artk
৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ১:৩২ অপরাহ্ন

শিরোনাম

গ্রামীণফোন-রবি’র ১২ হাজার কোটি টাকা পাওনা আদায়ে বিটিআরসির চিঠি

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১১৫৩ ঘণ্টা, শুক্রবার ১০ আগস্ট ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৭১৮ ঘণ্টা, শুক্রবার ১০ আগস্ট ২০১৮


গ্রামীণফোন-রবি’র ১২ হাজার কোটি টাকা পাওনা আদায়ে বিটিআরসির চিঠি - অর্থনীতি

অডিট রিপোর্টের ভিত্তিতে গ্রামীণফোন ও রবির কাছে ১২ হাজার কোটি টাকার বেশি পাওনার কথা জানিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা চেয়ে মোবাইল ফোন অপারেটর রবিকে ইতোমধ্যে চিঠি দিয়েছে বিটিআরসি। ১১ হাজার ৫৩০ কোটি ১৫ লাখ টাকা পাওনা চেয়ে গ্রামীণফোনকেও চিঠি দিচ্ছে।

বিটিআরসির এক কর্মকর্তা বলেন, গত ৩১ জুলাই রবিকে চিঠি দেয়া হয়েছে। ভ্যাট ও ট্যাক্স বাবদ পাওনা টাকা আদায়ে রাজস্ব বোর্ডকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। শিগগিরই গ্রামীণফোনেও চিঠি যাচ্ছে। তারা এই টাকা সরকারকে ফাঁকি দিয়েছে। অডিটে যেটা ধরা পড়েছে।

রবির কাছে পাওনা টাকার মধ্যে বিভিন্নখাতে বিটিআরসির নিট পাওনা ৬৭৭ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এবং ভ্যাট ও ট্যাক্স বাবদ রাজস্ব বোর্ডের পাওনা রয়েছে ১৮৯ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। আর গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির পাওনা রয়েছে ১১ হাজার ৫৩০ কোটি ১৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে নিট পাওনা ৭ হাজার ৪৪৪ কোটি ২১ লাখ টাকা। বাকি ৪ হাজার ৮৫ কোটি ৯৪ লাখ টাকা ভ্যাট ও ট্যাক্স বাবদ পাবে এনবিআর।

চিঠি পাঠানোর ১০ কার্যদিবসের মধ্যে রবিকে টাকা পরিশোধ করতে বলেছে বিটিআরসি। ২০১৬ সালের মার্চে রবির ইনফরমেশন সিস্টেম নিরীক্ষায় স্থানীয় নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান মসিহ মুহিত হক অ্যান্ড কোম্পানি এবং ভারতীয় সহযোগী নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান পি কে এফ শ্রীধর অ্যান্ড সান্থনাম এলএলপি সঙ্গে চুক্তি করে বিটিআরসি। বাংলাদেশে রবির কার্যক্রম শুরুর পর এই প্রথম বিটিআরসি পূর্ণাঙ্গ নিরীক্ষা কার্যক্রম শুরুর উদ্যোগ নেওয়ার পর সম্প্রতি অডিট কোম্পানি বিটিআরসিতে নিরীক্ষা প্রতিবেদন জমা দেয়। বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, অডিটি সিস্টেম অনুযায়ী অডিট ফার্ম অডিট করেছে। কত পাব, কত পাব না, কেন পাব ডিবেট হয়েছে। পরে ফাইনাল ফিগারটা জানানো হয়েছে। অডিট রুলস অনুযায়ী এ টাকা চাওয়া হয়েছে।

এদিকে রবাির পক্ষ থেকে সংবাদ মাধ্যমে জানানো হয়েছে, ‘রবি এই ত্রুটিপূর্ণ নিরীক্ষা প্রতিবেদন এবং এর সাথে সম্পর্কিত সকল পাওনা দাবিকে জোরালোভাবে প্রত্যাখ্যান করছে। সম্পূর্ণ যুক্তিহীন এই দাবির আইনগত ভিত্তি নেই।

অডিট প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গ্রাহক সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির পাওনা রয়েছে ১১ হাজার ৫৩০ কোটি ১৫ লাখ টাকা। বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, গ্রামীণফোনের অনেক বড় ব্যাপার, জিপির একবার অডিট হয়েছিল তিন হাজার ৩৪ কোটি টাকা চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছিল, হাইকোর্টে মামলা করার পর ফ্রেশ অডিট করতে বলায় সে নির্দেশে অডিট করা হয়েছে। তিনি বলেন, নতুন অডিটে অডিট ফার্ম একটা ফিগার বের করেছে। এটি অনেক দিন হয়ে গেছে, এ জন্য ইন্টারেস্ট হবে। এ নিয়ে ডিবেট হয়েছে। ডিবেট হওয়ার পর যা ফিগার হয়, তা আমাদের বলেছে। এ ফিগার চাওয়া ছাড়া অলটারনেটিভ নেই।

২০১১ সালে প্রথম অডিটে গ্রামীণফোনের দেনা ছিল প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা। তখন তারা আপত্তি তুলে জানায়, অডিট আন্তর্জাতিক মানের হয়নি। ফলে তাদের দাবি অনুযায়ী দ্বিতীয় দফা অডিটে বিদেশি পার্টনার ফার্ম নিয়োগের ব্যবস্থা করে বিটিআরসি। পরে দেশি তোহা খান জামান অ্যান্ড কোম্পানি লিড অডিটর এবং সহযোগী অডিটর হয় ভারতের সিএনকে অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটস, এলএলপি, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট। এই অডিট প্রতিবেদন অনুযায়ী গ্রামীণফোনের কাছে এখন সরকারের পাওনা ১১ হাজার ৫৩০ কোটি ১৫ লাখ টাকা। তবে এ বিষয়ে গ্রামীণফোন সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোন কথা বলেনি।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য