artk
সোমবার, আগষ্ট ২৬, ২০১৯ ৮:৫২   |  ১১,ভাদ্র ১৪২৬
রোববার, জুন ৯, ২০১৯ ৮:৫২

আমি স্বপ্ন দেখি...

মোল্লা মো. রাশিদুল হক
media
আমি স্বপ্ন দেখি তাঁর হাত ধরেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ থেকে একদিন উচ্চ আয়ের দেশে রুপান্তরিত হবে। কিন্তু শুধু সরকার একা কি পারবে আমাদের উন্নয়নের মহাসড়কে পৌঁছে দিতে? আমাদের কি ব্যক্তিগত কোনো দায়িত্ব নেই?

একবার এক খেটে খাওয়া লোককে জিজ্ঞেস করা হলো আপনি স্বপ্ন দেখেন? তিনি বললেন, হ্যাঁ। আমি স্বপ্ন দেখি যে, একদিন আমিও স্বপ্ন দেখব। মানে তাঁর স্বপ্ন দেখার ও ফুরসত বা সুযোগ নেই। আমাদের দেশের গরিব, খেটেখাওয়া লোকেরা স্বপ্ন দেখাও ছেড়ে দিয়েছে জীবনের টানে, সংসারের ঘানী টানতে টানতে। আমাদের দেশের মধ্যবিত্ত স্বপ্ন না দেখলেও দুঃস্বপ্ন নিয়মিত দেখছেন দুর্নীতি, অনিয়ম আর দূষিত রাজনীতির করাঘাতে কাহিল হয়ে। না পারছেন হাত পাততে, না পারছেন সংসার চালাতে। আমাদের দেশের ধনীদের কথা না হয় বাদই দিলাম।

তাদের স্বপ্ন দেখতে হয় না, স্বপ্নরাই তাদের দেখে নিয়মিত। যাদের শপিং সিঙ্গাপুরে, চিকিৎসা থাইল্যান্ডে, হলিডে কানাডায়, বাড়ি আমেরিকায় আর টাকা পয়সা সব সুইজারলেন্ডে জমা, তাদের স্বপ্ন দেখার দরকার কি, তারা তো স্বপ্নের জীবনেই বসবাস করছেন।

সমস্যা শুধু এক জায়গায়-তাহলে আমাদের মধ্যবিত্ত ও গরিবদের কি হবে? তারা কি স্বপ্ন দেখবে না?

তাই আমি আমার কাজে (শিক্ষকতা ও গবেষণা) নিজের সর্বস্ব দিয়ে খেটে অনুভব করি একজন খেটে খাওয়া মানুষের কষ্ট। হয়তো আমার কাজের ধরন আলাদা, হয়তো আমার কষ্ট আর বাংলাদেশের একজন খেটে খাওয়া মানুষের কষ্ট আলাদা, কিন্তু দিন শেষে তারা কষ্টই। এই কষ্টদের ভীড়েই আমি স্বপ্ন দেখি।

আমি স্বপ্ন দেখি একদিন বাংলাদেশ দুর্নীতিমুক্ত হবে। একদিন বাংলাদেশ মাদকমুক্ত হবে। একদিন বাংলাদেশের মানুষ আইন মেনে, নিয়ম মেনে চলবেন। দেশের টাকা বিদেশে পাচার হবে না। যুদ্ধাপরাধীদের মতো দুর্নীতিবাজদের বিচার হবে। দেশ রাষ্ট্রীয়, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সব দিক দিয়ে স্বাবলম্বী হবে। দেশে ভালো মানুষের রাজনীতি করার পরিস্থিতি তৈরি হবে। ধান্দাবাজ লোকের সংখ্যা কমে আসবে। সবাই কাজের মাধ্যমে উপরে উঠার চেষ্টা করবে। যোগ্যতার ওপর ভিত্তি করে মানুষকে বিভিন্ন পদে আসীন করা হবে। আমরা দেশের মানুষের উন্নয়নে ব্যাক্তিস্বার্থ ত্যাগ করে, দেশের স্বার্থে কাজ করবো।

আমাদের নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের ভিতরে হাজার হাজার নতুন রাস্তা ঘাট, ব্রিজ, মহাসড়ক বানিয়ে দেশকে উন্নয়নের পথে গতিশীল করেছেন, পুরনো মহাসড়কগুলোতে লেন সংখ্যা বাড়িয়ে তাতে গতি বাড়িয়েছেন, অর্থনৈতিকভাবে দেশকে স্বাবলম্বী করেছেন। ফ্লাইওভার থেকে শুরু করে মেট্রোরেল, পদ্মা সেতু পর্যন্ত সবই তাঁর অবদান। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা থেকে শুরু করে, এযাবতকালের সর্বোচ্চ বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ (বিদেশে থাকা আমার খেটে খাওয়া ভাই বোনদেন এ জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ) এ সরকারেরই অবদান। বিদ্যুৎ থেকে শুরু করে মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় সমস্ত জিনিষের প্রয়োজন মিটিয়েছেন। ১৬-১৭ কোটি মানুষের জন্যে কাজ করা চাট্টিখানি কথা না।

