artk
৪ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সোমবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:৫১ অপরাহ্ন

শিরোনাম

লক্ষ্মীপুরে বন্ধুদের নিয়ে সাবেক স্ত্রীকে রাতভর গণধর্ষণ

লক্ষ্মীপুর সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২১১০ ঘণ্টা, শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৭


লক্ষ্মীপুরে বন্ধুদের নিয়ে সাবেক স্ত্রীকে রাতভর গণধর্ষণ - জাতীয়

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে আবুল কালাম (৩৫) নামে তালাকপ্রাপ্ত এক যুবক তিন বন্ধুকে নিয়ে তার সাবেক স্ত্রীকে অপহরণ করে মাথার চুল কেটে নির্যাতন ও গণধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে নির্যাতিতা নারীকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর আগে শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলা তোরাবগঞ্জ এলাকা থেকে ওই নারীকে অপহরণ করে রাতভর গণধর্ষণ করা হয়।

নির্যাতিত ওই নারী কমলনগর উপজেলার চর কালকিনি গ্রামের এক দরিদ্র কৃষকের মেয়ে। তার ছয় ও আট বছর বয়সী দুটি ছেলে-মেয়ে আছে। অভিযুক্ত আবুল কালাম পার্শ্ববর্তী তোরাবগঞ্জ এলাকার আনোয়ার আলীর ছেলে।

নির্যাতিতার মা বলেন, “১০ বছর আগে আবুল কালামের সাথে আমার মেয়ে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে একাধিকবার নানা অজুহাতে যৌতুক নেয় আবুল কালাম। এরপর আরও যৌতুকের দাবি করতে থাকে। গত বছর ৫০ হাজার টাকার যৌতুকের জন্য চাপ দেয়। টাকা না দেয়ায় আমার মেয়েকে নির্যাতন করতে থাকে কালাম। পরে আদালতের মাধ্যমে স্বামীকে তালাক দেয় আমার মেয়ে। এ কারণে ওই আবুল কালাম তার আরও তিন বন্ধুকে নিয়ে আমার মেয়ে অপহরণ, চুলকেটে নির্যাতনের পর গণধর্ষণ করে।”

এদিকে, নির্যাতিতা ওই নারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাংবাদিকদের বলেন, “শুক্রবার বিকেলে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার শাহপুর গ্রামের আমার ভাইয়ের বাসায় যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হই। সন্ধ্যা তোরাবগঞ্জ এলাকায় পৌঁছলে আগ থেকে ওৎপেতে থাকা আমার তালাকপ্রাপ্ত স্বামী তার তিনজন বন্ধুকে নিয়ে আমাকে অপহরণ করে তার বাড়ির একটি ঘরে বন্দি করে রাখে। এসময় সে আমাকে মারধর ও চুল কেটে নির্যাতন করে। পরে তারা রাতভর পালাক্রমে আমাকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে আমি জ্ঞান হারাই। ভোরে তারা আমাকে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের কাছ থেকে আমার মা খবর পেয়ে আমাকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।”

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, “নির্যাতিতা ওই নারীর চিকিৎসা চলছে। ধর্ষণের বিষয়টি পরীক্ষা করলে জানা যাবে।”

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকুল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, “এ ব্যাপারে কেউ থানা অভিযোগ করেনি। বিষয়টি শুনেছি। জড়িতদের আটকের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসআর/এসডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত