artk
৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭:১৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম

আজাদুর রহমানের গুচ্ছ কবিতা

| নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২২১৭ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ৩০ আগস্ট ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২২১৭ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ৩০ আগস্ট ২০১৮


আজাদুর রহমানের গুচ্ছ কবিতা - শিল্প-সাহিত্য

১. আগুন এবং আমি

আগুন এসে বলবে আমায়
দুঃখ করি, চলো।
পোড়াবার আর বাকি নেই কিছু
নিজেরা পুড়ি, জ্বলো!

২. ইচ্ছে

বিরুদ্ধ সময়ে প্রজাপতি উড়ছে
তাকে কেউ বলেনি,
নিজেই প্রতিপক্ষের মত উড়ছে সে,
তাকে কেউ বলেনি।

৩. বাবা

বাবা, আপনি মরে গিয়ে ভালই করেছেন। এই টানাহ্যাচড়ার সময়ে আপনি থাকলে আরও একটা ঝামেলা বাড়ত। আমি বরং ফিরছি। দোজাহানের এক জাহান পার হচ্ছি। বেশ সময় লাগছে বাবা।

৪. পিরিতি

তুমি আমার মুড়ি,
আমি তোমার মুড়ির ঠোংগা।

৫. একমাত্র একা

একা এসেছি
একা যাব
একা থাকতে দিন
ডিস্টার্ব করবেন না
ঈশ্বরকে বলে দিব।

৬. তিনি

তিনি আমার ভিতরে ঢুকলেন,
আমি মানে সেই, সেই মানে আদম।
দেহ মানে মাটি, পাশে ছিলেন তিনি
রুহুর উছিলায় ফুঁতকারে প্রবিষ্ট তিনি
তিনি মানে সেই, সেই মানে আদম।

৭. মরতে এসেছি

পৃথিবীতে আমি মরতে এসেছি, যারা অমর হতে চান, তারা মেকাপ করুন, ঘরে গিয়ে চুমু চাট্রি খান, বাগুনে ঝোল টানুন, তেরসা নদী দেখলে আমার কাম জাগে, জন্ম এবং জন্মাতে ইচ্ছে করে। আমি স্রেফ মরতে এসেছি, পৃথিবীতে আমার আর কোন কাজ নেই

৮. যাত্রা বিরতি

ধরুন নাকে মুখে খাবারের পর আপনি তৃষ্ণা সহকারে সিগারেটে টান মারতে শুরু করেছেন, এমন সময় এলোমেলো নানান শব্দের ভিড়ে ক্ষীন কন্ঠে কোন মতে শুনতে পেলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহী চাপাই গামী ন্যাশনাল পরিবহনের সম্মানীত যাত্রীগণকে জানানো যাচ্ছে যে...... যাত্রা বিরতি শেষ...। ঘোষনা শেষ হবার আগেই আপনার বুকের মধ্যে হরিন চলার গতি অনুভব করলেন এবং সাথে সাথে আপনার তলপেটে মোচড় দিয়ে উঠল। কোন মতে পড়ি মরি করে যখন টয়লেট খুজে পেলেন, দেখলেন, হাতের কাছে কোনটাই খোলা নেই, যে টা আছে সেটায় কমোড নেই। কমোডের আশায় পরের টয়লেটে যাবার আগেই এক জন পুর্বের টাতে ঢুকে পড়ল। আপনি শেষ টয়লেটের সামনে আওয়াজ পেয়ে দাঁড়িয়ে গেলেন, একজন বেরিয়ে এলেন। কোন মতে হাফ ছেড়ে ভিতরে ঢুকলেন। তারপর ছিটকি বন্ধ করতে গিয়ে দেখলেন, ভিতরের ছিটকিনি নেই। বাইরে এলেন, দেখলেন,বাইরে ঠিকি ছিটকিনি আছে। আপনি তাতক্ষণিক আরেকটা ফাকা পেয়ে গেলেন এবং তীব্র গতিতে ঢুকে পড়লেন। এবং যথাসাধ্য তারাতারি করতে চাইলেন এবং প্রাথমিকভাবে সফলও হলেন কিন্তু সামান্য পরেই কোষ্ঠকাঠিন্যের মত ভিতর থেকে বিনা কারনে পর পর গেড়ো পড়তে লাগল। আপনি উপরে তাকালেন। দেখলেন, বিদ্যুৎ এর খোলা তার মাথা বরাবর ঝুলছে। ঠিক সেই মুহুর্তে পকেটের ফোন বেজে উঠল। আপনি কোন মতে ফোন ধরে বললেন- হ্যালো, ওপাশ থেকে আপনার স্ত্রী ইয়ার্কির মেজাজে জিজ্ঞাসা- কি ই ই গো , কতদুর....

৯. ভালবাসা মানে জেনে যাওয়া ভালবাসা

ভালবাসা মানে অংক মিলবে না
গণিতের ফেল করা ছাত্র, এর চেয়ে
ভালো জানে সুদকষা!
ভালবাসা এমনই যে, সোনা থেকে
খাদ নেমে গেলেই নিখাদ গিনি,
মাঝখানে শুধু আগুনের পোড়াপুড়ি।
ভালবাসা মানে জেনে যাওয়া ভালবাসা
হৃদয় কলিজা কব্জা খুলে
জান পরান উড়ে যাবার অপেক্ষা
ভালবাসা মানে আর কিছু নয়
শুধু অপেক্ষা।

১০. নদী নেই, ঘাট নেই

কোথাও যাওয়া হবে না, ফেরা হবে না
যেখানে ফিরতে যাই, আগুন হাতে মানুষ
গ্রীক দেবীদের মত সার সার, ভয় দেখায়
রাখা নেই সবুজ সিগনাল, গলে যাচ্ছে শান্তি।
জোছনারা বেয়ে যায় দেয়াল, অগত্যা
দেহত্যাগে এত বাসনা, জানবে না
মনের সাথে জোড়া লাগা বন
কেউ বুঝবে না এই পোড়ামন।
পিরিতে মরেছি, ডুবেছি ঘোলাজলে
এখন কে দিলে আমায় শামুক পরান
চোখের সুরমায় সাবান, সবুজ কাজল
নদী নেই, ঘাট নেই, একা ভাসি যমুনায়

১১. মলম

পাতারা পেতেছে পরান, জলের কাগজে
তলে তলে আমার নির্লিপ্ত জবান
নিভে আছে গতকালের ইচ্ছে, দ্রব্যগুনে
আরও ওপারে পারাপার আছে
ভাবের স্কুলে পড়াচ্ছ বখাটে বয়ান।
তুমি বুঝবে কি বশিকরন চন্ডিরে
বুকের মধ্যে পড়শুদিনের ব্যাথা
ভালবাসার অসুখে বাদ গেল
ঔষধের তালিকা, মলমে সাড়বে কি
অভিমানের ফাপোর!

১২. অলস গল্পের গান

এই যে বৃষ্টিভেজা রুগ্ন আপেল
তাদের মনের দুঃখ কেউ বোঝে নি,
বাতিল হবার আগে তারাও পেয়েছিল
আলতো আংগুল, নজর না লাগা শিশুকাল,
অনেক রোদ, বৃষ্টি, কুয়াশা কাজল, যৌবন
শুধু শুধু পোক্ত হতে গিয়ে গল্পেরা লম্বা এখন!
কে জানত, এভাবে এখানে গলিত পথে
একাকী বিষন্ন হতে হতে চলে যেতে হবে
অপমানে অনিচ্ছায় অনাদরে।

১৩. পকেট ভর্তি জোনাকি

সিদ্ধান্ত গ্রহনের জন্য দুঃখ ভাল
বরাতের জন্যে খুলে যাবে রজনী
অন্ধকারে অথবা জোছনার মোলায়েমে
পকেট ভর্তি জোনাকি, স্পর্শের আকরিক
মৃত মানুষেরা যেমন করে কাছে আসে
গোল চোখ ফেটে বৃস্টি নামায়,
শুধু মায়া মায়া এবং তুমি
আর কিছুই থাকবে না।
ভাজে ভাজে ঘুমিয়ে ছিল ভাবের ইস্কুল
ডুবে ছিল অন্যদেশ, সুগন্ধি শহরের আত্মা
ইজেল তোলা ইমেজগুলো অবশেষ
চুলের দাগ, অনুচ্চারিত ঠোটের ভাঁজ
অপেক্ষার দাড়ি কমায় লিখে রাখা প্রতিজ্ঞা
আর কিছুই থাকবে না
আগামিকালের সম্ভাবনার মত শুধু আমি
আমার বাবার মত কবরে নেমে যাব

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত