artk
রোববার, সেপ্টেম্বার ২২, ২০১৯ ৯:৫৮   |  ৭,আশ্বিন ১৪২৬

শামিম আহমেদ

শুক্রবার, জুলাই ৫, ২০১৯ ১২:০৭

কোথা থেকে এলো নুসরাত জাহানের বিরুদ্ধে ‘ফতোয়ার’ গল্প?

media

তৃণমূল কংগ্রেসের এমপি নুসরাত জাহান সম্প্রতি নিখিল জৈনকে বিয়ে করেছেন। ভারতীয় আইনের স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্ট অনুযায়ী সম্পন্ন হয়েছে এই বিয়ে। ভারতীয় গণমাধ্যম অনুযায়ী, এই পরিণয়ের বিরুদ্ধে নাকি দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে ফতোয়া জারি করা হয়েছে। সেই মর্মে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে অজস্র।

প্রথমেই বলে রাখা ভাল, এমন কোনও ফতোয়া দারুল উলুম প্রকাশ করেনি। খবরটি সর্বৈব মিথ্যা, যাকে বলা হয় ‘ফেক নিউজ’। কীভাবে এই ফেক নিউজ ছড়িয়ে পড়ল, তার আগে কয়েকটি জিজ্ঞাসার নিরসন আবশ্যক।

ফতোয়া কাকে বলে? দারুল উলুমই বা কী? দেশের আইন যে বিষয়কে মান্যতা দেয়, তাকে কি দারুল উলুম ‘অবৈধ’ ঘোষণা করতে পারে?

‘ফতোয়া’ শব্দটি আরবি, যার অর্থ হল ‘অভিমত’। কোনও ঘটনার প্রেক্ষিতে সমস্যা তৈরি হলে, তার ধর্মীয় সমাধানকল্পে কেউ যদি মুফতি (আইন-বিশেষজ্ঞ)-র শরণাপন্ন হন এবং তাকে ওই সমস্যার সমাধান শরিয়তের আলোকে দিতে অনুরোধ করেন, তাহলে মুফতি শাস্ত্র ঘেঁটে ওই ব্যক্তিকে ধর্মীয় সমাধানের রাস্তা বলে দেন। এটি কখনওই হুকুম জারি নয়। প্রতিটি ফতোয়ার শেষে মুফতি লিখে দেন, ‘Allah knows best!’

দারুল উলুম দেওবন্দ হল একটি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যেখান থেকে দেওবন্দি বা পুনর্জাগরণবাদী আন্দোলনের সূত্রপাত হয়। ১৮৬৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এই সংস্থাটি ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং সেখানকার ওলামা বা পণ্ডিতরা ভারতকে ভাগ করে দুই রাষ্ট্রব্যবস্থার তীব্র বিরোধিতা করেন। মওলানা হোসেন আহমেদ মাদানি সব রকমের হিংসার বিরুদ্ধে ওলামাদের লড়তে বলেন। তারা পাকিস্তান রাষ্ট্রগঠনেরও তীব্র বিরোধিতা করে এক অখণ্ড ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের পক্ষে সওয়াল করেন।

দেওবন্দের দারুল উলুম ইফতা ধর্মীয় সমস্যা সংক্রান্ত প্রশ্ন এলে তার সমাধান দিয়ে থাকেন। তারা স্বতঃপ্রণোদিতভাবে কোনও বিষয়ে অভিমত বা ফতোয়া দেন না। দারুল উলুম ইফতা অনলাইনে এই সমাধানসমূহ লিখিতভাবে দিয়ে থাকে। সেখানে নুসরাত জাহানের বিবাহ কিংবা সিঁদুর-মঙ্গলসূত্র নিয়ে কেউ কোনও প্রশ্ন করেন নি এবং স্বাভাবিকভাবেই দারুল ইফতা তার কোনও উত্তরও দেয় নি; দারুল উলুম ইফতার ওয়েবসাইটে গিয়ে যে কেউ বিষয়টি যাচাই করে নিতে পারেন।

ভারতে বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের দেওয়ানি-বিধি ভিন্ন ভিন্ন। এই সুবিধা/অসুবিধা কেবল ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা পেয়ে থাকেন, সে কথা ভুল। হিন্দু-খ্রিস্টান প্রত্যেকের পৃথক দেওয়ানি বিধি রয়েছে। জৈন বিধির প্রাচীন গ্রন্থ হল ‘ভদ্রবাহু সংহিতা’। পরবর্তীকালে সে সব বিধির পরিবর্তন-পরিমার্জন হয়। জৈন আগমে পাঁচ রকমের বিবাহের কথা পাওয়া যায়। নারীর সম্পত্তির অধিকারের প্রশ্নে জৈন-বিধি হিন্দু-বিধি থেকে পৃথক। ১৯৫৫ সালে জৈন আইনকে হিন্দু আইনের অন্তর্ভুক্ত করা হয়, যদিও জৈনদের কেউ কেউ নিজেদের বিধি পালন করে থাকেন।

