artk
শনিবার, মে ১৬, ২০১৫ ২:৩৭

অবৈধ ডিটিএইচ বাণিজ্য, রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

media

ঢাকা: সরকারি সংস্থাগুলোর নীরবতার সুযোগে একশ্রেণির ব্যবসায়ী অবৈধভাবে ডাইরেক্ট টু হোম (ডিটিএইচ) বাণিজ্য করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এ ব্যবসায় সরকারের আইনগত বাধা থাকলেও নিয়ন্ত্রণ নেই। এরই ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ ব্যবসায়ীরা। সরকারও হারাচ্ছে রাজস্ব।

ক্যাবল অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সভাপতি এসএম আনোয়ার পারভেজ নিউজবাংলাদেশকে বলেন, “দেশীয় চলচ্চিত্র যেভাবে মার খেয়েছে সেভাবে দেশীয় ক্যাবল অপারেটরদের বাণিজ্য ধ্বংস করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে একশ্রেণির ব্যবসায়ী। তারা চোরাইপথে ডিটিএইচ বক্স এনে ঘরে ঘরে অবৈধভাবে ব্যবসা করলেও সরকার এ ব্যাপারে নিশ্চুপ।”

তিনি আরো বলেন, “এ ব্যবসা বন্ধে আমরা সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে অভিযোগ জানিয়েছি। তথ্য, স্বরাষ্ট্র ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়সহ জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ জানানো হয়েছে। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। অবৈধ এ ব্যবসার প্রসার দিনদিন বাড়ছে।”

কোয়াব সূত্রে জানা গেছে, সরকারিভাবে দেশে এখনো কোনো প্রতিষ্ঠান এ ব্যবসা শুরু করেনি। তবে দেশের বিভিন্ন জায়গায় চোরাই পথে কোটি কোটি টাকার ডিটিএইচ বেচাকেনা হচ্ছে। ভারতীয় ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যে চোরাইপথে ডিটিএইচ বাণিজ্য করে শ’শ’ কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে।

কোয়াবের সাবেক প্রচার সম্পাদক কামরুল আলম শামীম নিউজবাংলাদেশেকে বলেন, “ডিটিএইচ প্রযুক্তি হচ্ছে ডিশ অ্যান্টেনার আধুনিক সংস্করণ। এর ব্যবহারে স্যাটেলাইট থেকে চ্যানেল একবার ডাউনলিং করে আবার তা পুনরায় স্যাটেলাইটে ফেরত পাঠানো হয় যা আবার ডিটিএইচে ফিরে আসে। প্রযুক্তি ব্যবহার করে ক্যাবল ছাড়াই পৃথবীর বিভিন্ন দেশের চ্যানেল দেখা যাচ্ছে।”

তিনি আরো বলেন, “এখানে তিনশো থেকে চারশো চ্যানেল দেখার সুযোগ রয়েছে। দেশের লাখ লাখ টিভি দর্শক ডিটিএইচে টিভি অনুষ্ঠান দেখছে অবৈধভাবে। ডিটিএইচ অবৈধ হলেও ভারত থেকে সীমান্ত হয়ে ডিটিএইচের ডিশ ও রিসিভার আসছে। চোরাপথে আসা ডিটিএইচ বক্স কার্ড প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে রাজধানীর স্টেডিয়াম মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটে।”

কামরুল বলেন, “দেশে অবৈধভাবে ডিটিএইচ বক্সেও ব্যবহার বাড়ছে। এ বক্স ব্যবহার করে কোমলমতি সন্তান ও যুবক নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এর মাধ্যমে (অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য নয়) এমন চ্যানেল অবাধে দেখা যাচ্ছে। এ ব্যবসা বন্ধে বিভিন্ন জায়গার মার্কেটগুলোতে অভিযান পরিচালনা করে এগুলো জব্দ করলেই এ ব্যবসা কমে যাবে।”

কামরুল আরো বলেন, “সরকার সম্প্রতি দুটি দেশীয় প্রতিস্ঠানকে ডিটিএইচ বিষয়ে অনুমোদন দিয়েছে বলে জেনেছি। এদের একটি হলো বেক্সিমকো এবং অপরটি হলো বেঙ্গল কমিউনিকেশন। চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে বেক্সিমকো এটি অপারেট করা শুরু করবে।”

তিনি বলেন, “ডিটিএচের জন্যও কোয়াবের মতো সুনির্দিষ্ট আইন থাকা প্রয়োজন। তা না হলে ডিটিএইচের যথেচ্ছ ব্যবহার হবে। এটি ব্যবহারে দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।”

কোয়াব সূত্রে জানা গেছে, ডিটিএইচ বক্স বেশি আসছে যশোরের বেনাপোল, রাজশাহীর মোহনপুর, দিনাজপুরের হিলি, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি, চুয়াডাঙ্গার দর্শনাসহ কয়েককটি সীমান্তপথ হয়ে। ডিটিএইচ প্রযুক্তির মাধ্যমে সরকারকে রাজস্ব না দিয়ে শ’শ’ কোটি টাকার বাণিজ্য চলছে। কয়েকটি প্রতিষ্ঠান দেশীয় বাজারে ভারতীয় এ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে চুটিয়ে ব্যবসা করে আসছে।

