artk
৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৯:৩৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম

দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদকের ২৩ সুপারিশ

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৯১৮ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ০৮ নভেম্বর ২০১৮


দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদকের ২৩ সুপারিশ - অর্থনীতি

আয়কর বিভাগের দুর্নীতি প্রতিরোধে করণীয় বিষয়ে ২৩ দফা সুনির্দিষ্ট সুপারিশের একটি পত্র মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব বরাবর পাঠিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক)। ওই পত্রে দুর্নীতির কারণ হিসেবে ১৩ উৎস দেখানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুদকের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ বিষয়টি জানিয়েছেন।

এর আগে আয়কর বিভাগের দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদকের পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলীর নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের প্রাতিষ্ঠানিক টিমের রিপোর্ট অনুমোদন করেছে দুদক।

দুর্নীতি প্রতিরোধে ২৩ দফা সুপারিশমালা- দেশের আর্থিকভাবে সামর্থবান সকল নাগরিক যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র রয়েছে তাদের প্রত্যেকের জন্য করদাতা সনাক্তকরণ নম্বর গ্রহণপূর্বক আয়কর রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করা; সৎ ও কর্তব্যনিষ্ঠ টিম এর মাধ্যমে কর বিভাগের জন্য এ যাবৎ প্রস্তুতকৃত উপরিউক্ত অটোমেশন মডিউলগুলো পর্যালোচনা করে এগুলোকে হালনাগাদ করা এবং একইসাথে ইপ্সিত লক্ষ্য অর্জনে ব্যর্থ সফটওয়্যারগুলো বাতিল করে দেশীয় সফটওয়্যার ডেভেলপারদের মাধ্যমে চাহিদা অনুযায়ী নতুন সফটওয়্যার প্রস্তুত করার ব্যবস্থা নেয়া; উপরিউক্ত বর্ণনা অনুযায়ী ই-টেক্স সিস্টেমকে পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করে তা কার্যকর করা, একই সঙ্গে এর সাথে সম্পৃক্ত কল সেন্টার এবং ট্যাক্স পেয়ার সার্ভিস সেন্টার প্রস্তুত করা; উৎসে কর ব্যবস্থাপনাকে জরুরি ভিত্তিতে অটোমেশনের আওতায় আনা এবং এর জন্য একটি পৃথক প্রশাসনিক কাঠামো সৃজন করা; অঞ্চলের কাজের সাথে সংগতি রেখে TACTS (Tax Administration Capacity and Taxpayer Services) প্রকল্পের আওতায় TIRS পদ্ধতিতে বিআরটিএ, সিটি কর্পোরেশন, ভূমি প্রশাসন ইত্যাদি সংস্থার সাথে অনলাইনে সংযুক্তির মাধ্যমে তাদের ডাটাবেজ ব্যবহার করে নতুন করদাতা সনাক্ত করার প্রক্রিয়া প্রবর্তন করা হয়। অথচ এই পদ্ধতিটি প্রবর্তনের পর ব্যবহার না করার জন্য এর সুফল প্রাপ্তি থেকে আয়কর বিভাগ বঞ্চিত হয়। কেন্দ্রীয় জরিপ অঞ্চলকে একটি কর নির্ধারণী কর অঞ্চল হিসেবে ব্যবহার না করে এর উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে সুস্পষ্ট নিদের্শনা এবং পরিপালনের নীতিমালা প্রবর্তনের মাধ্যমে TIRS Software-টি যুগোপযোগী করে ব্যবহারযোগ্য নতুন করদাতা সনাক্তকরণের কাজে লাগানো; বাংলাদেশে বিভিন্ন বহুজাতিক কোম্পানির মাধ্যমে ও অন্যান্য উপায়ে Profit Shifting, Transfer Pricing এবং বিভিন্ন Tax Avoidance এর মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব ফাঁকি হচ্ছে মনে হয়েছে। আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর অধ্যায় XIA-তে Transfer Pricing বিধানাবলী ২০১২ সালে সংযোজিত হয়। পরবর্তীতে Transfer Pricing Officer (TPO) নিয়োগ এবং তাঁদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হয়। অথচ Transfer Pricing এর বিধানাবলী বলবৎ হওয়ার পরও