artk
৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, শনিবার ২১ জুলাই ২০১৮, ৮:০৩ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

ট্রাষ্ট ব্যাংকের ক্লাসিফাইড ঋণ কমিয়ে আনা হবে

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৮২৮ ঘণ্টা, শনিবার ২৩ জুন ২০১৮


ট্রাষ্ট ব্যাংকের ক্লাসিফাইড ঋণ কমিয়ে আনা হবে - অর্থনীতি

অতীতের তুলনায় ট্রাষ্ট ব্যাংকের ক্লাসিফাইড ঋণ বেড়েছে। এ ঋণের পরিমাণ কমিয়ে আনতে কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদসহ কর্মকর্তারা নিরলসভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন ভাইন্স চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান।

শনিবার রাজধানীর পুরাতন এয়ারপোর্ট রোর্ডে ট্রাষ্ট মিলনায়তনে কোম্পানির ১৯তম বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন ভাইন্স চেয়ারম্যান।

ট্রাষ্ট ব্যাংকের এই এজিএম শেয়ার হোল্ডারদের সম্মতিক্রমে ডিসেম্বর ২০১৭ সমাপ্ত বছরের জন্য পূর্ব ঘোষিত ২০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড অনুমোদিত হয়েছে। এজিএমে শেয়ার হোল্ডারদের সম্মতিক্রমে ২০১৭ সমাপ্ত বছরে জন্য আরো পূর্ব ঘোষিত ৩টি আলোচ্যসূচি (এজেন্ডা) অনুমোদিত হয়। বাকি আলোচ্যসূচি হলো- ২০১৭ সমাপ্ত বছরের আর্থিক বিবরণী অনুমোদন, পরিচালক ও স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ, নিরীক্ষক নিয়োগসহ নিরীক্ষকের পারিশ্রমিক নির্ধারণ।

ট্রাষ্ট ব্যাংকের ক্লাসিফাইড ঋণ বেড়েছে শেয়ার হোল্ডারদের এমন মন্তব্যে এজিএমে মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান বলেন, ট্রাষ্ট ব্যাংক সেনা বাহিনী নিয়ন্ত্রনে চালিত প্রতিষ্ঠান। এখানে বেশ দক্ষতার সঙ্গে ব্যাংকিং কার্ষক্রম পরিচালিত হয়। ঋণ দেবার ক্ষেত্রে আমরা বেশ স্বচ্ছ সাথে নিয়ম কানুন প্রতিপালন করে থাকি। এরপরও দেখা যায়, সক্ষম ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ঋণ পাবার পর অনেকেই তা সময়মত পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে থাকে। এর ফলে এবারে ট্রাষ্ট ব্যাংকের ক্লাসিফাইড ঋণের পরিমাণ পূর্বের চেয়ে বেড়েছে। কিন্তু আমার সেই ঋণ কমিয়ে আনতে কাজ করছি। এই ঋণ কমিয়ে আনতে কোম্পানির পরিচালন পর্ষদসহ কর্মকর্তারা নিরলসভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ট্রাষ্ট ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইশতিয়াক আহমেদ চৌধুরী দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) যাওয়া প্রসঙ্গে ভাইন্স চেয়ারম্যান বলেন, ঋণ জালিয়াতির তথ্য অনুসন্ধানে ওই সাবেক এমডিকে দুদক তলব করেছিল। দুদক বাংলাদেশে দুর্নীতি দমন, নিয়ন্ত্রণ ও দুর্নীতি প্রতিরোধে গঠিত একটি কমিশন। দেশের স্বার্থে যে কাউকে দুদক কমিশন ডাকতে পারেন। আমাদের এমডিকে সেই জন্য ডেকেছেন। তিনি সেখানে গিয়েছেন, যা জানতেন সেই তথ্য দিয়ে দুদকের অনুসন্ধানে সহায়তা করেছেন। এখানে শেয়ার হোল্ডারদের বিচলতি না হবার অনুরোধ করেন তিনি।

