artk
৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

পোলার্ড-জহুরুলের ব্যাটে ঢাকার জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৬৫৯ ঘণ্টা, মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১০০২ ঘণ্টা, বুধবার ১৫ নভেম্বর ২০১৭


পোলার্ড-জহুরুলের ব্যাটে ঢাকার জয় - খেলা

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলের ১৩তম ম্যাচে টানটান উত্তেজনার ম্যাচে খুলনা টাইটান্সকে ৪ উইকেটে হারালো বিপিএলের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন স্বাগতিক ঢাকা। ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন ঢাকার জহুরুল ইসলাম। বিপিএলে চার ম্যাচ খেলে তিন জয় নিয়ে পয়েন্ট তালিকায় সবার ওপরে চলে গেলো তারা। অন্যদিকে সমান খেলায় খুলনার জয় দুটি।

মঙ্গলবার মিরপুরে জয়ের জন্য ১৫৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৫১ রানে টপঅর্ডারের ৫ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পরে স্বাগতিক ঢাকা। ওপেনার এভিন লুইস ৪, সুনীল নারাইন ৭, শাহীদ আফ্রিদি ১, ক্যামেরন ডেলপোর্ট ২, ও সাকিব আল হাসান ২০ রান করে সাজঘরে ফেরেন। মিরপুরের গ্ল্যারিতে ঢাকার দর্শকরা তখন হতাশ!

সেই মুহূর্তে জহুরুল ইসলামকে সাথে নিয়ে ব্যাটিংয়ে ঝড় তোলেন কাইরন পোলার্ড। ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের ১১তম ওভারে মাহদুউল্লার ব্যক্তিগত দ্বিতীয় ওভারে চারটি ছক্কা হাঁকান তিনি। ১৯ বলে পূর্ণ করেন হাফ সেঞ্চুরি। দলীয় ১১৪ রানের মাথায় ৫৫ রান করে শফিউলের বলে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন পোলার্ড। ২৪ বলে তার ঝড়ো ইনিংসে তিনটি বাউন্ডারি ও ছয়টি ছক্কা রয়েছে।

ঝড়ো ইনিংস খেলে পোলার্ড বিদায় নিলে শেষ ‍মুহূর্তে ম্যাচের চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। শেষ দিকে জহুরুল ইসলাম ও মোসাদ্দেক হোসেনের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে ঘরের মাঠে জয় তুলে নেয় ঢাকা। জিততে শেষ ৬ বলে ঢাকার প্রয়োজন ৬ রান। ঢাকার হাতে তখনও চার উইকেট! ওভারের প্রথম তিন বলে মাত্র এক রান। শেষ তিন বলে দরকার ৫! পরের বলে সিঙ্গেল এক।

শেষ দুই বলে প্রয়োজন চার রান আর পঞ্চম বলেই নান্দনিক চারে দলকে জিতিয়ে সেজদায় লুটিয়ে পড়েন জহুরল ইসলাম। ৩৯ বলে ৫ বাউন্ডারিতে ৪৫ রান করে অপরাজিত থাকেন জহুরুল ইসলাম। অন্যদিকে মোসাদ্দেক অপরাজিত ১২ বলে ১৪ রান নিয়ে। খুলনার পক্ষে শফিউল ইসলাম চার ওভারে ২৪ রানে দুটি উইকেট নেন।

এর আগে মিরপুর শেরে-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে কার্লোস ব্রাফেটের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৫৬ রান সংগ্রহ করে খুলনা। ব্যাটিংয়ে নেমে নাজমুল হাসান শান্ত ও মাইকেল ক্লিঙ্গারের ওপেনিং জুটি করে ২২ রান। মাইকেল ব্যক্তিগত ১০ রানে সাকিব আল হাসানের বলে রনির হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। ওয়ানডাউনে নেমে মাত্র দুই রান করে আবু হায়দারের বলে সাকিবের তালুবন্দী হন ধীমান ঘোষ। চতুর্থ উইকেট জুটিতে রাইলি রুশো ও শান্ত দারুণ ব্যাটিং উপহার দেন।

ইনিংসের ৯.৪তম ওভারে দলীয় ৭১ রানের মাথায় শান্ত ২৪ রান করে সুনীল নারাইনের বলে স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হন। এরপর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১৪ রান করে বিদায় নেন। শেষ মুহূর্তে আরিফুল হককে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং ঝড় তোলেন কার্লোস ব্রাফেট। আরিফ চার বলে চার রান করে অপরাজিত থাকলেও কার্লোস মাত্র ২৯ বলে চার বাউন্ডারি ও ছয় ছক্কায় ৬৪ রানে অপরাজিত থাকেন। বল হাতে ঢাকার হয়ে আবু হায়দার রনি নেন দুটি উইকেট। এছাড়া আফ্রিদি, সাকিব ও সুনীল নেন একটি করে উইকেট।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসএস/এএইচকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য