artk
৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, রোববার ২২ জুলাই ২০১৮, ৩:১৯ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

নয় বছরে এডিপির আকার বেড়েছে ৪৩৮ শতাংশ

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ০৯২১ ঘণ্টা, শুক্রবার ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২০৩৭ ঘণ্টা, শুক্রবার ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭


নয় বছরে এডিপির আকার বেড়েছে ৪৩৮ শতাংশ - বিশেষ সংবাদ

গত নয় বছরে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার ও ব্যয় বহুগুণ বেড়েছে। চলতি বছর মূল এডিপির আকার হচ্ছে ১৫৩৩৩১.২৫ কোটি টাকা যা অর্থবছর ১০-এ ছিল ২৮৫০০ কোটি টাকা। এই বৃদ্ধির হার ৪৩৮ শতাংশ বলে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়।

জানা যায়, ২০০৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত ২৪৪টি একনেক বৈঠকে ১৮১৪টি উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। এতে সার্বিক অর্থের পরিমাণ হচ্ছে ১৪১৬৪৭৯.৭৯ কোটি টাকা। একই সময়ে সংশ্লিষ্ট পরিকল্পনামন্ত্রীরা তাদের এখতিয়ারের ১২৭৮৬.১৯ কোটি টাকায় প্রায় ৪৬৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছেন।

এদিকে, ২০১৭ সালের ৩ জানুয়ারি থেকে ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ২৭টি একনেক বৈঠকে ৪৮৩৮৯৫.৭ কোটি টাকায় ২৫৩টি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে।

এছাড়া, ২০০৯ সালের ৩০ এপ্রিল থেকে ২০১৭ সালের ২০ জুনের মধ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (একনেক) ২৩টি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান নয় বছরে এডিপির এই বৃদ্ধিকে বর্তমান সরকারের বিরাট সাফল্য হিসেবে অভিহিত করে বলেন, “বিশ্বের অনেক দেশ বাংলাদেশের এ ধরনের সাফল্যে বিস্মিত।”

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) সাবেক মহা-পরিচালক ড. মুস্তাফা কে মুজেরী বলেন, “সরকারের ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে গড়ে তোলার ঘোষণা এবং ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি অর্জনের লক্ষ্য বিবেচনায় এডিপির আকার বেড়েছে।”

তিনি আর্থিক বছর ২০১০-এর সংশোধিত আকার থেকে বর্তমান অর্থবছরে এডিপি’র হার ৪৩৮ শতাংশ বৃদ্ধির প্রশংসা করেন।

বর্তমানে ইনস্টিটিউট ফর ইনক্লুসিভ ফিন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (ইনএম) নির্বাহী পরিচালক মুজেরী জিডিপিতে সরকারি বিনিয়োগের হার বৃদ্ধির পাশাপাশি সরকারি তহবিলের ব্যবহার, গুণগত মান ও নির্ধারিত সময়ে প্রকল্প সম্পন্নের ওপর গুরুত্বারোপের পরামর্শ দিয়ে বলেন, “সরকারকে উন্নয়নের সুফল পেতে প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে নজর দিতে হবে।”

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের ইম্পিলিমেন্টেশন, মনিটরিং ও ইভ্যুলিয়েশন ডিভিশনের (আইএমইডি) সচিব মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, “আইএমইডি এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি সক্রিয়।”

তিনি বলেন,“ পরিকল্পনামন্ত্রী এ এইচ এম মুস্তফা কামাল উন্নয়ন প্রকল্প আরো গতিশীল করতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বাস্তবায়ন সংস্থাগুলোর সঙ্গে বৈঠক করছেন।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত