artk
৫ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬:০৫ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

উপকূলের অনেকই জানেন না নারী দিবসের তাৎপর্য

পটুয়াখালী সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৭২৪ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ০৮ মার্চ ২০১৮ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৭২৯ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ০৮ মার্চ ২০১৮


উপকূলের অনেকই জানেন না নারী দিবসের তাৎপর্য - নারী

কিছুদিন পরেই বন্ধ হয়ে যাবে শুটকী পল্লীর চাতাল। এনিয়ে এখনই দুশ্চিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন শাহানা বেগম (৩৮)। শ্রমানুযায়ী পারিশ্রমিক কম হলেও বছরের ছয় মাসের এ কাজ তার স্বামীহীন পরিবারের মুখে জোগাত খাদ্য। বেতন যাই হোক না কেন পরিবারের খাবারের নিশ্চয়তায় তাকে খুঁজতে হবে নতুন কাজ।

ধানের চাতালে কাজ করছেন বিধবা আয়শা বেগম(৪৮)। প্রখর রোদে সকাল থেকে রাত অবধি দিয়ে যাচ্ছেন হাড়ভাঙা খাটুনি। মাসের ত্রিশ দিনই দিতে হচ্ছে এ কঠোর শ্রম। প্রতিমাসে ৬ হাজার টাকা বেতনে চলে পুত্র কন্যাদের নিয়ে রাস্তার পাশের বসতি ঘরের জীবন। সবার মুখে দুমুঠো খাবার তুলে দিতে পেরে খুশী আয়েশা বেগম।

আরেক নারী জুলেখা (৪২)। স্বামী দিনমজুর। যখন যে কাজ পান তাই করেন। একই অবস্থা জুলেখার। সকাল থেকে স্বন্ধ্যা প্রতিদিন খাটুনিতে সমান রোজগার মেলেনা। তবুও তৃপ্ত তিনি। দু’জনের আয়ে বেরিবাঁধের ঝুপড়ি ঘরের সংসারের সবার মুখে অন্ন জোটে।

এমন অসংখ্য নারী রয়েছেন পটুয়াখালীর উপকূলীয় এলাকায়। যারা উপকূলীয় জীবনযাত্রায় কঠোর সংগ্রামে আয় রোজগার করে যাচ্ছেন। কেউবা নেট জালে পোনা শিকার করছে, খালে-নদীতে মাছ শিকার করছেন, ইটভাটাসহ বিভিন্ন নির্মাণ শ্রমিক হিসাবে কাজ করছেন। উপকূলের এসব দরিদ্র নারীদের কাছে শ্রম মূল্য মুখ্য বিষয় নয়। পরিবার সদস্যদের মুখে খাবার তুলে দেয়াই তাদের আসল উদ্দেশ্য। এখানেই তাদের সুখ। পরম তৃপ্তি।

১৯৭৫ সালের ৮মার্চ আন্তজার্তিক নারী দিবস হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে বিভিন্ন রাষ্ট্রকে দিবসটি পালনে আহ্বান জানায় জাতিসংঘ। এরপর থেকে নারীর প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা, নারী বৈষম্য, আর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক অধিকার প্রতিষ্ঠাসহ নারী শ্রমিকের অধিকার আদায়কে গুরুত্ব দিয়ে প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী এ দিবস পালন করা হয়। অথচ উপকূলের খেটে খাওয়া শ্রমজীবি এসব অনেক নারীরাই জানেনা বিশ্ব নারী দিবসের কথা।

তাদের মতে, কিসের আবার নারী দিবস? অতসত বুঝিনা, শুধু বুঝি সারাদিন গায়ে খেটে রোজগার করে সংসার চালানোর কথা। আর সংসারের সবাইকে নিয়ে খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকার কথা। এখানেই সুখ, পরম শান্তি।

কলাপাড়া উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তাসমিলা আক্তার জানান, সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্যদের প্রতিটা মহিলা বিষয়ক সভা নারী দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় নারীদের কাছে পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা অব্যাহত আছে।

নিউজবাংলাদেশ.কম/জেআর/এসজে/

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত