artk
রোববার, সেপ্টেম্বার ২২, ২০১৯ ১০:০৩   |  ৭,আশ্বিন ১৪২৬
বুধবার, মার্চ ৪, ২০১৫ ৩:৪৭

খালেদাকে গ্রেপ্তারের আদেশ বহাল

media

ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট সংক্রান্ত দুটি দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের আদেশ বহাল রেখেছেন আদালত।

বুধবার ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আবু আহমেদ জমাদার গ্রেপ্তার আদেশ প্রত্যাহারের আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আগের আদেশই বহাল রাখেন।

এদিন সাক্ষীরা আদারতে উপস্থিত হলেও তাদের সাক্ষ্য নেয়া সম্ভব হয়নি। সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ৫ এপ্রিল পরবর্তী দিন ধার্য্য করেন আদালত।

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় অনেকদিন ধরে আদালতে হাজির না হওয়ায় গত ২৫ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের আদেশ দেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক আবু আহমেদ জমাদার।

রাজধানীর বকশিবাজারে আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতে মামলা দুটির বিচার কাজ চলছে।

আদালতে আজ খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এজে মোহাম্মদ আলী। অ্যাডভোকেট সানাহউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদারসহ বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা তাকে সহায়তা করেন।

দুর্নীতির দুই মামলা
২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা দায়ের করেন দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলাটিতে ক্ষমতার অপব্যবহার করে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে তিনকোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ আনা হয়।

মামলার দায়ের ছয় মাস পর ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি খালেদা জিয়াসহ চারজনকে অভিযুক্ত করার সুপারিশ করে আদালতে জার্জশিট দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

এ মামলার অপর আসামিরা হলেন- খালেদার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছের তৎকালীন সহকারী একান্ত সচিব ও বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

তাদের মধ্যে হারিছ চৌধুরী মামলার শুরু হতেই পলাতক।

এর আগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা দায়ের করা হয়।

এতিমদের সহায়তার জন্য বিদেশ থেকে আসা দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয় এ মামলায়।

এ মামলায় ২০১০ সালের ৫ আগস্ট বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হয়।

এ মামলার অপর আসামিরা হলেন- মাগুরার সাবেক সাংসদ কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

গতবছর ১৯ মার্চ অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে এ দুই মামলায় বিচার শুরু করে আদালত।

নিউজবাংলাদেশ.কম/ এফএ

এবার গুলশানের ৩টি স্পা সেন্টারে পুলিশের অভিযান প্রিয়াঙ্কার এই বক্স ব্যাগের দাম কত জানেন? ৩ ভিসির কুশপুত্তলিকা দাহ ভিসি নাসিরের পরিকল্পনাতেই শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা সৌদি যুবরাজের বিশেষ উড়োজাহাজে ইমরান খানের যুক্তরাষ্ট্র যাত্রা মিশরে সিসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে, পুলিশের টিয়ার গ্যাস হামলা নিজেদের বানানো ভয়ংকর ট্যাংক প্রদর্শন করলো ইরান চাঁদাবাজির অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেত্রী বহিষ্কার পৃথিবীতে সব চেয়ে সুখী মানুষ মুসলিমরা বিএনপির ‘টপ টু বটম’ সবার পদত্যাগ করা উচিত: কাদের বিয়ে করে বরকে নিয়ে বাড়ি ফিরলেন কনে ফাইনালে বাংলাদেশ স্কোয়াডে কোনো পরিবর্তন নেই তোর আব্বারে ভিসি বানিয়ে দেই: শিক্ষার্থীদের প্রতি ভিসি দুই মাস পর অনুশীলনে ফিরলেন তামিম দুর্নীতির বিরোধী অভিযানে দল-মত দেখা হচ্ছে না: তথ্যমন্ত্রী ঢাবি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের নবীনবরণ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার জোরালোভাবে কাজ করছে: কাদের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম নিরাপত্তা চেয়ে সিলেটের ৫৬ সাংবাদিকের জিডি পুঁজিবাজারে তারল্য কাটাতে অর্থ দিবে বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন ক্লাবে চলমান অভিযানে ক্ষুব্ধ হুইপ শামশুল মতিঝিলের চার ক্লাবে ক্যাসিনো, জুয়ার আখড়া, মদ-সিসা ‘১০ কোটি টাকা দিচ্ছি আমাকে ছেড়ে দিন’ খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাবিতে ছাত্রদলের মিছিল দেশটা জুয়াড়িদের হয়ে গেছে: মির্জা ফখরুল ক্যান্সারে ভুগছেন এন্ড্রু কিশোর উপনির্বাচন পেছানোর দাবিতে রংপুরে অনশন যুক্তরাষ্ট্রে স্পোর্টস বারে বন্ধুক হামলা, নিহত ২ নির্দেশনা মেনে ফেসবুক ব্যবহার করতে হবে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের ক্যাসিনো: মতিঝিলে ৪ ক্লাবে অভিযান