artk
৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

‘পুরস্কার লাভের আশায় সরকার লোক দেখানো সহায়তা করছে রোহিঙ্গাদের’

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৬৪১ ঘণ্টা, শনিবার ২১ অক্টোবর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১০৩৮ ঘণ্টা, রোববার ২২ অক্টোবর ২০১৭


‘পুরস্কার লাভের আশায় সরকার লোক দেখানো সহায়তা করছে রোহিঙ্গাদের’ - রাজনীতি

দেশের জনগণ ও বিশ্ব সম্প্রদায় রোহিঙ্গাদের ওপর দমন পীড়ন ও জাতিগত নিধনের বিষয়ে সোচ্চার হওয়ায় আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভের আশায় সরকার লোক দেখানো সহায়তার হাত বাড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেছেন, বর্তমান সরকারকে ক্ষমতা জবরদখলকারী। রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে ক্ষমতাসীনদের নৈতিক কোনো অবস্থান তাদের নেই।

শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি। ‘জিয়া পরিষদ’ এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আমির খসরু বলেন, “যে সরকারটি অনির্বাচিত, যে সরকারটি ক্ষমতা জোর করে দখল করেছে এবং আবার জোর করে দখল করার পাঁয়তারা করছে, যে সরকারটি বাংলাদেশের মানুষকে প্রতিনিয়ত গুম, খুন, হত্যার মধ্যে আছে,…মানবাধিকারে বিশ্বাস করে না, আইনের শাসনে বিশ্বাস করে না, সেই সরকারের কোনো নৈতিক অবস্থান নাই আজকে এ সমস্যা সমাধানে।”

তিনি বলেন, “শুরুতে সরকার রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী ও ইসলামী জঙ্গি অভিহিত করে মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে একযোগে অভিযানের প্রস্তাব দিয়েছিল। পরবর্তী সময়ে দেশের জনগণ ও বিশ্ব সম্প্রদায় রোহিঙ্গাদের ওপর দমন পীড়ন ও জাতিগত নিধনের বিষয়ে সোচ্চার হলে আন্তর্জাতিক পুরস্কার লাভের আশায় লোক দেখানো সহায়তার হাত বাড়িয়েছে সরকার।”

মিয়ানমারের রাখাইনে নতুন করে সেনা অভিযান শুরুর পর গত ২৫ অগাস্ট থেকে এ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। ওই অভিযানকে জাতিসংঘ চিহ্নিত করেছে ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ হিসেবে।

মিয়ানমারের রাজধানী নেপিডোতে দেশটির নেত্রী সু চির সঙ্গে বৈঠকে সংকট অবসানে জরুরি পদক্ষেপের আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রী মার্ক ফিল্ড। এখনই সহিংসতা বন্ধ, রাখাইনে মানবিক ত্রাণ সহায়তা প্রবেশের অনুমতি এবং কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নসহ তিনটি প্রস্তাব দিয়েছেন।

এখনও পর্যন্ত মিয়ানমার থেকে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের জনস্রোত অব্যহত আছে কক্সবাজারসহ দেশের পার্বত্য অঞ্চলে। এই জনগোষ্ঠীকে ফেরত নেয়ার বিষয়ে দৃশ্যত কোনো সাড়া দেয়নি মিয়ানমার। বিষয়টি নিয়ে দেশটির নেতা অং সান সু চি কিংবা জেনারেলদের স্পষ্ট কোনো বিবৃতিও পাওয়া যায়নি।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এএইচকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত