artk
৫ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সোমবার ২০ আগস্ট ২০১৮, ১:১৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম

অ্যাসাঞ্জকে নাগরিকত্ব দিয়ে ‘ব্যাপক ঝামেলায়’ ইকুয়েডর

বিদেশ ডেস্ক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৭৫১ ঘণ্টা, সোমবার ২২ জানুয়ারি ২০১৮


অ্যাসাঞ্জকে নাগরিকত্ব দিয়ে ‘ব্যাপক ঝামেলায়’ ইকুয়েডর - বিদেশ

চলতি মাসের শুরুতে উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে নাগরিকত্ব দেয় ইকুয়েডর। এখন এই অ্যাসাঞ্জকেই ‘সমস্যা’ বলছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট লেনিন মোরেনো। রোববার (২১ জানুয়ারি) টেলিভিশন নেটওয়ার্ককে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “তিনি (অ্যাসাঞ্জ) আমার সরকারের জন্য ব্যাপক ঝামেলা তৈরি করেছেন।”

লেনিন মোরেনো বলেন, ‘এ বিষয়ে খুব অল্প সময়ের মধ্যে আমরা ইতিবাচক ফলাফল পাব বলে আশা করছি।’ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

লাখ লাখ গোপন নথি ফাঁস করে হইচই ফেলে দেওয়া ওয়েবসাইট উইকিলিকসের এই প্রতিষ্ঠাতা গত পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে আছেন। গ্রেপ্তার এড়াতে ইকুয়েডরের রাজনৈতিক আশ্রয়ে ওই দূতাবাসে অবস্থান করছেন তিনি। সম্প্রতি তাকে কূটনৈতিক মর্যাদা দিতে যুক্তরাজ্যকে অনুরোধ জানায় ইকুয়েডর। কিন্তু তা নাকচ হওয়ায় অ্যাসাঞ্জকে জানুয়ারিতেই নাগরিকত্ব দেয় ইকুয়েডর।

অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত অ্যাসাঞ্জ যুক্তরাষ্ট্র সরকারের বহু গোপন নথি উইকিলিকসে ফাঁস করে দিয়ে ঝড় তোলেন। এর কিছুদিন পর সুইডেনে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা হয়। ওই মামলায় বিচারের জন্য যুক্তরাজ্য সরকার তাকে সুইডেনের কাছে হস্তান্তর করতে যাচ্ছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে আশ্রয় নেন অ্যাসাঞ্জ। অ্যাসাঞ্জ ও তার শুভাকাঙ্ক্ষীদের আশঙ্কা ছিল, সুইডেনে ফেরত পাঠানো হলে সেখান থেকে তাকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠিয়ে দেয়া হবে এবং নথি ফাঁসের জন্য তাকে দণ্ডিত করা হবে।

সুইডেনে অবশ্য অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে সেই মামলা প্রত্যাহার করা হয়েছে। লন্ডনে জামিনের শর্ত লঙ্ঘন করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। দূতাবাস থেকে বের হলেই তাকে গ্রেপ্তার করতে পারবে ব্রিটিশ পুলিশ। এ কারণে অ্যাসাঞ্জ সেখানেই আছেন।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য