artk
৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৯:১৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম

সংলাপ চেয়ে সরকারকে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২২১৭ ঘণ্টা, রোববার ২১ অক্টোবর ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ০৯৩৭ ঘণ্টা, সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮


সংলাপ চেয়ে সরকারকে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট - রাজনীতি

জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে সংলাপসহ ৭ দফা জানিয়ে সরকারকে চিঠি দেবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। রোববার এ কথা জানিয়েছেন জেএসডির সভাপতি আসম আব্দুর রব।

রোববার বিকেলে ঐক্য ফ্রন্টের নেতাদের এক বৈঠকের পর তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, “আমরা যারা নির্বাচন করতে চাই তাদের সাথে আলাপ-আলোচনা না করে যেন তফসিল ঘোষণা না করা হয়, সে কথাই আমরা জানাব। সেজন্য আমাদের ৭ দফা দাবি সরকার ও সরকারি দলকে চিঠি দিয়ে জানাবো। একইভাবে আমাদের দাবি নিয়ে নির্বাচন কমিশনেও আমাদের একটি প্রতিনিধিদল যাবে।”

রাজধানীর মতিঝিলে গণফোরামের কার্যালয়ে বিকাল ৫টায় শুরু হয়ে সাড়ে সাতটায় শেষ হয়।

গত ১৩ অক্টোবর ড. কামাল হোসেন ৭ দফা দাবি ও ১১ দফা লক্ষ্য নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ঘোষণা দেন।

বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমেদ, বরকতউল্লাহ বুলু, মনিরুল হক চৌধুরী, হাবিবুর রহমান হাবিব, মোহাম্মদ শাহজাহান, জেএসডির আ স ম আবদুর রব, আবদুল মালেক রতন, শহীদউদ্দিন মাহমুদ স্বপন, গণফোরামের মোস্তফা মহসিন মন্টু, সুব্রত চৌধুরী, জগলুল হায়দার, মোকাব্বির খান, শফিক উল্লাহ, মোশতাক আহমেদ, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সুলতান মো. মনসুর আহমেদ, আ ব ম মোস্তফা আমিন, নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না, শহীদুল্লাহ কায়সার, মমিনুল ইসলাম, জাহেদুর রহমান নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে গণস্বাস্থ্য সংস্থার ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীও ছিলেন। গণফোরামের কার্যালয়ে এই সভায় সভাপতিত্ব করেন দলের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু।

তবে ওই চিঠি কবে দেয়া হবে, সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি রব।

তিনি জানান, আগামী ২৪ অক্টোবর সিলেটে রেজিস্ট্রি মাঠে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোগে জনসভা হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন ফ্রন্টের শীর্ষ নেতা সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন ও প্রধান বক্তা থাকবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এই জনসভায় সভাপতিত্ব করবেন সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

আ স ম রব বলেন, “আমরা বলেছি আমরা যেকোনো উপায়ে সিলেটে যাবোই। আমাদের যাওয়ার ঘোষণায় সরকার বুঝেছে -বাধা দিলে বাঁধবে লড়াই, এই লড়াইয়ে জিততে হবে। আমরা কোনো চাপের কাছে, কোনো স্বৈরাচারী আচরণের কাছে মাথানত করবো না। এটা বুঝতে পেরে সরকার সিলেটের জনসভার এই অনুমতি দিয়েছে।”

তিনি জানান, সুশীল সমাজ-বুদ্ধিজীবী-পেশাজীবীদের সাথে মতবিনিময় হবে ২৬ অক্টোবর বিকাল তিনটায় হোটেল পূর্বানীতে। এছাড়া শিক্ষকদের সাথেও মতবিনিময় করা হবে।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এনডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য