তেমনিভাবে, বিদেশের মাটিতেও বাংলাদেশের অর্জন কম হয়নি। তিনি ভারতের কাছ থেকে গঙ্গার পানি এনেছেন (তিস্তা চুক্তিও হয়ে যাবে আশা করি), ছিটমহল সমস্যা নিষ্পত্তি করেছেন, সমুদ্রসীমা নির্ধারণের মাধ্যমে বাংলাদেশের সামুদ্রিক সীমানা বাড়িয়েছেন, ভারতের নাকের ডগা দিয়ে সাবমেরিন এনে ত্রি-মাত্রিক বাহিনী বানিয়েছেন, সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হয়ে দেশের মানুষের পুরো পৃথিবীর সাথে সাশ্রয়ে যোগাযোগের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন, মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়ে দেশকে অত্যাধুনিক হবার সুযোগ করে দিয়েছেন।

আমি স্বপ্ন দেখি তাঁর হাত ধরেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ থেকে একদিন উচ্চ আয়ের দেশে রুপান্তরিত হবে। কিন্তু শুধু সরকার একা কি পারবে আমাদের উন্নয়নের মহাসড়কে পৌঁছে দিতে? আমাদের কি ব্যক্তিগত কোনো দায়িত্ব নেই?

এবার প্রশ্ন আমরা কি করছি? আমরা কি পারিনা আমাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে? আমরা কি পারিনা সমস্ত অনিয়মের বেড়াজাল ডিঙ্গিয়ে একটা নিয়মতান্ত্রিক সমাজ ব্যাবস্থা গড়ে তুলতে?

ঢাকা (দক্ষিণ) এর সম্মানিত মেয়র একদিন আমাকে বলছিলেন, ঢাকার ময়লা দূরীকরণে উনি হাজার হাজার ‘ডাস্ট-বিন’ স্থাপন করেছেন। কিন্তু কে বা কারা সেগুলো চুরি করে নিয়ে যায়। যে সমাজে সামান্য ‘ডাস্ট-বিন’ পর্যন্ত চুরি হয়ে যায়, সে সমাজে গুরুতর সমস্যা আছে। কি দোষ দেবেন সরকারকে? না এর জন্যে সরকার দায়ী না। দোষ আমাদের চিন্তা ভাবনায়। আমার যে যেখানে আছি সেখানেই দুর্নীতি করছি। স্কুলের শিক্ষক থেকে শুরু করে কোনো কোনো মসজিদের ইমাম পর্যন্ত দুর্নীতিগ্রস্ত। ঘুষ, অনিয়ম, অসদুপায়, দুর্নীতি যেন একসাথে মহোৎসবে অংশ নিচ্ছে আমাদের দেশে। অন্যে করলে দুর্নীতি, আমি করলে না। আওয়ামী লীগ করলে দুর্নীতি, বিএনপি করলে না ইত্যাদি। দুর্নীতি যেই করুক সেটা দুর্নীতিই। তাই, যতদিন পর্যন্ত আমরা নিজেরা ঠিক না হবো ততদিন পর্যন্ত আমাদের দেশ ঠিক হবে না। পৃথিবীর কোনো সরকারের পক্ষে তা ঠিক করা সম্ভব হবে কিনা আমি জানি না। কেউ কেউ অগণতান্ত্রিক আর্মি সরকারের স্বপ্ন দেখেন, কিন্তু লাঠির বাড়ি দিয়ে কিছুদিন ঠিক রাখা যায়, সেটা সমস্যার সমাধান না।

যেমন ধরুন, ১৬-১৭ কোটি মানুষের দেশে আয়কর দেয় মাত্র ১৩ লাখ মানুষ। বাকিরা কামাচ্ছেন না? কামাচ্ছেন, কিন্তু আয়কর দিচ্ছেন না। বড় বড় কথা বলা ড. কামাল হোসেনও নাকি মাত্র ২৫ হাজার টাকা আয়কর দিয়েছেন এক বছরে, যেখানে তিনি প্রায় ১০ লাখ টাকা নেন মাত্র একটা কেস পরিচালনা করতে। সত্যি সেলুকাস, কী বিচিত্র আমার জন্মভুমি!

