artk
৪ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, রোববার ১৯ আগস্ট ২০১৮, ৬:১৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম

‘গান্ধীজি স্টাইলের আন্দোলনে খালেদার মুক্তি মিলবে না’

প্রবাস | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১২৩৩ ঘণ্টা, বুধবার ১৩ জুন ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১১০৫ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১৪ জুন ২০১৮


‘গান্ধীজি স্টাইলের আন্দোলনে খালেদার মুক্তি মিলবে না’ - রাজনীতি

গান্ধীজি স্টাইলের আন্দোলনে শত বছরেও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলবে না বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের কেন্দ্রীয় নেতারা।

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কারাবন্দী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে জাসাসের সমাবেশে বক্তরা এ মন্তব্য করেন।

বক্তারা বলেন, ‘‘গান্ধীজির স্টাইলে অহিংস আন্দোলন এবং সরকারের অনুমতি নিয়ে সভা-সমাবেশের পন্থা অবলম্বনের যে মানসিকতা পরিলক্ষিত হচ্ছে, তা দিয়ে শত বছরেও চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকেও রক্ষা করা সম্ভব হবে না। এ জন্যে দরকার নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের চেয়েও ভয়ংকর আন্দোলন।’

সমাবেশে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ও চিত্রনায়ক হেলাল খান বলেছেন, ‘‘জোর করে ক্ষমতায় আঁকড়ে থাকা শেখ হাসিনা সরকারের বাজেটও জনগণ প্রত্যাখান করেছে। কারণ এই বাজেট করা হয়েছে আওয়ামী লীগের লোকজনের স্বার্থে, লুটতরাজের অভিপ্রায়ে। রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুটের মধ্য দিয়ে তারা আবারও ক্ষমতায় থাকতে চায়।’’

তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান তছনছ করা হয়েছে। গণতন্ত্রের প্রতীক বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী করা হয়েছে। এখন তার চিকিৎসা প্রদানেও গড়িমসি করা হচ্ছে। এই সরকারকে হঠাতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক গিয়াস আহমেদ বলেন, ‘‘সরকার জেনে গেছে যে ৯৫% মানুষই তাদের চায় না। এ জন্যেই বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রেখে আরেকটি ৫ জানুয়ারির প্রহসনের নির্বাচনের ফন্দি এঁটেছে। কিন্তু বিএনপির আদর্শে উজ্জীবিতরা তা হতে দেবে না।’’

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল বলেন, “ঈদের পর আন্দোলনের ডাক এলেই সকলকে ভেদাভেদের ঊর্ধ্বে উঠে কাজ করতে হবে।”

যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক এম এ বাতিন বলেন, “ঈদের পর জাতিসংঘ এবং স্টেট ডিপার্টমেন্টের সামনে কর্মসূচি দেয়া হবে। সেখানে দলে দলে যোগদানের প্রস্তুতি নিন এখন থেকেই। ১/১১ পরবর্তী সময়ের চেতনায় দুর্বার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরকারকে অপসারণ করে জনগণের সরকার বসাতে হবে।”

জাসাসের কেন্দ্রীয় নেতা দারাদ আহমেদ বলেন, ‘‘গান্ধীজির মতো অহিংস আন্দোলনের দিন শেষ। এখন প্রয়োজন টেনে-হিঁচড়ে গতি থেকে নামানোর আন্দোলন। সরকারের অনুমতি নিয়ে সভা-সমাবেশের ওপর ভরসা করে থাকলে শত বছরেও বেগম জিয়াকে মুক্ত করা যাবে না।’’

এ সমাবেশের জন্যে গঠিত সাব-কমিটির আহ্বায়ক শেখ হায়দার আলীর সভাপতিত্বে জ্যামাইকায় একটি পার্টি হলের এ সমাবেশ পরিচালনা করেন যৌথভাবে যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সাধারণ সম্পাদক কাওসার আহমেদ এবং সদস্য-সচিব আনোয়ার হোসেন।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি আলহাজ আবু তাহের, যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি আলহাজ্ব বাবরউদ্দিন, ব্রুকলীন বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেন এবং সেক্রেটারি জাহাঙ্গির সোহরাওয়ার্দি, কাজী কামাল, সিদ্দিক হুসেন রুবেল, এটিএম হেলালুর রহমান, তমিজউদ্দিন।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দের মধ্যে আরও ছিলেন বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, বিএনপি নেতা সৈয়দা মাহমুদা শিরিন, ফারুক হোসেন মজুমদার, বাকির আজাদ, মাওলানা আবুল কালাম প্রমুখ।

সমাবেশের পর ইফতারের সময় মাওলানা আবুল কালামের নেতৃত্বে বিশেষ মোনাজাতে খালেদা জিয়ার দ্রুত আরোগ্য কামনা করা হয়।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত