিংবা কবি নই। আমি সিডনিতে দেশীয় সাংবাদিকতা ও সামাজিক আন্দোলনে আরও অনেকের মতো একজন সাধারণ কর্মী মাত্র। আমাকে যদি কেউ জিজ্ঞেস করে আচ্ছা ভাই আপনি নতুন পাঠক কিংবা লেখক তৈরিতে কিভাবে কাজ করছেন? আমি গর্ব করে নাম ঠিকানাসহ তাদের কথা বলতে পারবো।

কিছুদিন আগে আমার এক পরিচিত শুভাকাঙ্ক্ষি একটি প্লাটফর্মে লেখা দেবার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। আমি তাকে ছোট্ট একটি আবদার করে বলেছিলাম, যে প্লাটফর্মের আপনি একজন অন্যতম উদ্যোক্তা সেখানে আপনি লেখা দিলেই আমিও লেখা দিবো। উনি আজ সকালে লেখা পোস্ট করে আমাকে জানিয়েছেন। একজন অনিয়মিত লেখক এখন থেকে নিয়মিত লিখবেন।

অন্য একজন অনিয়মিত লেখক আমাকে তার একটি কলাম পাঠিয়ে একটি অনলাইন পোর্টালে প্রকাশের অনুরোধ করেছিলেন। আমি পত্রিকা অফিসে তার নামে পাঠালাম। তারা প্রকাশে গররাজি থাকলেও পরিশেষে প্রকাশ করলেন। পরবর্তীতে তার কলাম পাঠক প্রিয় হয়েছে। পোর্টাল থেকে তিনি এখন নিয়মিত লেখার অনুরোধ পাচ্ছেন।

একজন নতুন কিংবা অনিয়মিত লেখকের লেখা প্রকাশিত হলে তাদের উজ্জ্বল কিংবা উদ্ভাসিত মুখের দিকে কেউ তাকিয়ে দেখেছেন? আমি আমার নিজের মুখ আয়নায় দেখেছি।

আগামী একযুগ পরে সিডনিতে দেশীয় সাংস্কৃতির সামাজিক আন্দোলন কতটা জারি থাকবে তা কি আমরা ভেবে দেখেছি? আর কতটুকুই বা নতুন প্রজন্মের অন্তরে রেখে যেতে পারবো? আমি সেখানে খুব বেশি আলো দেখি না।

সিডনিতে নাট্য আন্দোলন চলছে। অনেকেই দেশে স্কুল কলেজ ভার্সিটিতে অভিনয় করেছেন। তারাও ছেলেমেয়েদের নিয়ে এগিয়ে আসতে চান। কিন্তু সেই পরিবেশ কি আমরা এখনও তৈরি করতে পেরেছি?

এখানকার প্রিন্ট ভার্সন পত্রিকা অর্থনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে মাসিক থেকে ত্রৈমাসিকে প্রকাশের পাঁয়তারা করছে। যেখানে অন্যান্য বাংলা ভাষাভাষি দেশগুলিতে মাসিক থেকে পাক্ষিক কিংবা এখন প্রতি সপ্তাহে প্রকাশিত হচ্ছে। এই পিছু হটার দায়ভার আমাদের। এই দুরাবস্থার গ্লানি সবার। (চলবে)

লেখক: সাংবাদিক ও সিডনি প্রবাসী।

‘বেঁচে থাকতে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হতে দেব না’ তেল শোধনাগারে হামলার প্রতিশোধ নেবে সৌদি আরব ‘মিসেস বাংলাদেশ’ হলেন মুনজারিন অবনী টেকনাফে আটকের পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত বাগেরহাটে ধর্ষণ মামলায় আ.লীগ নেতা গ্রেপ্তার পানির নিচে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু লাইবেরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে কুরআন তেলাওয়াতরত ২৭ শিক্ষার্থীর মৃত্যু ভারত থেকে অস্কারে যাচ্ছে ‘গাল্লি বয়’ সাকিব তাণ্ডবে আফগানদের বিরুদ্ধে জয় পেল টাইগাররা শিবপুরে মদপানে দুই শ্রমিকের মৃত্যু পাটগ্রামে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে কলেজছাত্রীর অবস্থান চট্টগ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া সংসদেও জুয়ার আসর ১৩০টি দেশ ভ্রমণ করেছেন এই অন্ধ পর্যটক ৪০ কোটি টাকা নিয়ে পালানো সেই টার্কি বাবলু স্ত্রীসহ গ্রেপ্তার দুর্নীতির দায়ে সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল চলমান অভিযান জনমনে প্রত্যাশার সৃষ্টি করবে: টিআইবি স্কুল মাস্টারের ছেলে জি কে শামীমের ডন হয়ে ওঠা রাজধানীর ভূতের আড্ডায় অভিযান! পরিবহন ব্যবস্থায় শৃঙ্খলার উন্নতি ঘটেছে: প্রধানমন্ত্রী আফগানদের হারাতে ১৩৯ রানের লক্ষ্য পেল টাইগাররা রোহিঙ্গা নিয়ে ক্যামেরনের সঙ্গে মিথ্যাচার সু চির গাজীপুর সদর উপজেলা আ.লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা শিক্ষার্থীদের উপর হামলা, পদত্যাগ করলেন সহকারী প্রক্টর দলের ভাবমূর্তি উদ্ধারে আগাছা-পরগাছা দূর করা হবে: কাদের কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি শফিকুল ১০ দিনের রিমান্ডে বহুদলীয় গণতন্ত্র হুমকির মুখে: জিএম কাদের ইংল্যান্ডের সব ফরম্যাটের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আর্চার নিয়ম রক্ষার ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ ফাহিমের জোড়া গোলে বাংলাদেশের উড়ন্ত শুরু ১০ দিনের রিমান্ডে কৃষকলীগ নেতা ফিরোজ