কোয়াবের তথ্যে বলা হয়, তিন বছর আগ থেকেই অবৈধ ডিটিএইচ প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু হয় বাংলাদেশে। একটি চক্র প্রথমে রাজধানীকেন্দ্রিক অভিজাত এলাকায় এ পদ্ধতি ব্যবহার করে। পরে তারা ঢাকার বাইরে চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, রংপুর, যশোরসহ দেশের বড় বড় শহরগুলোতে ছড়িয়ে দেয়। তৈরি করা হয় পাড়া-মহল্লাভিত্তিক এজেন্ট। বর্তমানে ডিটিএইচের ক্ষেত্রে সবনিম্ন রেট পাঁচ হাজার টাকা। প্রতিদিন চ্যানেল দেখা যাবে ১৭০টি। মাসিক চার্জ চারশো থেকে পাঁচশো টাকা।

সূত্র জানায়, টাটা স্কাইয়ের এইচডি ডিটিএইচের ক্ষেত্রে রেট নেয়া হচ্ছে আট হাজার টাকা। মাসিক চার্জ আটশো থেকে ১২শ’ টাকা। চ্যানেল দেখা যাবে ২২৫টি। আর এইচডি প্লাসের ক্ষেত্রে ১৩ হাজার পাঁচশো টাকা নেয়া হচ্ছে। এ অপশনে ২২৫টি চ্যানেল দেখা যাবে। মাসিক চার্জ এখানেও ওই একই। কোনো কোনো সময় চ্যানেল কম দেখার ওপর মাসিক চার্জ গ্রহণ করা হয়ে থাকে।

এসএম আনোয়ার পারভেজ নিউজবাংলাদেশকে আরো বলেন, “দেশে ডিটিএইচের ব্যবহার বাড়লেও অপারেটররা নানা সদস্যায় পড়ছে। তারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ ব্যবসার জন্য অনেক জায়গায় এজেন্টও তৈরি করা হয়েছে। এর ফলে প্রতি বছরে প্রায় পাঁচ লাখ ডলার অবৈধভাবে দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/এটিএস

পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট ধর্ষক: প্রধানমন্ত্রী করোনা ভাইরাসের কারণে হজে যাওয়া না হলে টাকা ফেরত: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী দাঙ্গা নয়, দিল্লিতে পরিকল্পিত গণহত্যা হয়েছে: মমতা ভারতের সম্মান তলিয়ে দিয়েছে মোদি সরকার: মমতা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে সুনামগঞ্জে এনামুল-রুপন ছয় দিনের রিমান্ডে পিরোজপুরে সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা চলতি বছরই তিস্তা চুক্তির সম্ভাবনা: শ্রিংলা ঢাকা উত্তরের নির্বাচন বাতিল চেয়ে তাবিথের মামলা খুলনায় ছাত্রলীগ নেতাকে পিটিয়ে হত্যা অভিনেতা গোলাম মুস্তাফার জন্মদিন সোমবার আদালতে টাউট-বাটপার শনাক্তের নির্দেশ পাওয়ার ট্রলিকে ধাক্কা দিয়ে বিকল রেলইঞ্জিন কলকাতা সফরে এসে প্রবল বিক্ষোভের মুখে অমিত শাহ রোবট চালাবে গাড়ি! ভিপি নূরকে হত্যার হুমকি দেয়ার পর দুঃখ প্রকাশ টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৭ জন নিহত রাখাইনপ্রদেশে সেনাদের গুলিতে শিশুসহ ৫ রোহিঙ্গা নিহত ইস্কাটনে ভবনে আগুন: মায়ের পর চলে গেলেন রুশদির বাবাও চট্টগ্রামে একটি বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২ দেশে প্রতিদিন যক্ষ্মায় মারা যায় ১৩০ জন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনাভাইরাস আতঙ্কে আয়ারল্যান্ডের স্কুল বন্ধ ঘোষণা বিশিষ্ট সুরকার সেলিম আশরাফ আর নেই মোদীকে অতিথি হিসেবে সর্বোচ্চ সম্মান দেওয়া হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মধুর যত জাদুকরী গুণ চিপসের প্যাকেটের ভিতর খেলনা নয়: হাইকোর্ট আমার গাড়িতেও অস্ত্র আছে কী না আমি জানি না: শামীম ওসমান ফ্র্যান্সেও করোনা, অনিশ্চিত কান চলচ্চিত্র উৎসব উপনির্বাচন: গাইবান্ধা-৩ আসনে প্রতীক বরাদ্দ গুজব ও গণপিটুনি রোধে হাইকোর্টের ৫ নির্দেশনা