এই ১৩ লাখ লোকের আয়কর, শুল্ক, রপ্তানি আয়ই মূলত আমাদের সরকারের মূল চালিকাশক্তি। তাই আয়কর কম হওয়াতে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও জনগণকে বেশি কিছু দেয়া সম্ভব না। যদি আমি আপনাকে জিজ্ঞেস করি সারা জীবন তো শুধু দেশ থেকে নিলেন (সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফ্রি শিক্ষা, সরকারি হাসপাতালে ফ্রি চিকিৎসা, সরকারি টাকার রাস্তা-ঘাটে ফ্রি চলাচল, সরকারি ভর্তুকি দেয়া পেট্রোলে চলা গাড়িতে চড়া ইত্যাদি), তো দেশকে আসলে আপনি নিঃস্বার্থভাবে দিয়েছেন কি? কথায় কথায় দেশকে উদ্ধার না করে, নিজে ভাবুন আপনি দেশের জন্যে কী করেছেন।

আমি জানি আমার পরিচিত অনেকেই অনেক কিছু করেছেন, কিন্তু বেশির ভাগই কিছু করেননি। আপনি যেই সার্ভিস দিচ্ছেন, রাষ্ট্র/প্রতিষ্ঠান তার জন্যে টাকা দিচ্ছে। আপনি টাকা পাচ্ছেন না কিন্তু সমাজের জন্যে, দেশের জন্যে কিছু করছেন সেটা হচ্ছে দেশের প্রতি, মানুষের প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ। অনিয়মের এই সমাজে নিয়ম মেনে কেউ কিছু করলেই আমরা তাদের বাহবা দিচ্ছি (দেয়া উচিত ও)। কিন্তু হওয়া উচিত ছিল এই যে, সবাই নিয়ম মেনেই দেশের সেবা করবে। যারা বেশি করবে তাদের আমরা বাহবা দেব, তাই না?

সবাই ভালো থাকুন। নিজের পাশাপাশি দেশকে নিয়েও ভাবুন !

লেখক: রিসার্চ ফেলো, মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়।

সত্যকে এড়ানোর উপায় নেই: কাদের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধে কমিটি হচ্ছে বিদ্যালয়ে বিশ্বের সবচেয়ে দামি অভিনেত্রী স্কারলেট বিএনপি নেতা-কর্মীদের খুন করেছে আ.লীগ: ফখরুল যেভাবে চিনবেন ভালো সিমেন্ট ডেঙ্গুর যাতনা ভুলতেই পারছি না: অর্থমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করার অভিযোগে সোনাইমুড়ির মেয়র বরখাস্ত কানে এয়ারফোন, ট্রেনের ধাক্কায় প্রাণ গেলো তরুণের সোনার বাংলা বিনির্মাণে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে: অর্থমন্ত্রী কাবিননামায় ‘কুমারী’ শব্দ বাদ দেয়ার নির্দেশ খেলাপি ঋণ কমার সুযোগ নেই স্টোকসের হেলমেট ভাঙলেন হ্যাজলউড শতকোটি টাকা আত্মসাতে ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী রশিদ খানের হুঙ্কার! দক্ষ জনশক্তির প্রয়োজনে ২ প্রতিষ্ঠান রাতের আঁধারে জামালপুর ছাড়লেন সেই ডিসি শ্রীলঙ্কাকে ৭-১ গোলে গুড়িয়ে দিলো বাংলাদেশের কিশোররা রোগীর ওপর খসে পড়ল হাসপাতালের ছাদের পলেস্তারা রাজাকারদের তালিকা সংগ্রহ করছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদেরই এগিয়ে রাখছেন মিরাজ দুদকের কাছে ৩ মাসের সময় চেয়েছেন নূর আলী পৃথিবী ধ্বংসে মেতেছেন ট্রাম্প আর বোলসোনারো আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সেবা কার্ড নিয়ে এলো ‘মেডিএইডার’ পদ্মায় ১৬০ টন সিমেন্টসহ কার্গো ডুবি পূর্বাচলে ১০ কাঠার প্লট চান বিএনপির রুমিন খেলোয়াড়দের দাঁত অন্যদের দাঁতের চেয়েও খারাপ কেড়ে নেয়া হবে সেই ডিসির শুদ্ধাচার সনদ কাবিননামা থেকে ‘কুমারী’ শব্দ বাদ দেয়ার নির্দেশ উদাহরণ সৃষ্টির মতো শাস্তি হবে ডিসির: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী