artk
৩ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম

জুনায়েদ-কাপালিদের পাওনা আজও পরিশোধ করেনি ব্রাদার্স

স্পোর্টস রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৮০৭ ঘণ্টা, রোববার ১৯ আগস্ট ২০১৮


জুনায়েদ-কাপালিদের পাওনা আজও পরিশোধ করেনি ব্রাদার্স - খেলা

বিসিবির নিয়ম অনুযায়ী লিগ শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যেই ক্লাব মালিকরা প্লেয়ারদের চুক্তির সব টাকা পরিশোধ করবে। কিন্তু ৬ মাস পেরিয়ে গেছে এখনও ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ২০১৭-১৮ মৌসুমের অধিকাংশ ক্রিকেটারের বকেয়া পরিশোধ করেনি ব্রাদার্স ইউনিয়ন। পাওনা পেতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দ্বারে দ্ধারে ঘুরতে হচ্ছে জুনায়েদ সিদ্দিকী, অলোক কাপালি, খালেদ মাহমুদ, কাজী অনীকের মতো দুর্ভাগা ক্রিকেটারদের।

প্লেয়ারস বাই চয়েস পদ্ধতিতে সিসিডিএম’র নির্দেশনামতে টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই ড্রাফটে থাকা প্লেয়ারদের মোট পারিশ্রমিকের ৫০ ভাগ। টুর্নামেন্ট চলাকালীন ২৫ ভাগ এবং টুর্নামেন্ট শেষের এক মাসের মধ্যেই বাকি ২৫ ভাগ পাওনা পরিশোধ করে দিতে হবে।

রোববার বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকতা (সিইও) নিজাম উদ্দীন চৌধুরী সুজনের কাছে তারা ফরিয়াদ নিয়ে এসেছিলেন। বিসিবি কর্তার কাছে দ্বিতীয় বার অভিযোগ পত্র দাখিল করে সংবাদ মাধ্যমকে এমনটাই জানান বঞ্চিতদের প্রতিনিধি ও লাল সবুজের সাবেক টেস্ট ক্রিকেটার অলোক কাপালি।

দুপুরে মিরপুরে তিনি বলেন, “সাধারণত লিগ শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যে আমাদের সেলারি দিয়ে দেয়া হয়। আমরা সেভাবেই যোগাযোগ করেছি ব্রাদার্স ইউনিয়নের সাথে, শেষে বলেছিল রোজার ঈদের আগে দেবে। এরপরে ঈদ শেষ হয়ে গেল। এরপরে আর তারিখ দেয়নি কেউ। তারপরে আবার ওরা বলেছে কোরবানি ঈদের আগে সেলারি দেবে। কিন্তু আজকে শেষ কর্মদিবস। আজকেও ওদের কোন খোঁজ নেই। তারপর বাধ্য হয়ে আমরা কোয়াবের সঙ্গে যোগাযোগ করি। এখন ওরা বলছে সেপ্টেম্বর মাসে আমাদের সেলারি দেবে।”

তিনি আরও বলেন, “ব্রাদার্স ইউনিয়নের এই ইস্যু নিয়ে আমরা দীর্ঘদিন ধরে কাজ করেছি। ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে এবং সিসিডিএমের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলেছি। আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রিকেট বোর্ডকে দুটো চিঠি দেওয়া হয়েছে। একমাস আগে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছিল, তার আগে আরেকটি। কিন্তু এখনো ওদের পেমেন্ট ক্লিয়ার হয়নি, এই বিষয়টি দুঃখজনক।”

কাপালি অভিযোগ করলেন লিগে প্লেয়ার বাছাইয়ের পদ্ধতি প্লেয়ার্স বাই চয়েস নিয়েও। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটে প্লেয়ারর্স বাই চয়েস পদ্ধতি চালু করাতেই পাওনা নিয়ে তাদের এমন বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, “প্লেয়ার বাই চয়েস আমাদের জন্য ভালো হচ্ছে কিনা সেটাও আরেকবার দেখা উচি‍ৎ। কেননা আগে আমরা এমনিতেই চুক্তি করে খেলতাম। তখন এসব সমস্যা হত না। সবাই তো আর বিপিএল খেলে না। প্রিমিয়ার লিগ, এনসিএল, বিসিএলে খেলে; এমনকি বিসিএলেও সবাই খেলে না। তাই এই প্রিমিয়ার লিগ কিন্তু খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখানে সব কিছু মেনেও সময়মতো সেলারি না পাওয়া দুঃখজনক।”

এ বিষয়ে ক্রিকেটারদের সংগঠন ‘কোয়াব’ জেনারেল সেক্রেটারি দেবব্রত পাল বলেন, “অলক কাপালি একজন টেস্ট ক্রিকেটার। সে যখন ঈদের আগে এসে মিডিয়ার সামনে এসব নিয়ে কথা বলে সেটা অবশ্যই সবার জন্য হতাশা জনক। শুধুমাত্র কোয়াবের জেনারেল সেক্রেটারি হিসেবে আমার জন্য না, পুরো কোয়াব কমিটির জন্যই বিষয়টি হতাশাজনক।”

তিনি বলেন, “প্লেয়ার বাই চয়েস নিয়ে প্লেয়ারদের মধ্যেও কনফিউশন আছে। তারপরেও এই নিয়মটি যেহেতু করা হয়েছে, এটাই কিভাবে শতভাগ কাজে লাগানো যায় ক্রিকেটারদের রাইটস অক্ষুণ্ণ রেখে এটাই দেখা উচিৎ এখন। আমরা কিন্তু শুরুতেই প্লেয়ার বাই চয়েসের পক্ষে ছিলাম না। এই ক্রিকেটাররা মিলেই কিন্তু বলেছিল এর বিপক্ষে। কিন্তু বিসিবির সামনে কয়েকজন ক্রিকেটার মিলেই ঠিক করেছিল এই নিয়ম। ক্রিকেটাররা যদি সংঘবদ্ধ হয় তাহলে কিন্তু বিষয়টা সহজ হয়ে যায়। তারাও আমাদের খুব কাছের, এদের সঙ্গে বোঝাপড়াও ভালো। এখন বিষয়টি নিয়ে যদি তারা সহযোগিতা করে তাহলে সমাধান আসবে।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসএস/এসজে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য