artk
৭ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, বুধবার ২২ আগস্ট ২০১৮, ৮:০৪ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

খালেদা জিয়ার জামিননামা দাখিল

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৮৩৩ ঘণ্টা, বুধবার ১৬ মে ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১১৩৬ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১৭ মে ২০১৮


খালেদা জিয়ার জামিননামা দাখিল - কোর্ট-কাচারি
খালেদা জিয়া: ফাইল ফটো

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিননামা দাখিল করেছেন তার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া ও জয়নাল আবেদীন মেজবাহ।

বুধবার ঢাকা মহানগর জুডিশিয়াল মুন্সিখানায় এ জামিন নামা দাখিল করা হয়।

এদিন জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাই কোর্টের দেয়া জামিন আদেশ বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে সাজার বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার দায়ের করা হাই কোর্টের আপিল আগামী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করার জন্য সংশ্লিষ্ট বেঞ্চকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

আপিল বিভাগ থেকে খালেদা জিয়া জামিন পেলেও অন্য মামলায় গ্রেপ্তার থাকায় আপাতত তিনি মুক্তি পাচ্ছেন না বলে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবীরা।

জুডিশিয়াল মুন্সিখানা শাখার পেশকার ওমর ফারুক চৌধুরী জানিয়েছেন, আপিল বিভাগের আদেশ না পাওয়ায় জামিন নামাটি আদালতে উপস্থাপন করা হয়নি।

তিনি বলেন, “আপিল বিভাগের আদেশ না পাওয়া পর্যন্ত তা আমরা আদালতে উপস্থাপন করতে পারব না।” আপিল বিভাগের আদেশ আসার পর আদালত অনুমতি দিলে আমরা তা কারাগারে পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে খালেদা জিয়াকে হাই কোর্টের দেয়া জামিন আদেশর বিরুদ্ধে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল নিয়ে দুইদিন (৮ ও ৯ মে) শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। খালেদা জিয়ার জামিন বাতিলের পক্ষে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং দুদকের পক্ষে খুরশিদ আলম খান।

অন্যদিকে খালেদা জিয়ার জামিন বহাল রাখতে তার পক্ষে শুনানি করেন চার আইনজীবী। তারা হলেন- সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী, সাবেক আইনমন্ত্রী মওদুদ আহমদ, সিনিয়র আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদন।

গত ১৯ মার্চ মামলাটি শুনানির জন্য ৮ মে দিন ধার্য করেছিলেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন একই বেঞ্চ। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) এবং আপিল বিভাগের স্থগিতাদেশ তুলে নেয়া সংক্রান্ত খালেদা জিয়ার আবেদনের ওপর এই শুনানি হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয় আসামির প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা করে অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। রায়ের দিন থেকে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়ছেন খালেদা জিয়া।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এএইচকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য