artk

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মঙ্গলবার, অক্টোবার ১৫, ২০১৯ ১১:৫৭

পাকিস্তানের ‘গাঢ় ধূসর’ তালিকায় পড়ার সম্ভাবনা

media

সন্ত্রাসবাদে অর্থ জোগানো রুখতে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কড়া নজর রাখা এফএটিএফ পাকিস্তানকে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সময়সীমা দিলেও তা করতে অনেকটাই ব্যর্থ দেশটি। এর ফলে ওই দেশকে সন্ত্রাসবাদ রুখতে শেষ সতর্কতা দিয়ে ‘ডার্ক গ্রে’ বা ‘গাঢ় ধূসর’ (Grey List) তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে। এটাই ওই দেশকে কালো তালিকাভুক্ত করার আগে শেষ সতর্কবার্তা। ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (এফএটিএফ) এর চলমান পূর্ণাঙ্গ বৈঠকে উপস্থিত কর্মকর্তারা বলেন, যা ইঙ্গিত মিলছে সেই মতো, পাকিস্তানের সন্ত্রাস দমনে পর্যাপ্ত কাজ না করার কারণে অন্য সব সদস্য বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার সম্ভাবনা। কেন না ওই দেশটি সন্ত্রাসদমনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না করায় এফএটিএফ-এর রোষের মুখে পড়তে পারে, ২৭টি পদক্ষেপের মধ্যে মাত্র ছয়টি করেছে তারা। ১৮ অক্টোবর পাকিস্তানের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এফএটিএফের নিয়ম অনুসারে, ‘গ্রে’ এবং ‘ব্ল্যাক’ অর্থাৎ ‘ধূসর’ এবং ‘কালো’ তালিকার মধ্যবর্তী যে পর্যায় রয়েছে তা ‘ডার্ক গ্রে’ বা ‘গাঢ় ধূসর’ হিসাবে পরিচিত।

‘ডার্ক গ্রে’ বা ‘গাঢ় ধূসর’-এর অর্থ হলো ওই দেশটির প্রতি একটি কড়া সতর্কতা জারি করা, যাতে সংশ্লিষ্ট দেশটি উন্নতির শেষ সুযোগ পায়।

১৯৮৯ সালে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে নজর রাখার জন্যে এই সংস্থা এফএটিএফ প্রতিষ্ঠা করা হয়। এটি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদে মদত দিয়ে অর্থ জোগানো এবং সন্ত্রাস সংক্রান্ত অন্যান্য আশঙ্কার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়।

গত বছরের জুনে প্যারিসের এই নজরদারি সংস্থাটি পাকিস্তানকে গ্রে তালিকা অর্থাৎ ধূসর তালিকায় রাখে এবং ২০১৯ সালের অক্টোবরের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ রুখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার জন্যে ওই দেশকে সময় দেয়। সেইসঙ্গে এই সতর্কবার্তাও দেয়া হয় যে পাকিস্তান প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না করতে পারলে তারও ইরান এবং উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কালো তালিকাভুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে।

যদি প্রকৃতঅর্থেই ‘ধূসর তালিকা’ থেকে ‘গাঢ় ধূসর তালিকা’-র অন্তর্ভুক্ত হয় পাকিস্তান তাহলে ওই দেশের পক্ষে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে আর্থিক সহায়তা পাওয়া খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। ফলে পাকিস্তানের বর্তমান আর্থিক অবস্থা আরও অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। খবর এনডিটিভির।

চাঁদপুরে ৪ টি ইটভাটা গুড়িয়ে ৪৪ লাখ টাকা জরিমানা আদনান সামির নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন রাজা মুরাদের স্কাউটরাই জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণে নেতৃত্ব দেবে: রাষ্ট্রপতি চীনে ভাইরাস: শাহজালাল বিমানবন্দরে বিশেষ সতর্কতা বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম মানব ‘নিওন’ খান টোবকোর সত্বাধিকারী সহ ২ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট বাবার সাথে অভিমান কিশোরীর আত্মহত্যা ওয়েট অ্যান্ড সি: সাঈদ খোকনের ব্যাপারে দুদক চেয়ারম্যান আগামীতে আইসিসির সব আয়োজনে বিড করবে বাংলাদেশ: পাপন যশোরে ৯৪টি সোনার বারসহ ৩ যুবক আটক ১৯ সদস্যের প্রাথমিক টেস্ট দল ঘোষণা পাকিস্তানের পুঁজিবাজারে সূচক উত্থান ৯ মাসে যানজট নিরসন করতে দেখিনি, ৩ মাসে কি করবেন: আতিকুলকে তাবিথ নির্বাচনকে বিএনপি তাদের নেত্রীকে মুক্ত করার আন্দোলন মনে করছে: তাপস ইনিংস ব্যবধানে হারের আগে মহারাজের লড়াই দলের প্রয়োজনে জ্বলে উঠতে প্রস্তুত শান্ত সিঙ্গেল ডিজিটে সুদের ঋণ হলে বিনিয়োগ বাড়বে: ডিসিসিআই সভাপতি যুব বিশ্বকাপ: অচেনা স্কটল্যান্ডকেও হারাতে মরিয়া যুবটাইগাররা ব্রিজে ছবি তুলতে গিয়ে ধসে পড়ে নিহত ৯ আচরণবিধি বিধি লঙ্ঘন ঠেকানো না হলে জনগণের আস্থার সঙ্কট হবে: মাহবুব ইনজামাম-ধোনিকে টপকে গেলেন কোহলি লিফট দুর্ঘটনায় করণীয় দেশে ভোটার ১০ কোটি ৯৬ লাখ ৬ হাজার ১৮৭ খুলনায় যুবককে হত্যার দায়ে ৬ জনের যাবজ্জীবন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবে: মার্কিন রাষ্ট্রদূত আরও ১৪ জেলার শিক্ষক নিয়োগ হাইকোর্টে স্থগিত বিজেপির নতুন সভাপতি হলেন জেপি নাড্ডা শেখ হাসিনার জনসভায় গণহত্যার মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড বাংলাদেশি অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে প্রবাসীদের মানববন্ধন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারকে সহায়তা দিবে চীন