artk
৮ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সোমবার ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ৬:২১ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

পাবনায় ব্যবসায়ী হত্যার দায়ে ৬ জনের যাবজ্জীবন

পাবনা সংবাদাদাত | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৮০৯ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১২ অক্টোবর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২১২৯ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১২ অক্টোবর ২০১৭


পাবনায় ব্যবসায়ী হত্যার দায়ে ৬ জনের যাবজ্জীবন - কোর্ট-কাচারি

পাবনায় ব্যবসায়ী তারেক আলীকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যার দায়ে ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে পাবনার বিশেষ জজ আদালতের বিচারক লিয়াকত আলী মোল্লা এ রায় ঘোষণা করেন।

এসময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার আবদুল রকিব এবং মামলায় আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ বাবু ও  আলতাফ হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- সদর উপজেলার ভাঁড়ারা ইউনিয়নের বকশীপুর গ্রামের আব্দুল হামিদ খাঁর ছেলে আতিক হোসেন (৩৮), গয়েশপুর ইউনিয়নের হরিনারায়ণপুর গ্রামের তাহের আমিনের ছেলে মকবুল হোসেন (৫৫), জোতগড়ি জালালপুর গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে আসলাম উদ্দিন (৩৭), জালালপুর গ্রামের রশিদের ছেলে জামাল হোসেন, একই গ্রামের ইব্রাহীমের ছেলে শাহজাহান ওরফে কালাই (৩৫) ও মনোহরপুর গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে তোরাব হোসেন ওরফে তুরি কানা (৫৫)।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি সদর উপজেলার জালালপুর বাজারে প্রকাশ্য দিবালোকে ব্যবসায়ী তারেক আলীকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে চরমপন্থী সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনার পর তার ভাই হারুন খাঁ বাদী হয়ে সদর থানায় ১২ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘদিন সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের বিচারক ছয়জনকে অভিযুক্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও তিনজনকে বেকসুর খালাস দেন। মামলা চলাকালীন জালালপুর গ্রামের আক্কাস আলীর ছেলে মাহতাব উদ্দিনকে অব্যাহতি এবং মামলার অপর দুই আসামি জোতগরি গ্রামের ইজাম উদ্দিনের ছেলে সুবেদ ফজলু ও একই গ্রামের মৃত সোলায়মানের ছেলে আব্দুস সামাদ ক্রসফায়ারে নিহত হন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসজে/এএইচকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত