artk
৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১:৪১ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

সাগরের নিচে আটলান্টিস সভ্যতার সন্ধান!

বিচিত্র ডেস্ক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১১৩১ ঘণ্টা, বুধবার ১১ জুলাই ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১২২৬ ঘণ্টা, বুধবার ১১ জুলাই ২০১৮


সাগরের নিচে আটলান্টিস সভ্যতার সন্ধান! - বিচিত্র

প্রথম আটলান্টিস সভ্যতার কথা জানা যায় গ্রিক দার্শনিক প্লেটোর লেখায়। সেই থেকেই মানুষ হন্যে হয়ে খুঁজে বেড়িয়েছে সেই সভ্যতার নিদর্শন। বিশ্বের প্রাচীনতম এই রহস্যের নাম আটলান্টিস। প্লেটো এই নামই বলেছিলেন। অবশেষে মেক্সিকোর পশ্চিমে প্রশান্ত মহাসাগরের নিচে সম্ভবত মিলল তার ধ্বংসাবশেষ।

প্লেটো তার ‘আইডিয়াল ওয়ার্ল্ড’-এর ধারণা দেয়ার সময় আটলান্টিসকে এক আদর্শ সভ্যতা হিসেবে বর্ণনা করেছিলেন। তার লেখা থেকে জানা যায় অত্যন্ত উন্নত সভ্যতা ছিল এটি। উন্নত নিকাশি, উন্নত সড়ক, সবচেয়ে বড় কথা এর সমাজ ছিল আদর্শ মানব সমাজ। কিন্তু হঠাৎ এক প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে হারিয়ে যায় সেই সভ্যতা।

একুশ শতকে উন্নত প্রযুক্তিতে প্রত্নতাত্ত্বিক খোঁজ চালাতে মাটি খোঁড়াখুঁড়ি বা সমুদ্রের নিচে ডুব লাগানোর বিশেষ দরকার পড়ে না। হাতের কাছেই আছে গুগল আর্থের উপগ্রহ চিত্র। তাই ঘরে বসেই গুগল আর্থের মারফত বিভিন্ন এলাকায় অনুসন্ধান চালান প্রত্নতাত্ত্বিক থেকে ভিনগ্রহী প্রাণীদের উপস্থিতি প্রমাণে নিমগ্ন কন্সপিরেসি থিওরিস্টরা। আর এভাবেই আটলান্টিসের খোঁজ পেয়েছেন বলে দাবি করেছেন আর্জেন্টাইন কন্সপিরেসি থিওরিস্ট মার্সেলো ইগাজুস্তা।

মেক্সিকোর ঠিক পশ্চিমে প্রশান্ত মহাসাগরের নিচে প্রায় ১১ মাইল এলাকা জুড়ে বিস্তৃত একটি বিশাল স্থাপত্যের সন্ধান পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইগাজুস্তা। এর একটি ভিডিও তিনি ইউটিউবে পোস্ট করেছেন। এরপর থেকেই বিশ্বজুড়ে কন্সপিরেসি থিওরিস্টরা সেই স্থাপত্য একটি ডুবে যাওয়া সভ্যতা, নাকি ভিনগ্রহী প্রাণীদের গোপন আস্তানা- এ নিয়ে চর্চা শুরু করেছিলেন। শেষ পর্যন্ত তাদের দাবি স্থাপত্যটি একটি বিশালাকার পিরামিড। তাদের বক্তব্য সত্যি হলে এই ৮.৫ মাইলের বিশাল পিরামিডটিই হবে পৃথিবীর বুকে স্থাপিত সবচেয়ে বড় পিরামিড। গবেষকদের অনেকেই দাবি করছেন, এটাই প্লেটোর আটলান্টিস সভ্যতার অংশ।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য