নিখিল জৈন ও নুসরাত জাহানের বিয়ে জৈনমতে কিংবা ইসলামমতে সম্পন্ন হয়নি। হয়েছে রাষ্ট্রীয় আইনের সাহায্যে। যেহেতু কোনও ধর্মের দেওয়ানি বিধিতে আন্তঃধর্মীয় বিবাহের বিধান নেই এবং ওই রকম বিবাহকে অশাস্ত্রীয় বলা হয়; তাই ১৯৫৪ সালে এমন বিয়েহের জন্য ভারতীয় সংসদে স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্ট পাস হয়, অ্যাক্ট ৪৩ অফ ১৯৫৪। ফলে রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী, নিখিল-নুসরাতের বিবাহ বৈধ ও আইনসম্মত। তারা বিশেষ কোনও ধর্মের দেওয়ানি বিধির সাহায্যের পরিবর্তে রাষ্ট্রীয় আইনের দ্বারস্থ হয়ে বিবাহসূত্রে আবদ্ধ হয়েছেন।

জৈন/হিন্দু সিভিল ল অনুযায়ী কিংবা ইসলামি দেওয়ানি বিধি অনুযায়ী এই ধরনের বিবাহ সঙ্গত কিনা, এখন যদি কেউ সেই প্রশ্ন তোলেন, পণ্ডিতরা শাস্ত্র ঘেঁটে তার উত্তর দেবেন; সেই উত্তর কখনওই রাষ্ট্রীয় আইনের বিরোধিতা নয়। তা হলো অভিমত বা ফতোয়া। সেই অভিমত বা ফতোয়া কোনও ব্যক্তির নয়, বরং শাস্ত্রের, ধর্মীয় সাহিত্য সমূহের। তার নিন্দা বা প্রশংসা করা যায়।

কিন্তু এমন অভিমত কেন ঝড় তোলে দেশে? নুসরাত জাহান কিংবা নিখিল জৈন সামাজিকভাবে উচ্চ কোটির মানুষ, কিন্তু বহু নিম্ন কোটির মানুষের জীবনে এমন অভিমত ঝড় তোলে বৈকি। দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে এমন কোনও ফতোয়া দেওয়া হয় নি। জনৈক মৌলভি নুসরাত-নিখিলের বিয়ে নিয়ে কিংবা নুসরাতের সিঁদুর পরা নিয়ে নিজস্ব মন্তব্য করেছেন।

এমন নানা মত অনেকেই দিয়ে থাকেন। কয়েকদিন আগে দেখলাম, দুই ধর্মের দুই ‘প্রাজ্ঞ’ ব্যক্তি বললেন, ভিন্নধর্মী নারীদের ধর্ষণ করা বৈধ। এমন ব্যক্তি-ফতোয়ার পেছনে আছে পিতৃতান্ত্রিক মনোভাব এবং মহিলাদের অবমানব ভাবা। নিখিল-নুসরাতের বিয়ে নিয়ে তাই কোনও মৌলভী-বিশেষের আপত্তির পেছনে যতটা না ধর্ম, তার চেয়ে বেশি কাজ করে পিতৃতান্ত্রিকতা। ওই মৌলভী আবার মুসলমান পুরুষ ও অমুসলমান নারীর বিয়েতে আনন্দে উদ্বাহু হয়ে ওঠেন; ঠিক যেমন নিখিল-নুসোতের বিয়ে নিয়ে যারা বিশেষ ধর্মের মুণ্ডপাত করছেন ও প্রসন্নতার ভাব দেখাচ্ছেন, তারাই আবার অকথা কুকথার বন্যা বইয়ে দেবেন যদি আন্তঃধর্মীয় বিয়েতে পুরুষটি হন মুসলমান। নিখিল জৈন ও নুসরাত জাহান দুজন মানুষ, আইনসম্মতভাবে বিবাহ করেছেন। এতে মহত্ত্ব যেমন নেই, তেমনি নেই সামান্যতম নীচতাও, এটি স্বাভাবিক ঘটনা।

এবং দারুল উলুম ইফতা এই বিবাহ নিয়ে কোনও ফতোয়া/অভিমত দেয় নি।

আগেই বলেছি, ফতোয়া নিয়ে শাস্ত্রীয় অভিমত এমন হলেও তার একটি সামাজিক-রাজনৈতিক প্রভাব থেকে যায়। সেই প্রভাবের কুনজরে পড়েন সাধারণ মানুষ, আর ওই ব্যক্তিবিশেষের ফতোয়া নিয়ে বিরুদ্ধবাদীরা সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়ান।

