artk
৮ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, রোববার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম

রূপগঞ্জে নিহত ৩ যুবককে তুলে নেয়া হয়েছিল!

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৭৫৫ ঘণ্টা, শুক্রবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১০১৯ ঘণ্টা, শনিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮


রূপগঞ্জে নিহত ৩ যুবককে তুলে নেয়া হয়েছিল! - জাতীয়

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার পূর্বাচলে নিহত তিন যুবককে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্বজনদের দাবি, গত বুধবার পুলিশের গোয়েন্দা শাখা ডিবির সদস্য পরিচয়ে ওই তিনজনকে যাত্রীবাহী বাস থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর নিখোঁজ ছিলেন তারা।

শুক্রবার সকালে উপজেলার পূর্বাচল উপশহরের আলমপুরের ১১ নম্বর ব্রিজ এলাকা থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনজনই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা।

নিহতরা হলেন- রাজধানীর মহাখালীর শহীদুল্লাহর ছেলে মো. সোহাগ (৩২), মুগদা এলাকার মো. আবদুল মান্নানের ছেলে শিমুল (৩০) ও একই এলাকার আবদুল ওয়াহাব মিয়ার ছেলে নূর হোসেন ওরফে বাবু (৩০)।

এর মধ্যে শিমুল ও বাবু সম্পর্কে ভায়রা ভাই।

রূপগঞ্জ থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, সকালে আলমপুরা ব্রিজের নিচে এলাকাবাসী গুলিবিদ্ধ লাশ তিনটি পড়ে থাকতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশগুলো উদ্ধার করেন।

তিনি বলেন, প্রাথমিক সুরতহাল পরীক্ষা করা হয়েছে। দুজনের শরীরের পেছনে গুলির চিহ্ন রয়েছে। আর একজনের বুকে গুলি লেগেছে। তাদের পরনে জিন্স-প্যান্ট ও টি-শার্ট রয়েছে।

নিহত একজনের পকেট থেকে ৬৫টি ইয়াবা বড়ি জব্দ করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

খবর পেয়ে নিহত ব্যক্তিদের স্বজনেরা রূপগঞ্জ থানায় ছুটে আসেন। তারা লাশ সনাক্ত করেন।

নিহত সোহাগের ভাই মো. শাওন জানান, গত বুধবার বেড়াতে গিয়ে তার বড় ভাই নিখোঁজ হন। এর পর থেকে তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

তার ভাই ফাস্ট ফুড বার্গার ও স্যাটেলাইট ক্যাবল নেটওয়ার্কের ব্যবসা করতেন বলে তিনি জানান।

নিহত শিমুলের স্ত্রী আয়েশা আক্তার আন্নি জানান, গত বুধবার বেড়াতে গিয়ে ফেরার পথে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় যাত্রীবাহী বাস থেকে তার স্বামীসহ অন্যদের সাদা পোশাকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নেয়া হয়। এরপর থেকে শিমুল নিখোঁজ ছিলেন।

তার স্বামী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ছিলেন বলে জানান তিনি। তবে নিহত যুবকদের বিরুদ্ধে থানায় কোনো মামলা রয়েছে কিনা, তা জানাতে পারেননি ওসি মনিরুজ্জামান।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসএস/এসডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত