artk
৪ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, রোববার ১৯ আগস্ট ২০১৮, ১০:১২ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

বাংলাদেশে গর্ভবতী নারীদের রক্তে উচ্চমাত্রার সিসা

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১২৫০ ঘণ্টা, বুধবার ১৮ জুলাই ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৭২১ ঘণ্টা, বুধবার ১৮ জুলাই ২০১৮


বাংলাদেশে গর্ভবতী নারীদের রক্তে উচ্চমাত্রার সিসা - জাতীয়
ছবি প্রতীকী

বাংলাদেশের গর্ভবতী গ্রামীণ নারীদের রক্তে উচ্চমাত্রার সিসার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আসিসিডিডিআর’বি) এর এক গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে আইসিসিডিআর’বি বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি জেলার ৪৩০ জন গর্ভবতী গ্রামীণ নারীদের মধ্যে এ গবেষণা চালায়।

গবেষণার তথ্যানুসারে, জরিপে অংশ নেয়া এক তৃতীয়াংশ গর্ভবতী নারীদের রক্তে প্রতি ডেসিলিটারে (এক লিটারের এক দশমাংশ) পাঁচ মাইক্রোগ্রাম উচ্চমাত্রার সিসার উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

এছাড়াও ছয় শতাংশ নারীর রক্তের প্রতি ডেসিলিটারে ১০ মাইক্রোগ্রাম এবং এমন একজনকে পাওয়া গেছে যার রক্তের প্রতি ডেসিলিটারে ২৯.১ মাইক্রোগ্রাম উচ্চ মাত্রার সিসা পাওয়া গেছে, যা কিনা রোগ নিয়ন্ত্রণ প্রতিরোধের (সিডিসি) চেয়ে ছয় গুণ বেশি।

পরিবেশে ও বিভিন্ন খাদ্য উৎসের মাধ্যমে ওই নারীদের মধ্যে এমন উচ্চ মাত্রার সিসার উপস্থিতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন গবেষণার সঙ্গে জড়িত সিনিয়র লেখক ও স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্টিফেন পি. লুবি।

আসিসিডিআর’বি এর গবেষণা তদন্তকারী ও ওই গবেষণার সহ-লেখক সরকার মাসুদ পারভেজ বলেন, “রক্তে কম মাত্রার সিসার উপস্থিতির নারীদের তুলনা করে দেখা যায়, বেশি মাত্রার সিসার উপস্থিত পাওয়া যাওয়া নারীরা ওইসব খাদ্য খেয়েছেন যেখানে খাদ্যদ্রব্যে বেশি মাত্রায় ওষুধ ও কীটনাশক ব্যবহার করা হয়।

গবেষকরা গবেষণাকৃত এলাকার মাটি, পানি, হলুদ, চাল, দেশীয় ওষুধ এবং কৃষিজাত ও প্রক্রিয়াজাত পণ্যের বিভিন্ন ‘ক্যান’ পরীক্ষা করেছেন সিসার উপস্থিতি খুঁজে বের করতে।

এদের মধ্যে খাদ্যজাত এবং কৃষি রাসায়নিক নমুনা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ১৭ ধরনের হলুদের গুড়ার মধ্যে সাতটিতে উচ্চ পর্যায়ের সিসার উপস্থিতি রয়েছে।

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) নির্ধারিত মাত্রা অনুযায়ী, প্রতিগ্রামে ২.৫ মাইক্রোগ্রাম সিসার উপস্থিতি সহনীয়। কিন্তু খোলা বাজারের উন্মুক্ত এসব হলুদের প্রতিগ্রামে ২৬৫ মাইক্রোগ্রাম পর্যন্ত সিসা পাওয়া গেছে।

এছাড়াও বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য যেমন, অনেক দিনের ফ্যাকাসে চাল, মেশিনে ভাঙানো চাল বিশেষ করে যথাযথ ভাবে না রাখা শুকনো খাবারে সিসার উপস্থিতি পাওয়া যাচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট অনুসারে, সিসা শিশুদের মস্তিস্ক বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করে এবং স্নায়ুবিক প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত সৃষ্টি করে থাকে। গর্ভকালীন মায়েদের দেহে সিসার পরিমাণ বেশি থাকলে গর্ভপাত, মৃত বাচ্চা প্রসব বা সময়ের আগেই শিশুর জন্ম হয়ে থাকে। আর এসব শিশু কম ওজনের হয়ে থাকে এবং মায়ের গর্ভে শিশুর সঠিক গঠন হয় না। এ ছাড়া সিসা গর্ভকালীন ও জন্মের পর শিশুর বোঝার ক্ষমতাকে নষ্ট করে।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য