একটিও Transfer Pricing Case অডিট হয়নি বলে জানা যায়। এতে বিপুল রাজস্ব ফাঁকির সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে একই সাথে একটি শৃঙ্খলার সংস্কৃতি প্রবর্তিত হতে পারেনি। বিষয়টি বাস্তবতার নিরিখে পর্যালোচনা করে এক্ষেত্রে প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। Transfer Pricing এর কার্যক্রম একটি কর্তব্যনিষ্ঠ ও সৎ টিমের তত্ত্বাবধানে অবিলম্বে চালু করার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ; আয়কর অনুবিভাগের অধীন কর পরিদর্শন পরিদপ্তরটি কর প্রশাসনের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণে watchdog হিসেবে কাজ করার কথা। অন্যান্য দেশের কর ব্যবস্থাপনায় এই পরিদপ্তরটি অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা ও দুর্নীতি রোধে অত্যন্ত বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে। Internal Audit এর মাধ্যমে বিভিন্ন কর অঞ্চলের অধীনস্থ দপ্তরসমূহের কার্যক্রম তদারকি হচ্ছে এই পরিদপ্তরের মূল কাজ। কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব নির্ধারিত সময়ে আইনগতভাবে পালন করছেন কিনা তা দেখাই এই পরিদপ্তরের কাজ। কাজের মানের উপর মতামত দিয়ে বিভিন্ন প্রতিকারমূলক কার্যক্রম গ্রহণ এবং প্রয়োজনে শৃঙ্খলামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার এখতিয়ার এই পরিদপ্তরের রয়েছে। কর প্রশাসনের এই দপ্তরের কাজের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন প্রয়োজন। এই পরিদপ্তরকে একটি সুস্পষ্ট নীতিমালার মাধ্যমে একটি শক্তিশালী ও কার্যকরী দপ্তরে পরিণত করার লক্ষ্যে অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে প্রতিপালন নিশ্চিতকরণ; আয়কর বিভাগের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সেলসহ প্রতিটি দপ্তরের নথি নিষ্পত্তির জন্য সুনির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ; কর্মকর্তা/কর্মচারীদের খেয়ালখুশীমত করদাতাদের কর মামলা অডিটের জন্য নির্বাচনের সুযোগ বন্ধ করণ এবং প্রচলিত নিরীক্ষার পরিবর্তে কম্পিউটারের সহায়তায় ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির আওতায় বস্তুনিষ্ঠ নিরীক্ষার প্রবর্তন; বিদ্যমান আয়কর অধ্যাদেশে বিভিন্ন দুর্বলতা রয়েছে। এর অন্যতম হচ্ছে কর কর্তৃপক্ষকে প্রদত্ত অতিরিক্ত স্বেচ্ছামাফিক ক্ষমতা, ব্যাপক কর প্রণোদনা ও কর মওকুফ, দুর্বল বাস্তবায়নের কারণে দুর্বল প্রতিপালন, এক কর ব্যবস্থার সাথে অন্য কর ব্যবস্থার এবং তৃতীয় কোন সংস্থার সাথে সীমিত তথ্য বিনিময়, করদাতার আয় নির্বিশেষে চূড়ান্ত কর হিসাবে ধারণাগত করের উপর অধিক নির্ভরশীলতা ইত্যাদি। বিদ্যমান কর আইনের জটিলতাসমূহ নিরসনপূর্বক নতুন যুগোপযোগী আইন প্রণয়ন; জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবসাইট আরো Interactive এবং করদাতা বান্ধব করার লক্ষ্যে রাজস্ব বোর্ড ডিজিটাল পদ্ধতিতে কেন্দ্রীয় অ্যাকাউন্টস, কেন্দ্রীয়ভাবে রিটার্ন গ্রহণ ও প্রসেসিং, কেন্দ্রীয়ভাবে রেজিস্ট্রেশন প্রদান ইত্যাদির উন্নয়ন ও ডাটা ম্যানেজমেন্টকে আধুনিকায়নের মাধ্যমে করদাতাগণকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কর প্রদান বা Compliance এর বিষয়ে আরো বেশি সুযোগ সৃষ্টি করা; আয়কর বিভাগের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে আয়কর প্রদানকারী কোন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের পরামর্শক হিসেবে কাজ করার মত গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। আয়কর কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ কর্তৃক আইন, বিধি ও নিয়মবহির্ভূতভাবে আয়কর