ট্রাষ্ট ব্যাংকের এটিএম সেবা বৃদ্ধিসহ সাইবার নিরাপত্তার জোরদার প্রসঙ্গে ভাইন্স চেয়ারম্যান বলেন, কোম্পানির এটিএম সেবা আরো উন্নত করতে কাজ চলছে। অবশ্য আমাদের এটিএমে কিছু সমস্যা রয়েছে। তা দূর করতে কাজ চলছে। শিগগির তা সমাধা হবে। অপরদিকে সাইবার অপরাধ রোধে আমাদের বিশেষ নজরদারি রয়েছে বলেন তিনি।

শনিবারে ব্যাংক সেবা শেয়ার হোল্ডারদের এমন দাবির প্রেক্ষিতে মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান বলেন, ট্রাষ্ট ব্যাংকের চারটি শাখা দিয়ে শনিবার ব্যাংক সেবা দিয়ে থাকে। ওই দিনে দেশের সমস্ত শাখায় এই ব্যাংকিং সেবা দেয়া সম্ভব নয়। তাই আমরা ওই দিনে ব্যাংকিং সেবা দেবার কথা চিন্তা ভাবনা করছি না।

মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান বলেন, আর্থিক অন্তর্ভূক্তি এবং আইনের যথাযথ পরিপালনের মাধ্যমে দীর্ঘ মেয়াদে ট্রাষ্ট ব্যাংকের একটি টেকসই আর্থিক প্রতিষ্ঠান করতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ লক্ষ্যে আমরা ঋণ আমানতকে একটি আদর্শ অনুপাতের মধ্যে রেখে সঠিক তার‌ল্য ব্যবস্থাপনা ও দীর্ঘমেয়াদে আর্থিক সচ্ছলতা নিশ্চিত করেছি। ২০১৭ সালে মুনাফা অর্জনসহ অন্য সূচকে প্রবৃদ্ধি আর্জন সচ্ছলতা নিশ্চিত করেছি। এছাড়া সামনের দিনগুলোতে এই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে আরও সাফল্য অর্জন করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

কোম্পানির শেয়ার প্রতি মুনাফা (ইপিএস) কমে গেছে শেয়ার হোল্ডারদের এমন মন্তব্যে এজিএমে ট্রাষ্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ফারুক মাইনুদ্দিন আহমেদ বলেন, ক্লাসিফাইড ঋণ বৃদ্ধির কারনে ইপিএস কমেছে। ইপিএস কমার এটিই অন্যতম। তবে এ ঋণ কমিয়ে আনার চেষ্ঠা অব্যাহত থাকবে।

সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- কোম্পানির পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল গনি খান, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নাকিব আহমেদ, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ইকবাল আহমেদ, স্বতন্ত্র পরিচালক শাহিদুল ইসলাম, মোহাম্মেদ নাসের আলম, সচিব মো. মিজানুর রহমান প্রমুখ।

অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যাংকিংয়ের সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ২০১৭ সালে ট্রাষ্ট ব্যাংকের ২টি নতুন শাখা চালু হয়েছে। যা ২০১৭ সালের শেষে এ ব্যাংকের মোট শাখার সংখ্যা দাঁড়ায় ১১০টিতে। এর মধ্যে ৬টি এসএমই/কৃষি শাখা। চলতি বছরে ট্রাষ্ট ব্যাংক ২১টি নতুন এটিএম বুথ স্থাপন করেছে। ফলে বছর শেষে ব্যাংকের এটিএম বুথের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০৫টিতে। এছাড়া ট্রাষ্ট ব্যাংক ৯টি ‘টি-লবি’র মাধ্যমে ব্যাংকিং সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

‘এ’ ক্যাটাগরির ট্রাষ্ট ব্যাংকের কোম্পানিটি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ২০০৭ সালে তালিকাভূক্ত হয়। এর অনুমোদিত মূলধন এক হাজার কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন ৫৫৬ কোটি ৯৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা। শেয়ার দর রয়েছে (২৩ ‍জুন) ৩০.৭০ টাকায়। কোম্পানির রিজার্ভ রয়েছে ৫৯৫ কোটি টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়াররের মধ্যে ৬০ শতাংশ শেয়ার ধারণ করছেন উদ্যোক্তা/পরিচালকেরা। বাকি শেয়ার ধারণ করছেন প্রাতিষ্ঠানিক, বিদেশি ও সাধারণ বিনিয়োগকারী।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএজেড/এএইচকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য