artk
৩ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:০২ অপরাহ্ন

শিরোনাম

পদ্মা সেতুর চতুর্থ স্প্যান স্থাপনের প্রস্তুতি

মুন্সিগঞ্জ সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১২২৩ ঘণ্টা, রোববার ১৮ মার্চ ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৭১৯ ঘণ্টা, রোববার ১৮ মার্চ ২০১৮


পদ্মা সেতুর চতুর্থ স্প্যান স্থাপনের প্রস্তুতি - জাতীয়
ফাইল ফটো

পদ্মার বুকে এবার চতুর্থ স্প্যান স্থাপনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। ‘৭ই’ নম্বর স্প্যানটি এখন ওয়ার্কসপের পেন্টিং শেডে নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এটি নেয়ার পর থেকেই রঙ করার আগের কাজগুলো করা হয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, শ্রমিকরা মেশিনে বিশাল স্প্যানটির ঘষামাজা করছেন। সোনালি রঙের এ স্প্যানে গেন্ডিং মেশিন দিয়ে জোড়া লাগানো স্থানগুলো আরও ফিনিশিং করা হচ্ছে। আরেক পাশে মেশিনে লোহার গুড়া দিয়ে সেন্ড ব্রাস্টিং করা হচ্ছে। অর্থাৎ সেন্ট দানা দিয়ে ডাস্ট বা মরিচা মেশিনে পরিস্কার করা হচ্ছে।

এরপরই সোনালি রঙের স্প্যানটিকে পরিণত করা হবে ধূসর রঙে। এছাড়া এ স্প্যানটি বহনের জন্য ৩৬শ টন ওজন বহনের ক্ষমতার ভাসমান ক্রেনের জাহাজটিও বিশেষায়িত ওয়ার্কসপের জেডির অপর প্রান্তে নোঙ্গর করা হয়েছে। রঙের কাজ শেষ হলেই ৭ই নম্বর স্প্যানটি বহন করে নিয়ে ৪০ ও ৪১ নম্বর খুঁটিতে। এ খুঁটির ওপরই বসবে চতুর্থ স্প্যান। ৪১ নম্বর খুঁটিও স্প্যান বসানোর উপযোগী করা হচ্ছে। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, ৩৯ নম্বর খুঁটিতে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্প্যান (৭বি ও ৭সি নম্বর স্প্যান) জোড়া লাগানোর জন্য ওয়েডিং করা হচ্ছে। আর এ দুই স্প্যানের এ অংশের ভার বহন করে আছে লিফটিং ফ্রেম (স্প্যানকে ঝুলন্ত রাখার কাঠামো)।

এর আগে এ লিফটিং ফ্রেম আটকানো ছিল ৩৮ নম্বর খুঁটির সাথে। সেখানে ১ম ও ২য় স্প্যানের (৭এ ও ৭বি নম্বর স্প্যানের অপর প্রান্ত) ভার বহন করেছিল এ লিফটিং ফ্রেম। ওয়েডিং করে জোড়া লাগানোর পর এটি এখানে সরিয়ে আনা হয়। সেভাবেই ৩৯ নম্বর খুঁটির জোড়া লাগানোর পর এটি সরিয়ে আনা হবে ৪০ নম্বর খুঁটিতে। এখানেই লিফটিং ফ্রেমটি তৃতীয় স্প্যানের অপর প্রান্ত এবং ৪ নম্বর স্প্যানের এক প্রান্তের জোড়া লাগানোর জন্য ভার বহন করবে। এছাড়া সেতুর সর্বশেষ ৪২ নম্বর খুঁটির দ্রুত উঠে যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, চতুর্থ স্প্যান লাগাতে ৪২ নম্বর খুঁটিও উপযোগী হয়ে যাবে। তাই ৫ম স্প্যান অর্থাৎ ৭এফ স্প্যান বসবে এ ৪১ ও ৪২ নম্বর খুঁটিতে।

বিশেষায়িত ওয়ার্কসপে গিয়ে দেখা যায়, ৭এফ স্প্যানটিও রঙ শেডের কাছেই রাখা। ৭ই নম্বর স্প্যান রং করা শেষ হলেই এটি শেডে প্রবেশ করানো হবে রঙের জন্য। এছাড়া শেডের পাশে ৬ই নম্বর স্প্যানও ফিটিং করে রাখ হয়েছে। এটি বসবে ৩৪ ও ৩৫ নম্বর খুঁটিতে। এর ওপারে পূর্ব দিকে ফিটিংয়ের কাজ চলছে আরও চারটি স্প্যান। এছাড়া ওয়ার্কসপের শেডের বাইরে ফিটিং করে রাখা হয়েছে আরেকটি স্প্যান। এ স্প্যানটিই প্রথম চীন থেকে এসেছিল। এটির মডিইল ১এফ। এটি স্থাপনের কথা ৬ ও ৭ নম্বর খুঁটিতে।

প্রকল্প এলাকায় ১৩টি স্প্যান এসেছে। এর মধ্যে বসে গেছে ৩টি। আরও ১০টি এখন ওয়াকসপে। এছাড়া আরও ১৬ টি স্প্যান চীনে তৈরি হয়েছে। এর একটি পথে রয়েছে। বাকি ১২টিও আশার অপেক্ষায়।

পাশের টিউব তৈরির ওয়ার্কসপে গিয়ে দেখা যায়, এ ওয়ার্কসটি প্রায় অলস সময় কাটাচ্ছে। পাইলিংয়ের তিন মিটার ডায়ার (প্রায় ১০ ফুট) টিউব তৈরির ৮৫ শতাংশই সম্পন্ন হয়ে গেছে। এখন বাকি ১৪টি খুঁটির ডিজাইন অনুমোদনের পরই তৈরি করা হবে। ওয়ার্কসপ থেকে বেরুবার পথে উত্তর পাশে কাজ চলছে রেলের স্লাভ তৈরির। স্প্যানের মধ্যে এ স্লাভ বসানো হবে। প্রায় ৩ হাজার এ স্লাভের মধ্যে ৩শ স্লাভ তৈরি হয়ে গেছে বলে দায়িত্বশীলরা জানান। এর সাথে সামনের দক্ষিণ পাশে তৈরির প্রক্রিয়াও চলছে সড়কের স্লাভের সার্ভিস ডেক্স স্লাভের। ইতোমধ্যেই এ ডেক্স স্লাভের ট্রায়াল শেষ হয়েছে।

এদিকে ১৪টি খুঁটির ডিজাইনও হয়ে গেছে। শিগগিরই এটি সেতু কর্তৃপক্ষের হাতে হস্তান্তর হবে বলে দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন।

এছাড়া নদীতে ১২৪টি পাইল সম্পন্ন হয়েছে। বটম সেকশন হয়েছে আরও ১০টি। আর মাওয়া প্রান্তের সংযোগ সেতুর পাইল বসেছে ৯৪টি।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য