artk
৪ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সোমবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ১:০৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম

প্রতিবেশীকে ফাঁসাতে ভাগ্নিকে হত্যা: মামার মৃত্যুদণ্ড

গাজীপুর সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১২৪৪ ঘণ্টা, বুধবার ২২ নভেম্বর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৩৫৬ ঘণ্টা, বুধবার ২২ নভেম্বর ২০১৭


প্রতিবেশীকে ফাঁসাতে ভাগ্নিকে হত্যা: মামার মৃত্যুদণ্ড - জাতীয়

গাজীপুরের শ্রীপুরে দুই বছর আগে জমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিবেশীদের ফাঁসাতে ভাগ্নিকে হত্যার দায়ে মামার মৃত্যুদণ্ড ও দুজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ এ কে এম এনামুল হক এ রায় ঘোষণা করেন।

নিহত নাজমীন (৭) উপজেলার আক্তারপাড়া এলাকার আক্কাছ আলীর মেয়ে।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত রিপন মিয়া (৩৪) উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকার হাসমত আলী ওরফে হাশেমের ছেলে।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন বগুড়া সদরের ভাটকান্দি এলাকার রহিমের ছেলে রবিউল ইসলাম (২১) ও শেরপুরের ঝিনাইগাতীর দীঘিরপাড় এলাকার মোস্তফার ছেলে মোজাফফর (২০)। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

রায়ে একই সাথে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তকে ১০ হাজার এবং যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তদের পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা ও অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, নাজমীন চকপাড়ায় নানার বাড়িতে থেকে স্কুলে পড়ত। জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিবেশী করিম গংদের ফাঁসাতে ২০১৫ সালের ২৯ অক্টোবর গভীর রাতে রিপন মুখে গামছা বেঁধে ও অপর দুই আসামি পুলিশ পরিচয়ে বাড়িতে যান। নাজমীন তার নানী মিনুজার (রিপনের মা) সঙ্গে ঘুমিয়ে ছিল। রাত আড়াইটার দিকে দণ্ডপ্রাপ্তরা মিনুজাকে ঘরের দরজা খুলতে বলেন। তিনি দরজা খুললে নাজমীনকে তারা জোর করে উঠানে নিয়ে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করেন।

পরে নাজমীনের মা আছমা বেগম বাদী হয়ে ঘটনার পরদিন প্রতিবেশী আজগর আলীর ছেলে আব্দুল করীম, আব্দুল কাদীর ও মৃত একিন আলীর ছেলে আব্দুল মোতালেবকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।

পরে তদন্তকারী কমকর্তা এসআই খন্দকার আমিনুর রহমান নেপথ্য ঘটনা উদঘাটন করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। তাতে এজাহারভুক্ত তিন আসামির সবাই অব্যাহতি পান। মামলায় আটজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) হারিছ উদ্দিন আহম্মদ ও আসামি পক্ষে শাহ মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম এবং ওয়াহিদুজ্জামান আকন তমিজ মামলা পরিচালনা করেন।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত