artk
সোমবার, আগষ্ট ৩১, ২০১৫ ৮:০২

আমি থাকবো না, চলে যাবো: জাফর ইকবাল

media

সিলেট: আপনাদের যদি সমস্যা হয়, তাহলে আমি থাকবো না, চলে যাবো। তবে যাওয়ার আগে দেখে যেতে চাই, আপনারা মাথা তুলে দাঁড়িয়েছেন। এর আগেও এখান থেকে আমাদের তাড়ানোর চেষ্টা করা হয়েছে। সেটা হয়েছে বিএনপি-জামাত সরকারের আমলে। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীরা সেটা করেছে। আমি তাদের কাছে মাথা নত করিনি। এখন চলে গেলেও সান্ত্বনা থাকবে, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের বলে দাবিদারদের সময়েই চলে গেলাম। এখন গেলে যে সরকার যুদ্ধাপরাধীর বিচার করে, তাদের কাছে মাথা নিচু করে বিদায় নেওয়া হবে।

ক্ষোভ, অপমান আর কষ্ট নিয়ে এই কথাগুলো বললেন অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল।

ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে রোববার শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতিবাদ সমাবেশে এমন আবেগময় কথা বলেন কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের এই শিক্ষক। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যবিরোধী আন্দোলনরত ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদ’ এই সমাবেশের আয়োজন করে।

সমাবেশে অধ্যাপক জাফর ইকবাল বলেন, এর আগে আপনাদের কর্মসূচিতে আমি কখনো আসিনি। কারণ, সবসময় বলা হয়, আমি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছি। রাজনীতি করছি। সবাই বলে, এই দম্পত্তি' চলে গেলেই ভালো। এত অপমান নিয়ে থাকা যায় না। একবার চলে যেতেও চেয়েছিলাম। কিন্তু শিক্ষার্থীরা এমন একটা নাটক তৈরি করলো, সে জন্য আর যাওয়া গেলো না।

তিনি বলেন, এসব কারণে আপনাদের দাবির প্রতি সমর্থন থাকলেও আমি আসতাম না। কিন্তু যখন শিক্ষকদের ওপর হামলা করা হলো তখন আর বসে থাকতে পারলাম না।

তিনি বলেন, আমি একমাত্র মানুষ যাকে বিএনপি, জামায়াত, জাতীয় পার্টি, হেফাজত, বাম সংগঠনগুলো একযোগে অপছন্দ করে। এখন আওয়ামী লীগও অপছন্দ করে।

এই শিক্ষাবিদ বলেন, আমি সবার কাছে ক্ষমা চাই, আমরা এখানে এমন কিছু ছাত্র সৃষ্টি করেছি, যাদেরকে ব্যবহার করা যায়, যারা শিক্ষকদের গায়ে হাত তোলে। এই ব্যর্থতার দায় আমার।

জনপ্রিয় এই লেখক বলেন, শরীরে আঘাত লাগলে সেরে যায়। শরীরের ব্যথা ভালো হয় কিন্তু মনের ব্যথা ভালো হয় না। আমাদের মনে আঘাত লেগেছে।

প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষকদের গায়ে হাত তোলা হয়। অথচ সবাই বসে বসে সে দৃশ্য দেখে। কেউ প্রতিবাদ করে না।

জাফর ইকবাল বলেন, আমার জীবনের সবচেয়ে সুবর্ণ সময় এখানে কাটিয়েছি। আমার জীবনের সবচেয়ে উৎপাদনশীল সময় এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কেটেছে। তাই যখন দেখি, বিশ্ববিদ্যালয়টা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে, তখন খুব কষ্ট লাগে। এখন বুড়ো হয়ে গেছি, আর সহ্য করতে পারি না।

উপাচার্য বিরোধী চলমান আন্দোলন নিয়ে জাফর ইকবাল বলেন, এটা বোকাদের আন্দোলন। এর মতো বোকাদের সমাবেশ আর নাই। ক্লাস পরীক্ষা সবকিছু ঠিকঠাক মতো নেওয়া হচ্ছে আবার আন্দোলনও হচ্ছে-এদেশে এভাবে কখনো দাবি আদায় হয় না। এমন অহিংস আন্দোলন কর্মসূচি দেখে মহাত্মা গান্ধিও লজ্জা পেতেন। অথচ এই আন্দোলন কর্মসূচির বিরুদ্ধেই ছাত্রলীগ লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে। শিক্ষকদের ওপর হামলা করা হয়েছে।

ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে সোমবার সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেন উপাচার্যবিরোধী আন্দোলনরত শিক্ষকরা। তবে সব বিভাগের পরীক্ষা কর্মবিরতির আওতামুক্ত ছিল। কর্মবিরতি শেষে তারা মিছিল ও সমাবেশ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যান্টিন থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সমাবেশে ‘মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদ’ এর নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক সৈয়দ সামসুল আলম, অধ্যাপক ইয়াসমিন হক, অধ্যাপক শরীফ মোহাম্মদ শরাফউদ্দিন, অধ্যাপক তুলসী কুমার দাস, অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম দিপু, আব্দুল্লাহ আল শোয়েব, এমদাদুল হক, মোস্তফা কামাল মাসুদ, আল আমিন রাব্বী, সৌরভ রায় প্রমুখ।

রোববার সকালে ভিসিবিরোধী আন্দোলন চলাকালে ব্যানার কেড়ে নিয়ে শিক্ষকদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ। রোববার সকাল আটটায় প্রশাসনিক ভবন ২ (উপাচার্য ভবন) এর সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রলীগের হামলায় অধ্যাপক মো. ইউনুছসহ কয়েকজন শিক্ষক আহত হন। লাঞ্ছিত হন অধ্যাপক ড. ইয়াসমীন হক।

নিউজবাংলাদেশ.কম/কেজেএইচ

পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট ধর্ষক: প্রধানমন্ত্রী করোনা ভাইরাসের কারণে হজে যাওয়া না হলে টাকা ফেরত: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী দাঙ্গা নয়, দিল্লিতে পরিকল্পিত গণহত্যা হয়েছে: মমতা ভারতের সম্মান তলিয়ে দিয়েছে মোদি সরকার: মমতা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে সুনামগঞ্জে এনামুল-রুপন ছয় দিনের রিমান্ডে পিরোজপুরে সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা চলতি বছরই তিস্তা চুক্তির সম্ভাবনা: শ্রিংলা ঢাকা উত্তরের নির্বাচন বাতিল চেয়ে তাবিথের মামলা খুলনায় ছাত্রলীগ নেতাকে পিটিয়ে হত্যা অভিনেতা গোলাম মুস্তাফার জন্মদিন সোমবার আদালতে টাউট-বাটপার শনাক্তের নির্দেশ পাওয়ার ট্রলিকে ধাক্কা দিয়ে বিকল রেলইঞ্জিন কলকাতা সফরে এসে প্রবল বিক্ষোভের মুখে অমিত শাহ রোবট চালাবে গাড়ি! ভিপি নূরকে হত্যার হুমকি দেয়ার পর দুঃখ প্রকাশ টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৭ জন নিহত রাখাইনপ্রদেশে সেনাদের গুলিতে শিশুসহ ৫ রোহিঙ্গা নিহত ইস্কাটনে ভবনে আগুন: মায়ের পর চলে গেলেন রুশদির বাবাও চট্টগ্রামে একটি বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২ দেশে প্রতিদিন যক্ষ্মায় মারা যায় ১৩০ জন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনাভাইরাস আতঙ্কে আয়ারল্যান্ডের স্কুল বন্ধ ঘোষণা বিশিষ্ট সুরকার সেলিম আশরাফ আর নেই মোদীকে অতিথি হিসেবে সর্বোচ্চ সম্মান দেওয়া হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মধুর যত জাদুকরী গুণ চিপসের প্যাকেটের ভিতর খেলনা নয়: হাইকোর্ট আমার গাড়িতেও অস্ত্র আছে কী না আমি জানি না: শামীম ওসমান ফ্র্যান্সেও করোনা, অনিশ্চিত কান চলচ্চিত্র উৎসব উপনির্বাচন: গাইবান্ধা-৩ আসনে প্রতীক বরাদ্দ গুজব ও গণপিটুনি রোধে হাইকোর্টের ৫ নির্দেশনা