artk
৫ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার ১৯ জুন ২০১৮, ২:২১ অপরাহ্ন

শিরোনাম

ইবিতে নিয়োগ বোর্ড বন্ধের হুঁশিয়ারি চাকরি প্রত্যাশীদের

ইবি সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১০২৩ ঘণ্টা, রোববার ০৩ জুন ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১২৫৪ ঘণ্টা, রোববার ০৩ জুন ২০১৮


ইবিতে নিয়োগ বোর্ড বন্ধের হুঁশিয়ারি চাকরি প্রত্যাশীদের - শিক্ষাঙ্গন

চাকরির দাবিতে ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) মেইন গেট আবারো অবরোধ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীরা।

শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মেইন গেট অবরোধ করেন তারা। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বহনকারী রাতের বাস আটকা পড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিমের আয়োজনে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে অংশ নেয় চাকরি প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এরপর রোববার অনুষ্ঠেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের নিয়োগ বোর্ড সামনে রেখে তাদের দাবি আদায় করতে শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে চাকরি প্রত্যাশী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আনিসুজ্জামান লিটন, মাহবুব হোসেন, আবুল খায়ের, মুহাম্মদ আলী শিমুল, কাশেম মাহমুদ, মিজানুর রহমান টিটু, আরব আলী, সোলায়মান, আশিকুর রহমান জাপানসহ ৩০/৩৫ জন মেইন গেট অবরোধ করেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বহনকারী রাত সাড়ে ৮টার গাড়ি আটকা পড়ে।

প্রায় তিন ঘণ্টা পর রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশের উপস্থিতিতে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। তবে এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো কর্তাব্যক্তি ঘটনাস্থলে আসেননি বলে প্রত্যক্ষদর্শী ও আন্দোলনকারীরা জানান।

এদিকে রোববার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আটটি বিভাগে শিক্ষক নিয়োগ ও আইটি সেলের কর্মকর্তা নিয়োগ বোর্ড শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। চাকরি প্রত্যশীদের দাবি মেনে নেয়া না হলে আজ থেকে শুরু হওয়া সকল নিয়োগ বোর্ড হতে দেয়া হবে না বলে অবরোধ শেষে ঘোষণা দেন চাকরি প্রত্যাশীরা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বলেন, “বিষয়টি আমি খোঁজ নিয়েছি। তবে এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত চাকরি প্রত্যাশীদের সঙ্গে কোনো কথা হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য প্রক্টরিয়াল বডি কাজ করে যাচ্ছে এবং যাবে।”

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ৭ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগে শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও চাকরি প্রত্যাশী ও বর্তমান ছাত্রলীগ নেতাদের চাপের মুখে তা স্থগিত হয়ে যায়। এরপর গত ২৭ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের আটটি বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ ও আইটি সেলের কর্মকর্তা নিয়োগ বোর্ডের নতুন তারিখ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এতে চাকরি প্রত্যাশীদের ব্যাপারে কোনো বিজ্ঞপ্তি না দেয়ায় শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেট অবরোধ করেন তারা। এছাড়া তাদের ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোনো যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে নতুন ঘোষিত সব বিভাগের শিক্ষক ও কর্মকর্তা নিয়োগ বোর্ড অনুষ্ঠিত হতে দেবেন বলে আল্টিমেটাম হুঁশিয়ারি দেন তারা।

প্রসঙ্গত, চাকরির দাবিতে ২০১৩ সাল থেকে বিভিন্ন সময় আন্দোলন করে আসছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক কিছু নেতাকর্মী। যাদের মধ্যে সাতজন সেভেন স্টার নামে পরিচিত। এই সেভেন স্টারের নেতৃত্বে বিভিন্ন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেট অবরোধ, ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে বাধা প্রদানসহ অনাকাঙ্খিত ঘটনার মাধ্যমে ক্যাম্পাস বন্ধ করে দেয়ার নজিরও রয়েছে।

সম্প্রতি চাকরি প্রত্যাশী ছাত্রলীগের কয়েকজন সাবেক নেতার সঙ্গে কথা বললে তারা বলেন, ছাত্রলীগের দুর্দিনের সময় ত্যাগী নেতারা ছাত্রলীগ ও আওয়ামীপন্থিদের বিভিন্নভাবে সহাযোগিতা করলেও বর্তমান প্রশাসন তা ভুলে গিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সবসময় আমাদের শুধু ব্যবহার করেছে। এখন ছাত্রলীগকে বাদ দিয়ে তারা ব্যক্তিগত এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে কাজ করছে। আমাদের দাবি মেনে না নেয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো নিয়োগ বোর্ড হতে দেয়া হবে না।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য