artk
বুধবার, জানুয়ারি ২৩, ২০১৯ ৯:০৫   |  ১০,মাঘ ১৪২৫

লাইফস্টাইল ডেস্ক

সংবাদ ডেস্ক

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৭, ২০১৯ ১০:০৬

‘গায়েহলুদ’ এলো কীভাবে

media
বিয়ের সময় বর-কনের শরীর ভালো রাখার জন্য, খুচখাচ অসুখ বা সংক্রমণ থেকে বাঁচাতে হলুদ মাখানোর রীতি আছে। এই হলুদ মাখাকেই আরো বিশেষভাবে মনে রাখতে ও সকলে মিলে আনন্দ করতেই ‘গায়েহলুদকে’ একটি অনুষ্ঠানের তকমা দেয়া হয়।

বিয়ে মানেই জমিয়ে খাওয়াদাওয়া, সাজগোজ আর আনুষ্ঠানিক আচার-ব্যবহারের একটি উৎসব। হিন্দু-মুসলমান দুই ধর্ম সম্প্রদায়েই গায়ে হলুদ প্রচলিত। মুসলমান বিয়েতেও এর চল থাকলেও হিন্দু বিয়ের এটি অন্যতম একটি রীতি। 

জানেন কি, বিয়ের অনুষ্ঠানে গাত্রহরিদ্রা বা গায়েহলুদের প্রচলন কেন হল?

হিন্দু বিয়ের রীতি অনুযায়ী, বিয়ের দিন সকালে হলুদ মেখে স্নান করেন বর-কনে। পুরাণেও হিন্দু বিয়ের রীতিতে হলুদের চল ছিল। প্রাকৃতিক এই মসলায় কী এমন গুণ আছে যে বিয়ের সময় হলুদ মাখার চল শুরু হলো?

বিয়েতে হলুদ ব্যবহারের কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা কয়েকটি বিশেষ দিকের কথা বলে থাকেন। পুরাণ ও শাস্ত্রবিদ পূর্বা সেনগুপ্তের মতে, “আমাদের বর্তমান বিয়ের রীতি অনেকটাই মোঘল যুগ থেকে চলে আসছে। আগে নিয়ম ছিল সূচের ছোঁয়া নেই এমন বস্ত্র পরেই বিয়ে হবে। পরে নূরজাহান জরির সুতের বেনারসির চল শুরু করেন। তা দেখতে এতই সুন্দর ও আকর্ষণীয় ছিল যে, বিয়ের পোশাক হিসাবে হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষ এই পোশাক পরা হতো। হলুদের ব্যবহারের চল কিন্তু বৈদিক আচার নয়। বরং বেশ কিছু উপকারী দিকের কথা ভেবেই হলুদকে প্রাচীন কাল থেকেই বিবাহের অন্যতম উপকরণ হিসেবে মেনে চলেছি আমরা।”

কী কী সে সব কারণ?

বিশেষজ্ঞদের মতে, কাঁচা হলুদ প্রাকৃতিকভাবে জীবাণুনাশক। হলুদ শরীরকে পরিষ্কার করে ও সংক্রমণ ঠেকায়। শরীরে তাপের ভারসাম্য রাখে ও শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে সাহায্য করে। বিয়ের দিন এমনিই অনেক কাজের চাপ থাকে। হিন্দু রীতিতে উপোস করেন অনেকেই। তাই বিয়ের সময় বর-কনের শরীর ভালো রাখার জন্য, খুচখাচ অসুখ বা সংক্রমণ থেকে বাঁচাতে হলুদ মাখানোর রীতি আছে। এই হলুদ মাখাকেই আরো বিশেষভাবে মনে রাখতে ও সকলে মিলে আনন্দ করতেই ‘গায়েহলুদকে’ একটি অনুষ্ঠানের তকমা দেয়া হয়।

ভারতীয় রীতিতে হলুদকে শুভ ও মঙ্গলদায়ক বলেও মানা হয়। সেটাও এই হলুদ ব্যবহারের আর এক কারণ।

এ ছাড়া হলুদ ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বাড়ায়। সঙ্গে ত্বকের যে কোনোও সমস্যাকে ঢেকে রাখতে পারে এই হলুদ। ভারতীয় রূপচর্চায় প্রাকৃতিক উপাদানের অন্যতম ছিল এই হলুদ। হলুদের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ক্ষমতা যে কোনো ত্বকের জন্যই উপকারী। চড়া মেক আপেও ত্বকের ক্ষতি করতে দেয় না। বিয়েতে সাজগোজ এক অনন্য অঙ্গ। তাই তার আগে হলুদ মেখে রাখলে মেক আপের ক্ষতি থেকে যেমন ত্বককে বাঁচায়, তেমনই হলুদ মাখার ফলে ত্বক উজ্জ্বল দেখায়।

মূলত এই কারণগুলোর জন্যই হলুদকে বিয়ের অন্যতম উপাদান হিসেবে ধরা হয়। রীতি ও ধর্ম অনুযায়ী তার প্রয়োগ ও নিয়ম ও আচার আলাদা করা হয়েছে।