প্রদানকারী কোন ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের পরামর্শক হিসেবে কাজ করা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করার জন্য কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ এবং কোন কর্মচারীর বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর বিরুদ্ধে চাকরি বিধিমালা অনুসারে সর্বোচ্চ শাস্তি আরোপ; আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ অনুযায়ী কর নির্ধারণ কিংবা অডিটের জন্য নথি বাছাইয়ের ক্ষেত্রে উর্ধ্বতন কর কর্মকর্তাদের কোন ক্ষমতা দেয়া হয়নি। প্রশাসনিক আদেশের মাধ্যমে শুধু তদারকির দায়িত্ব দেয়া আছে। তদ্সত্ত্বেও আইন বহির্ভূতভাবে কর্মকর্তাগণ তদারকির ক্ষমতা ব্যবহার করে করদাতাদের আয়কর নথি নিজেদের নিকট এনে অনুমোদনের নামে কর প্রদানকারীদের হয়রানি করেন মর্মে অভিযোগ রয়েছে। যুগ্ম কর কমিশনার বা কর কমিশনারগণ কর্তৃক আইন বহির্ভূত অনুমোদন প্রক্রিয়া বন্ধকরণ এবং এর অপব্যবহার রোধকল্পে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড হতে একটি সুস্পষ্ট নির্দেশনা জারি করা; আয়কর বিভাগে চলমান অটোমেশন প্রক্রিয়া দ্বারা কর সার্কেলে ব্যবহৃত অফিস প্রণালী অনুযায়ী রেজিস্টার সংরক্ষণ এবং তা ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে হালনাগাদ করতে হবে। এতে করে রেজিস্টার টেম্পারিংয়ের সুযোগ রহিত হবে এবং এ সংক্রান্ত দুর্নীতি বহুলাংশে হ্রাস পাবে। পূর্ণাঙ্গ অটোমেশন চালু হওয়ার পূর্বে সনাতন পদ্ধতিতে রেজিস্টার সংরক্ষণের যে পদ্ধতি বিদ্যমান রয়েছে তা যথাযথভাবে অনুসরণ এবং পরিদর্শী কর্মকর্তাগণ নিয়মিত ভিত্তিতে তাদের অধীন সার্কেলসমূহে এ রেজিস্টারসমূহ সঠিকভাবে হালনাগাদ হচ্ছে কি না তা পরীক্ষা করা; বিদ্যমান আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর ১৯ বিবিবিবিবি, ১৯ই ধারায় বর্ণিত অপ্রদর্শিত বিনিয়োগ ও অর্থ ধারণকারীকে যে সুবিধা প্রদান করা হয়েছে তা সংশোধনীর মাধ্যমে নিরুৎসাহিত করা। এ ধারাটি সংশোধিত না হলে জনগণের মাঝে অবৈধ বা অপ্রদর্শিত অর্থ অর্জনের প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া উপরোল্লিখিত ধারাসহ আয়কর অধ্যাদেশে বিদ্যমান অন্য যে সকল ধারা দুর্নীতিকে উৎসাহিত করে তা না রাখার বিষয়টি বিবেচনা করা এবং যতক্ষণ পর্যন্ত এ ধারাসমূহ বাতিল না হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত ১৯বিবিবিবিবি, ১৯ই(৩)(ডি) তে বর্ণিত আয়ের উৎসের বৈধতার বিধান যথাযথভাবে অনুসরণের নির্দেশনা প্রদান; আয়কর বিভাগের কর পরিদর্শক কর্তৃক তদন্ত কার্যক্রম সম্পর্কে জনমনে নেতিবাচক ধারণা রয়েছে। কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে পরিদর্শন না করে অথবা নামমাত্র পরিদর্শনপূর্বক তদন্ত প্রতিবেদন প্রদানের অভিযোগ রয়েছে। পরিদর্শন কার্যক্রম জোরদার করতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক কর পরিদর্শক নিয়োগ প্রদান, কর পরিদর্শক কর্তৃক প্রদত্ত রিপোর্ট পুন: নিরীক্ষা করার ব্যবস্থা গ্রহণ এবং উপ কর কমিশনার কর্তৃক সে সকল রিপোর্টের সত্যতা দৈব চয়ন (Random Sampling) ভিত্তিতে যাচাই করার ব্যবস্থা গ্রহণ, কর পরিদর্শকের তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের পন্থা এবং এ সংক্রান্ত অনুসৃত বিধি-বিধান, মাঠ পর্যায়ে করদাতাদের সাথে Rules of Engagement ইত্যাদি বর্ণনা করে একটি Tax Inspector’s Manual প্রণয়ন; আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ এর ১৭৪ ধারায় বর্ণিত সকল বৈধ প্রতিনিধি (চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট, কস্ট এন্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টেন্ট, অ্যাডভোকেট