artk
৭ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রোববার ২১ জানুয়ারি ২০১৮, ৪:৫৫ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

২৮ আইটি পার্কে ৩ লাখ কর্মসংস্থানের পরিকল্পনা

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৩১১ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৬৫২ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭


২৮ আইটি পার্কে ৩ লাখ কর্মসংস্থানের পরিকল্পনা - বিশেষ সংবাদ
শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক

সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য অর্জনে দেশব্যাপী নির্মীয়মান ২৮টি হাইটেক ও আইটি পার্কে প্রায় তিন লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিকল্পনা করছে। নির্মাণাধীন পার্কগুলোর মধ্যে ইতোমধ্যে জনতা টাওয়ার সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক ও শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

আইসিটি বিভাগ সূত্র জানায়, রাজধানীর কাওরান বাজারে ২০১৫ সালে চালু হওয়া জনতা টাওয়ার টেকনোলজি পার্কে ১৫টি স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক আইটি কোম্পানি এবং ৫০টি প্রারম্ভিক কোম্পানি বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় স্পেস পেয়েছে।

যশোরে চলতি মাসে উদ্বোধন করা শেখ হাসিনা টেকনোলজি পার্কে বিদেশিসহ মোট ৪১টি কোম্পানি প্রয়োজনীয় স্পেস পেয়েছে।

আইসিটি বিভাগ সূত্র জানায়, জনতা টাওয়ারের প্রারম্ভিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে একটি বেসরকারি টেলিকম অপারেটরের মাধ্যমে বিভিন্ন সহায়তা দেয়া হচ্ছে। তাদের বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট সংযোগসহ বিনামূল্যে স্পেস দেয়া হয়েছে। তাদের মেনটরিং সহায়তাও দেয়া হচ্ছে।

শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের ১৫ তলাবিশিষ্ট ভবনে আন্তর্জাতিক থ্রি-স্টার মানের আবাস, ব্যায়ামাগার, ক্যান্টিন ও এ্যাম্ফিটিয়েটার ও ৩৩ কেভিএ বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ ১২ তলা ডরমেটরি নির্মিত হয়েছে।

আইসিটি বিভাগের মুখপাত্র মো. আবু নাছের বলেন, “সরকার তিন হাজার ৫৩০ জনের চাকরির সংস্থানের জন্য ১২টি সংস্থা ও বেসরকারি ইনস্টিটিউটকে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক হিসেবে ঘোষণা করেছে। এসব পার্কও সরকারি হাই-টেক ও সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের মতো সুবিধা ভোগ করবে।”

তিনি বলেন, “সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বে (পিপিপি) গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটির প্রাথমিক অবকাঠামো নির্মাণ চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এ পর্যন্ত এ পার্কে নয়টি কোম্পানিকে স্পেস বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধু সিলিকন সিটি ও সিলেট ইলেকট্রোনিক্স সিটির নির্মাণ কাজ প্রর্ণোদমে চলছে।”

এছাড়া, ১২ জেলায় আইটি-হাইটেক পার্ক এবং সাতটি স্থানে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনক্যুবেশন সেন্টার নির্মাণেরও কাজ চলছে।

এ বিষয়ে আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন “২৮টি পার্কের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে আইটি শিল্পের জন্য ২৮ লাখ ৭২ হাজার বর্গফুট স্পেস গড়ে উঠবে। এতে প্রায় তিন লাখ মানুষের চাকরির সুযোগ সৃষ্টি হবে।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য