artk
রোববার, সেপ্টেম্বার ২২, ২০১৯ ১০:৫৫   |  ৭,আশ্বিন ১৪২৬
বুধবার, মার্চ ৪, ২০১৫ ১০:৩৫

এশিয়ার বৃহত্তম বটগাছটিকে ঘিরে গড়ে তোলা হচ্ছে পর্যটন কেন্দ্র

media

জেলা সংবাদদাতা: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার সুইতলা মল্লিকপুর গ্রামে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বটগাছটিকে ঘিরে গড়ে উঠছে পর্যটন কেন্দ্র। বৃহৎ এ বটবৃক্ষকে রক্ষাণাবেক্ষণ ও স্থানটিকে আকর্ষণীয় পর্যটন এলাকা করার লক্ষে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে বন বিভাগ।

 

প্রাচীন এ গাছটির চারিদিকে ৩২৫ মিটারজুড়ে করা হচ্ছে প্রাচীর, বাথরুম, গেট, সেন্ট্রি পোস্ট, টিকিট কাউন্টারসহ বিভিন্ন নির্মাণ কাজ। ঝিনাইদহ-৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ারুল আজীম আনারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ও স্থানীয় প্রশাসন এবং বনবিভাগের সহযোগিতায় এখানে বর্তমানে ১৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে এসব নির্মাণ কাজ চলছে।

 

কালীগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে ১০ কিলোমিটার এগোলে দেখা মিলবে এশিয়ার বৃহত্তম সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছ। ৮ নং মালিয়াট ইউনিয়নের বেথুলী মৌজায় বর্তমানে ১১ একর জমিজুড়ে রয়েছে এর বিস্তার। বর্তমানে পুরোটাই সরকারের খাস জমির অন্তুর্ভূক্ত হয়েছে। আনুমানিক ২৫০ থেকে ৩০০ ফুট  উচ্চতার বটগাছটি খন্ড খন্ড হয়ে ৫২টি বট গাছে রূপ নিয়েছে। তবে; এখনো প্রতিনিয়ত কাটা হচ্ছে গাছের ডালপালা।

 

 ১৯৮৪ সালে বিবিসি`র জরিপে  এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম বটগাছের মর্যাদা লাভ করে এটি। এর অবস্থান ও নামকরণ নিয়ে রয়েছে নানা জটিলতা এবং কিংবদন্তী। কারো কাছে সুইতলার বটগাছ, কারো কাছে সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছ আবার কারো কাছে বেথুলীর বটগাছ বলে এটি পরিচিত। প্রকৃতপক্ষে এর অবস্থান বেথুলী মৌজায় বলে জানান স্থানীয়রা ।

 

এলাকাবাসী জানিয়েছে, অযত্ন-অবহেলা, রক্ষণাবেক্ষণের অভাব ও নানামুখী অত্যাচারের কারণে এই ঐতিহ্যবাহী বটগাছের অস্তিত্ব আজ নষ্ট হতে চলেছে। মল্লিকপুর গ্রামের বেলায়েত মিয়া বেঁচে থাকা পর্যন্ত তিনি এসব দেখাশুনা করতেন। তিনি নিজ সন্তানের মত ভালবাসতেন এই বটবৃক্ষকে।

 

১৯৮২ সালের পূর্ব পর্যন্ত এশিয়া মহাদেশের মধ্যে বৃহত্তম বটগাছ বলে পরিচিতি ছিল কলকাতার বোটানিক্যাল গার্ডেনের একটি গাছ। পরবর্তীতে বিবিসি`র এক প্রতিবেদনে প্রচার হয় কালীগঞ্জ উপজেলার বেথুলী মৌজার সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছই এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম বটগাছ। ১৯৯৮ সালের দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার তৎকালীন নির্বাহী কর্মকর্তা সুশেন চন্দ্র রায় এর সহযোগীতায় সেখানে একটি ফুলের বাগান তৈরী করা হয়। বটগাছের চারপাশ ঘিরে প্রাচীর নির্মাণের ব্যবস্থাও করেন তিনি। 

 

এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম বটগাছের ঐতিহাসিক দিক বিবেচনা করে অনেক স্থান থেকে প্রতিনিয়ত দর্শনার্থীরা এখানে আসেন। এর গুরুত্ব বিবেচনা করে ১৯৯০ সালে বটগাছের পাশেই প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি রেষ্ট হাউজ নির্মাণ করা হয়। এর জন্য মল্লিকপুরের মৃত জহর আলীর স্ত্রী মোছাঃ কুন্টি বিবি ৩২ শতক জমি জেলা পরিষদের নামে দানপত্র লিখে দেন। তবে নানা জটিলতায় রেষ্ট হাউজটি চালু হয়নি আজো।

 

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মানোয়ার হোসেন মোল্লা জানান, অনেক আগে এটি জেলা প্রশাসকের নিয়ন্ত্রণে ছিল। পরে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ি বন বিভাগের কাছে এটি হস্তান্তর হয়।

 

ঝিনাইদহ সামাজিক বনায়ন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণ থেকে বন বিভাগ প্রাকৃতিক পরিবেশ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় এ বটগাছটি সংরক্ষণের দায়িত্ব নিয়েছে ২০০৯ সালে। গাছটির আয়তন বৃদ্ধির জন্য নতুন করে দুই একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরেই  এর উন্নয়ন কাজ শুরু হয়েছে।

 

উল্লেখ্য ২০১৪ সালের ১২ মে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা এশিয়ার এ বৃহত্তম গাছটি পরিদর্শন করেন।

 

 নিউজবাংলাদেশ.কম/এএইচকে

বউভাতের বদলে বরভাত! বাচ্চাকে মারধর করায় কেশবপুর থানায় একদল হনুমান অজয়ের কারণে বিয়ে হয়নি টাবুর ক্যাসিনো অভিযানে আটক সবাই বিএনপি-জামায়াতের: এইচটি ইমাম এবার গুলশানের ৩টি স্পা সেন্টারে পুলিশের অভিযান প্রিয়াঙ্কার এই বক্স ব্যাগের দাম কত জানেন? ৩ ভিসির কুশপুত্তলিকা দাহ ভিসি নাসিরের পরিকল্পনাতেই শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা সৌদি যুবরাজের বিশেষ উড়োজাহাজে ইমরান খানের যুক্তরাষ্ট্র যাত্রা মিশরে সিসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে, পুলিশের টিয়ার গ্যাস হামলা নিজেদের বানানো ভয়ংকর ট্যাংক প্রদর্শন করলো ইরান চাঁদাবাজির অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেত্রী বহিষ্কার পৃথিবীতে সব চেয়ে সুখী মানুষ মুসলিমরা বিএনপির ‘টপ টু বটম’ সবার পদত্যাগ করা উচিত: কাদের বিয়ে করে বরকে নিয়ে বাড়ি ফিরলেন কনে ফাইনালে বাংলাদেশ স্কোয়াডে কোনো পরিবর্তন নেই তোর আব্বারে ভিসি বানিয়ে দেই: শিক্ষার্থীদের প্রতি ভিসি দুই মাস পর অনুশীলনে ফিরলেন তামিম দুর্নীতির বিরোধী অভিযানে দল-মত দেখা হচ্ছে না: তথ্যমন্ত্রী ঢাবি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের নবীনবরণ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার জোরালোভাবে কাজ করছে: কাদের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম নিরাপত্তা চেয়ে সিলেটের ৫৬ সাংবাদিকের জিডি পুঁজিবাজারে তারল্য কাটাতে অর্থ দিবে বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন ক্লাবে চলমান অভিযানে ক্ষুব্ধ হুইপ শামশুল মতিঝিলের চার ক্লাবে ক্যাসিনো, জুয়ার আখড়া, মদ-সিসা ‘১০ কোটি টাকা দিচ্ছি আমাকে ছেড়ে দিন’ খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাবিতে ছাত্রদলের মিছিল দেশটা জুয়াড়িদের হয়ে গেছে: মির্জা ফখরুল ক্যান্সারে ভুগছেন এন্ড্রু কিশোর