প্রমুখ) জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে নিবন্ধিত হতে হবে। এতদুদ্দেশ্যে, বর্ণিত সকল বৈধ প্রতিনিধির বিশদ তথ্য সম্বলিত একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ তথ্যভান্ডার (Automated Database) এবং Web Portal তৈরী করা, এছাড়া তাদের কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণে একটি সুস্পষ্ট আচরণ বিধিমালা (Code of Conduct) তৈরী, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে কোন প্রকার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট পেশাজীবীর বিরুদ্ধে জরিমানা আরোপ এবং Disciplinary Action সহ নির্দিষ্ট সময়ের জন্য নিবন্ধন স্থগিত/সম্পূর্ণরূপে বাতিল করার বিধান প্রবর্তন; সিএ ফার্ম কর্তৃক করদাতা প্রতিষ্ঠানের চাহিদা মোতাবেক নিরীক্ষিত হিসাব বিবরণী প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে নিরীক্ষাকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের (সিএ ফার্ম) নিরীক্ষা প্রতিবেদন পর্যালোচনাপূর্বক তাদের উপর মনিটরিং কার্যক্রম জোরদারকরণ, নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক করদাতা প্রতিষ্ঠানের যোগসাজশে কোন অডিট রিপোর্ট জালিয়াতি বা ক্রটি ধরা পড়লে তাৎক্ষণিকভাবে তা নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থাকে অবহিতকরণ এবং আয়কর অধ্যাদেশ, ১৯৮৪ মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণসহ অডিট ফার্মের নিবন্ধন বাতিলের কার্যক্রম গ্রহণ; সার্বজনীন স্ব-নির্ধারণী রিটার্নে প্রদর্শিত প্রারম্ভিক মূলধন বা অতীত সঞ্চয়ের এবং অস্তিত্বহীন ব্যবসায়িক আয়ের যথার্থতা যাচাইয়ের জন্য সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি প্রণয়ন এবং কোন সুনির্দিষ্ট উৎস না থাকলে আয়কর আইন অনুযায়ী অন্যান্য উৎসের আয় হিসেবে কর নির্ধারণের জন্য নির্দেশনা প্রদান; কর কমিশনার কর্তৃক সার্কেল কর্মকর্তা পদায়নের ক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট বদলি/ পদায়ন নীতিমালা (criteria) প্রণয়ন; করমুক্ত/ স্বল্প কর হারের আয় যথা: মৎস্য আয়, পোল্ট্রি আয়, ডেইরি ফার্ম আয় ইত্যাদির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট করদাতাকে বর্ণিত নতুন আয়ের উৎসে বিনিয়োগের প্রারম্ভে সার্কেল কর্মকর্তার নিকট উপযুক্ত প্রমাণাদিসহ (লীজের চুক্তিনামা/ জমির দলিল, মৎস্য কর্মকর্তার প্রত্যয়নপত্র) ঘোষণা প্রদান নিশ্চিতকরণ, ওই সার্কেল হতে এ সংক্রান্ত প্রত্যয়ন সংগ্রহ, আয়কর রিটার্নে প্রদর্শিত আয়ের সমর্থনে বর্ণিত প্রত্যয়নপত্রসহ আনুষঙ্গিক প্রমাণাদি দাখিল এবং হ্রাসকৃত হারে করমুক্ত আয়ের যথেচ্ছা ব্যবহার রোধকল্পে ২৫ লাখ টাকার অধিক আয়ের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ কর হার (৩০%) নির্ধারণ; রাজস্ব সংলাপ আয়োজন খরচ, হালখাতা আয়োজনসহ করদাতা জরিপ ও স্পট অ্যাসেসমেন্ট প্রোগ্রামের খরচ বাজেট মঞ্জুরির মাধ্যমে সম্পন্নকরণ, বছরব্যাপী আয়কর মেলা, আয়কর দিবস, রাজস্ব হালখাতা এবং অন্যান্য অনুষ্ঠানসমূহে জনসম্পৃক্ততা নিশ্চিতকল্পে সরকারি ক্রয় নীতিমালা অনুসরণ করে একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কেন্দ্রীয়ভাবে বাস্তবায়ন করার ব্যবস্থা গ্রহণ; উচ্চ আদালতে অনিষ্পন্ন রাজস্ব এবং আয়কর মামলাসমূহ নিস্পত্তির লক্ষ্যে প্রবর্তিত বিকল্প বিরোধ নিস্পত্তি ব্যবস্থাকে আরো শক্তিশালী, যুগোপযোগী এবং কার্যকর করার জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ নীতিমালা প্রণয়ন।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএজেড/এএইচকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য