artk
৮ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সোমবার ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ১১:০৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম

চিকিৎসকদের আটকে রেখে রোগীকে পেটালো ছাত্রলীগ কর্মীরা

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ০৮৫৫ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১২ অক্টোবর ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১২৩৫ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১২ অক্টোবর ২০১৭


চিকিৎসকদের আটকে রেখে রোগীকে পেটালো ছাত্রলীগ কর্মীরা - জাতীয়

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকদের ঘরে তালাবদ্ধ করে দিয়ে জরুরি বিভাগের ভেতরে থাকা এক রোগীকে মারপিট করেছেন কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী। এতে রোগীকে বাঁচাতে গিয়ে হামিদুর রহমান (৩৫) নামে এক ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়েছেন।

বুধবার রাতে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে।

মারপিটের শিকার রোগীর নাম মজিবর রহমান (২৫)। তিনি বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দুওসুও পেট্রোলপাম্প এলাকার সাহির উদ্দীনের ছেলে।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মজিবর ও তার ভাই খলিলুর রহমান বালিয়াডাঙ্গী বাজারে একটি মোবাইলের দোকানের সামনে দাড়িয়ে ছিলেন। এসময় মহিষমারী গ্রামের পজির উদ্দীন খলিলুরের হাতে থাকা মোবাইল ফোনটি ছিনতাই করার সময় ধরা পড়েন।

বিষয়টি নিয়ে বুধবার বিকেল ৫টার সময় বড়বাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য ইসরাইলের নিকট সমঝোতার কথা থাকলেও পজির ও তার লোকজন উপস্থিত হননি।

আহত মজিবর বলেন, “সন্ধ্যায় আমি হোটেল আগমনীতে নাস্তা খাওয়ার জন্য গেলে পজির ও তার লোকজন আমার ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমার মাথা ফাটিয়ে দেয়। স্থানীয় লোকজন আমাকে উদ্ধার করে বালিয়াডাঙ্গী হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যায় এবং আমার বড় ভাই খলিলুর রহমান ও লতিফুর রহমানকে খবর দেয়। আমার বড় ভাইয়েরা হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনার নেতৃত্বে পজির, উজ্জ্বল, কামাল ও বেলাল লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তারদের আরেক রুমে আটকে রেখে আমাকে আবার বেধরক মারপিট শুরু করে।”

রোগীকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হওয়া হামিদুর রহমান বলেন, “আমি হাসপাতালের ওপর থেকে ওষুধ নেয়ার জন্য নিচে নামার সময় দেখি, ৫ জন সন্ত্রাসী জরুরি বিভাগের ভেতরে একজন রোগীকে লোহার রড ধারালো অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক মারপিট করছে। আমি বাঁচাতে গেলে সন্ত্রাসীদের আঘাতে আমার ডান হাত ভেঙে যায়।”

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী মিয়া বলেন, “হাসপাতালে কোনো রোগীর ওপর হামলা করা দুঃখজনক বিষয়। ছাত্রলীগের কোনো কর্মী যদি এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকে তাহলে দলীয়ভাবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

বালিয়াডাঙ্গী হাসপাতালের আরএমও আবুল কাসেম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, “এ রকম ঘটনা ইতিপূর্বে হাসপাতালে কোনোদিন ঘটেনি। সন্ত্রাসীরা ফিল্মি স্টাইলে এসে ডাক্তাদের জিম্মি করে রোগীকে মারপিট করে গেছে। বিষয়টি দুঃখজনক।

গুরুতর আহত মজিবর রহমানকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে রেফার করা হয় বলে জানান তিনি।

তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনার খবর পেয়ে বালিয়াডাঙ্গী থানার এসআই আজিজুল হক ঘটনাস্থলে আসেন।

থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, “পাঁচ জনকে আসামি করে বালিয়াডাঙ্গী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। জড়িতদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা চলছে।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত