artk
৮ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সোমবার ২৩ জুলাই ২০১৮, ৩:৪৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম

চতুর্থ শিরোপার হাতছানি মাশরাফির
ফাইনালে ঢাকা-রংপুর

স্পোর্টস রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২২০৫ ঘণ্টা, সোমবার ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৩৫৩ ঘণ্টা, মঙ্গলবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৭


ফাইনালে ঢাকা-রংপুর - খেলা

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলের পঞ্চম আসরের শিরোপার লড়াইয়ে মুখোমুখি হচ্ছে সাকিবের ঢাকা ডায়নামাইটস এবং মাশরাফির রংপুর রাইডার্স। সোমবার দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ৩৬ রানে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করলো রংপুর।

আগামী মঙ্গলবার মিরপুরে সন্ধা ছয়টায় বিপিএলের জমজমাট ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

বিপিএলের ফাইনালে নতুন মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। ফাইনালে ঢাকাকে হারালেই চতুর্থবার শিরোপা জেতা হবে মাশরাফির। তার নেতৃত্বেই বিপিএলের দুই শিরোপা জিতেছে ঢাকা। তৃতীয়বার মাশরাফি কুমিল্লার হয়ে মাঠে নেমেই টানা তৃতীয় শিরোপা জিতে নেন। গত আসরে মাশরাফি কুমিল্লার হয়ে খেলেছেন কিন্তু শিরোপা ঘরে তোলে সাকিব আল হাসানের ঢাকা।

মিরপুরে দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ার ম্যাচে রংপুরের বিপক্ষে ১৯৩ রানের লক্ষ্যমাত্রায় ব্যাটিংয়ে নেমে ২০ ওভারে ১৫৬ রানে অলআউট হয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বিপিএলের শুরু থেকেই দারুণ ক্রিকেট উপহার দিয়ে পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে ছিল তামিম ইকবালের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। কিন্তু শেষ মহুর্তে এসে আর দাঁড়াতে পারেনি কুমিল্লার দলটি। প্রথম কোয়ালিফাইয়ারে সাকিবের ঢাকার সাথে তারা হেরেছে ৯৫ রান। দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারেও হার মেনে বিপিএল থেকে বিদায় তামিমরা।

এদিন ফাইনালের স্বপ্ন নিয়ে শুরুতেই ব্যাটংয়ে ঝড় তোলেন ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন কুমার দাস। ওপেনিং জুটিতে ৪.৫ ওভারে ৫৪ রান সংগ্রহ করে তারা। অবশ্য তামিম ইকবাল শুরুতেই নিশ্চিত এলবিডাব্লিউর শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু আম্পায়ারের ভুলে জীবন পান তিনি। তামিম ১৯ বলে ছয় বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ৩৬ রান করে মাশরাফির বলেই সাজঘরে ফেরেন। ওয়ানডাউনে ব্যাটিংয়ে নেমে শুন্য রানে বিদায় নেন ইমরুল কায়েস।

এরপর শোয়েব মালিক ১০ রান করে বিদায় নেন। দলীয় ৯৬ রানের মাথায় ব্যাক্তিগত ৩৯ রান করে আউট হন লিটন কুমার। ২৮ বলে তার ইনিংসে তিনটি বাউন্ডারি ও দটি ছক্কা রয়েছে। শেষ মহুর্তে মারলন স্যামুয়েলস ও বাটলা অসাধারন ব্যাটিংয়ে উপহার দেয়। শেষ চার ওভারে জয়ের জন্য কুমিল্লার প্রয়োজন হয় ৬০ রান। এরপর বাটলার ২৬ ও স্যামুয়েলস ২৭ রানে বিদায় নিলে কুমিল্লার ফাইনালের স্বপ্ন ভেস্ত যায়। রংপুরের হয়ে রুবেল হোসেন সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট শিকার করেন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ১৯৩ রানের লক্ষ্যমাত্রা বেধে দিয়েছে রংপুর রাইডার্স। সোমবার কুমিল্লার বিপক্ষে বাঁচা মরার ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছে রংপুরের ওপেনার জনসন চালর্স। বিপিএলের এবারের আসরে এটি দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। এর আগে রংপুরের হয়ে আসরের প্রথম সেঞ্চুরি করেন ক্রিস গেইল।

আগের দিন করা ৭ ওভারে এক উইকেটে ৫৫ রান নিয়ে সোমবার ব্যাটিংয়ে নেমে চালর্স ও ম্যাককলামের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে তিন উইকেট হারিয়ে ২০ ওভারে ১৯২ রান সংগ্রহ করেছে রংপুর রাইডার্স। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ক্রিস গেইল মাত্র তিন রানেই বিদায় নেন। ১০ বলে খেলে তিনি মেহেদি হাসানের শিকার হন। ওপেনার জনসন চার্লস ৪৬ ও ব্র্যান্ডন ম্যাককালাম ৪ রান নিয়ে সোমবার দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিং শুরু করে।

ব্যাটিং নেমে শুরু থেকেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেন রংপুরের দুই ব্যাটসম্যান। দলীয় ১৭৮ রানের মাথায় ত্বিতীয় উইকেট হারায় রংপুর। ম্যাককলাম ৪৬ বলে এক বাউন্ডারি ও ৯ ছক্কায় ৭৮ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে হাসান আলীর বলে বোল্ড আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন। তবে জনসন চালর্স ৬৩ বলে ৯ বাউন্ডারি ও ৭ ছক্কায় ১০৫ রান করে অপরাজিত থাকেন।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসএস/এসজে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য