এমন সমস্যার মুখোমুখি হয়ে ২০১৮ সালে উত্তরাখণ্ড হাইকোর্ট ফতোয়া জারির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। একটি ধর্ষণের ঘটনায় পঞ্চায়েতের ‘হুমকি’ জারির প্রেক্ষিতে কোর্ট জানায় যে ফতোয়া হলো অসাংবিধানিক ও বেআইনি। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট উত্তরাখণ্ড হাইকোর্টের এই রায়ের ওপর স্থগিতাদেশ দেয়। সুপ্রিম কোর্ট বলে, ফতোয়া বা অভিমত কোনও ডিক্রি নয়, তা কাউকে বেঁধে ফেলে না বা তা কারোর ওপর জোর করে চাপিয়ে দেয়া হয় না। এটি উপদেশ বা অভিমত মাত্র।

প্রতিবেশী বাংলাদেশের আদালত অবশ্য ফতোয়া নিয়ে অন্য মত পোষণ করে। ২০০১ সালে উচ্চ আদালতের দুই বিচারপতি, মোহাম্মদ গোলাম রাব্বানী ও নাজমুন আরা সুলতানার বেঞ্চ জানায়, ফতোয়া হলো অবৈধ ও আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত। একমাত্র আদালতই আইনসংক্রান্ত প্রশ্নে মতামত দিতে পারে। কেউ যদি ফতোয়া দেয় তবে ফৌজদারি বিধি অনুসারে তাকে শাস্তি দেয়া হবে। তার পর তা নিয়ে চলে অনেক টনাপোড়েন। ২০১০ সালে বিচারপতি গোবিন্দচন্দ্র ঠাকুর ও সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের বেঞ্চ জানায়, ফতোয়ার নামে বিচার করা বা শাস্তি দেয়া হলো অবৈধ।

আমাদের দেশে খাপ পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধর্মের নেতানেত্রীরা যে ধরনের ফতোয়া জারি করেন তা বেশিরভাগ সময়ে মানবাধিকারের পরিপন্থী হয়ে পড়ে। আর এ সবের শিকার হন দলিত (হিন্দু-মুসলমান নির্বিশেষে) ও মহিলারা।

পুনশ্চ: নুসরাত জাহান সম্পর্কে দারুল উলুম ইফতা কোনও ফতোয়া/অভিমত জারি করে নি। ‘ফেক নিউজ’ কেন ছড়ানো হয়, কেন বিদ্বেষ প্রচার করা হয়, কেনই বা মানুষ হিংসার দ্বারস্থ হয়, এই প্রশ্নগুলো জানা। উত্তরগুলোও সহজ। কিন্তু পরিণতি নিষ্ঠুর ও করুণ। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস থেকে।

তেল শোধনাগারে হামলার প্রতিশোধ নেবে সৌদি আরব ‘মিসেস বাংলাদেশ’ হলেন মুনজারিন অবনী টেকনাফে আটকের পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত বাগেরহাটে ধর্ষণ মামলায় আ.লীগ নেতা গ্রেপ্তার পানির নিচে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু লাইবেরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে কুরআন তেলাওয়াতরত ২৭ শিক্ষার্থীর মৃত্যু ভারত থেকে অস্কারে যাচ্ছে ‘গাল্লি বয়’ সাকিব তাণ্ডবে আফগানদের বিরুদ্ধে জয় পেল টাইগাররা শিবপুরে মদপানে দুই শ্রমিকের মৃত্যু পাটগ্রামে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে কলেজছাত্রীর অবস্থান চট্টগ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া সংসদেও জুয়ার আসর ১৩০টি দেশ ভ্রমণ করেছেন এই অন্ধ পর্যটক ৪০ কোটি টাকা নিয়ে পালানো সেই টার্কি বাবলু স্ত্রীসহ গ্রেপ্তার দুর্নীতির দায়ে সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল চলমান অভিযান জনমনে প্রত্যাশার সৃষ্টি করবে: টিআইবি স্কুল মাস্টারের ছেলে জি কে শামীমের ডন হয়ে ওঠা রাজধানীর ভূতের আড্ডায় অভিযান! পরিবহন ব্যবস্থায় শৃঙ্খলার উন্নতি ঘটেছে: প্রধানমন্ত্রী আফগানদের হারাতে ১৩৯ রানের লক্ষ্য পেল টাইগাররা রোহিঙ্গা নিয়ে ক্যামেরনের সঙ্গে মিথ্যাচার সু চির গাজীপুর সদর উপজেলা আ.লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা শিক্ষার্থীদের উপর হামলা, পদত্যাগ করলেন সহকারী প্রক্টর দলের ভাবমূর্তি উদ্ধারে আগাছা-পরগাছা দূর করা হবে: কাদের কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি শফিকুল ১০ দিনের রিমান্ডে বহুদলীয় গণতন্ত্র হুমকির মুখে: জিএম কাদের ইংল্যান্ডের সব ফরম্যাটের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আর্চার নিয়ম রক্ষার ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ ফাহিমের জোড়া গোলে বাংলাদেশের উড়ন্ত শুরু ১০ দিনের রিমান্ডে কৃষকলীগ নেতা ফিরোজ মসজিদের নির্মাণ কাজ বন্ধ করা সেই ছাত্রলীগ নেতাকে শোকজ