artk
বুধবার, জানুয়ারি ২৩, ২০১৯ ৯:১২   |  ১০,মাঘ ১৪২৫

মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান

সংবাদ ডেস্ক

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৭, ২০১৯ ৮:৫৫

এসএস স্টিলের শেয়ারের দর বেড়েছে চারশ শতাংশ

media

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এসএস স্টিলের লেনদেনের প্রথমদিনেই শেয়ারটির দর বেড়েছে চারশত শতাংশ। লেনদেন শুরুর পরদিন বিধায় শেয়ারটির দর বাড়া-কমার কোন সীমা নেই। একারনে এসএস স্টিলের শেয়ার দর উর্ধ্বমুখী ছিল বলে জানান পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এসএস স্টিলের লেনদেনের প্রথমদিনেই শেয়ারটির দর বেড়েছে চারশত শতাংশ। লেনদেন শুরুর দিন বিধায় শেয়ারটির দর বাড়া-কমার কোন সীমা নেই। এ কারণে এসএস স্টিলের শেয়ার দর উর্ধ্বমুখী ছিল বলে জানান পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা।

তারা বলেন, কোন কোম্পানি পুঁজিবাজারে নতুন লেনদেন করলে তাকে নিয়ে কয়েকটি চক্র ফায়দা হাসিল লক্ষে ইচ্ছা মতো খেলতে চায়। কারণ লেনদেনের প্রথমে শেয়ার দর ওঠার কোন সার্কিট ব্রেকার থাকে না। তাই পরিকল্পনা করে পারস্পরিক যোগসাজশে প্রথমদিনেই শেয়ার দর বাড়াচ্ছে ওইসব চক্র। এক্ষেত্রে অনেক ব্রোকারেজ হাউসের সংশ্নিষ্টতার তথ্য মিলেছে। 

দেখা যায়, কারসাজি চক্র যেসব নতুন কোম্পানির শেয়ারের দর বাড়াতে চায়, প্রথমদিনই আগ্রাসীভাবে তারা সেই শেয়ার কিনতে থাকে। এক পর্যায়ে শেয়ারটির দর বাড়িয়ে অতিমূল্যায়িত করে ফেলে। পরদিন লেনদেন শুরুর মুহূর্তেই পুনরায় ওই দরেই শেয়ার কেনা শুরু করে। এমনকি সর্বোচ্চ বিপুল পরিমাণ ক্রয় আদেশ দিয়ে রাখে। এভাবেই কোম্পানির শেয়ার দর আকাশকুশুম করে রাখে। ফলে ওই শেয়ার অতিমূল্যায়িত দরে কিনে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বিপদে পরে। তাই সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অতিমূল্যায়িত দরে শেয়ার কেনার থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দেন সংশ্লিষ্টরা।

ডিএসইর সূত্রে জানা যায়, এসএস স্টিলের ১০ টাকা দরের শেয়ার প্রথম দিনের লেনদেন শেষে দাঁড়িয়েছে ৫০.১০ টাকা। এক্ষেত্রে একদিনেই ওই শেয়ারের দর বেড়েছে ৪০.১০ টাকা বা ৪০১ শতাংশ। প্রথম দিনেই কোম্পানিটির শেয়ারের দর ৪৪ টাকা থেকে ৫৫ টাকায় লেনদেন হয়। ওইদিন কোম্পানিটির ৭৫ লাখ ৩৭ হাজার ৬২৫ শেয়ার লেনদেন হয়। এসব শেয়ার হাত বদল ১৫ হাজার ২৯৮ বার। এর মাধ্যমে ৩৮ কোটি ১৭ লাখ ৭০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এর আগে প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা এসএস স্টিলের শেয়ার লেনদেন আজ শেয়ারবাজারে শুরু হয়। ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) কোম্পানিটির ট্রেডিং কোড ‘SSSTEEL’ এবং কোম্পানি কোড ১৩২৪৫। অপরদিক চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) কোম্পানিটির স্ক্রিপ কোড ‘SSSTEEL’ এবং স্ক্রিপ আইডি ১৬০৩৮।

এসএস স্টিল শেয়ারবাজারে ২ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ২৫ কোটি টাকা উত্তোলনের করেছে। কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের দর ধরা হয়েছে ১০ টাকা। উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয় ও স্থাপন, ভবন নির্মাণ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পাওয়া এসএস স্টিলের আইপিও আবেদনকারীদের মধ্যে শেয়ার বরাদ্দ দেয়ার জন্য লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ২৯ নভেম্বর সকাল সাড়ে ১০টায়। এর আগে গত ২৮ অক্টোবর থেকে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন গ্রহণ করা হয়। গত ১৭ জুলাই বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন করে। আইপিওতে কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে সিটিজেন সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। 

৩০ জুন ২০১৭ পর্যন্ত আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী কোম্পানিটির পুনঃমূল্যায়ন ছাড়া নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ও পুনঃমূল্যায়নসহ নিট সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ১৫.৩৫ টাকা। ২০১৭ অর্থবছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.২০ টাকা। ভারিত গড় হারে ইপিএস হয়েছে ০.৮২ টাকা।