artk
৫ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রোববার ২০ আগস্ট ২০১৭, ১১:১৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম

দুঃস্বপ্ন দেখছেন? জানুন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা

লাইফস্টাইল প্রতিবেদক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১১৪৮ ঘণ্টা, মঙ্গলবার ০৮ আগস্ট ২০১৭


দুঃস্বপ্ন দেখছেন? জানুন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা - লাইফস্টাইল

দর দর করে ঘাম ঝরছে। বিন্দু বিন্দু ফোঁটা করেও ঘাম জমাট বেঁধে রয়েছে চিবুকে, থুতনিতে। গলাটা শুকিয়ে কাঠ, পানির গ্লাসটাও মাথার কিনারায় টেবিলেই আছে, কিন্তু খুব করে চেয়েও তার নাগাল পাচ্ছেন না। এ তো মহা মুশকিল! অস্বস্তিকর একরকম টানাটানিতেই হঠাৎ চোখের পাতা জোড়ার উন্মোচন হলো। পুরো শরীর যেনো ঘাম ছেড়ে দিয়ে অবশ করে রেখে গেছে- সে আর কেউ নয়! সে আপনার সাথেই ছলনা করেই ডুবিয়ে রেখেছিল ঘুমের ঘোরে। সে-ই আপনার দুঃস্বপ্ন!

ঘুমের মধ্যে দুঃস্বপ্ন দেখতে পাওয়া

হ্যাঁ, আমাদের দুঃস্বপ্নগুলোয় আমাদের ঘুমের ঘোরে এসে নাড়া দিয়ে যায়। যাওয়ার আগে অবশ্য জানান নিয়ে যায় যে আপনি এতক্ষণ ঘুমিয়ে ছিলেন। একরাশ হতাশা, ভয় অথবা উৎকণ্ঠা নিয়েই দুঃস্বপ্নের স্বপ্নভঙ্গ ঘটে।

ছেলেবেলায় দাদী, নানী বিশেষত প্রবীণ-বয়স্কদের কাছ থেকেই অনেকেই হয়তোবা শুনে থাকবেন এমন সব অদ্ভুত ভবিষ্যৎ বাণী সম্বলিত কথাবার্তা যেসব শুনেই অনেকের মাঝে অনেকটা অজানা ফোবিয়া না চাইলেও জন্ম নিয়ে নেয়।

দুঃস্বপ্ন দেখে তীব্র ভয়ে ঘুম ভেঙে যাওয়া:

ভবিষ্যৎ বাণীগুলো অনেকটা এমন হয়ে থাকে- ভয়ঙ্কর প্রাণী স্বপ্নে আসলে বুঝতে হবে সামনে সমূহ বিপদ অপেক্ষা করছে। ঘরের কারো বিপদ স্বপ্নে দেখলে হয় পরের বিপদ! আবার পরের ঘরের কারো যদি বিপদ দেখেন তখন হয়ে যায় ঘরেই বিপদ! এক্ষেত্রে দাদী-নানীরা অবশ্য পরের দিনই দান-দক্ষিণা করতে আরম্ভ করতেন বৈকি।

ভয়ঙ্কর প্রাণী স্বপ্নে দেখে ঘুম ভেঙে যাওয়া:

এমন কোনো মানুষ এই ইহজগতে নেই বোধ করি যিনি কোনোদিন দুঃস্বপ্ন দেখেননি। ছোটবেলা থেকেই খুব পরিচিত দুঃস্বপ্ন হলো পরীক্ষার হলে খাতা দেওয়া এবং আপনার কিছুই লিখতে না পারা বা কলম না চলা, অথবা পরীক্ষার হলে সঠিক সময়ে পৌঁছাতে না পারার দুঃস্বপ্নও আমরা কম বেশি সকলেই দেখে এসেছি।

পরীক্ষাভীতি থেকে দুঃস্বপ্ন দেখা:

তাছাড়া আরও একটি দুঃস্বপ্ন নিশ্চয় আপনার সাথে আমার কমন পড়বে, আর সেটা হতে পারে কোনও উঁচু জায়গা বা পাহাড় থেকে পড়ে যেতে যেতে ঘুম ভেঙ্গে যাওয়া।

প্রথমেই বলে নিই, দুঃস্বপ্ন অর্থই হলো কোনো ভয়ঙ্কর স্বপ্ন বা অনুভূতি যা আমাদের বাস্তব জগতেরই প্রতিফলনস্বরূপ বলা চলে। আমরা প্রত্যেকেই জীবনের কোনো না কোনো সময় দুঃস্বপ্ন, ভয়ের স্বপ্ন দেখে থাকি যা আমাদের ভিতরে লুকিয়ে থাকা ভয়, দুঃশ্চিন্তা, নিরাপত্তাহীনতা, সিদ্ধান্ত নেওয়ার অক্ষমতার বাহ্যিক প্রতিরূপ। কিন্তু আমরা অনেকেই সঠিক জানি না যে কেন বা ঠিক কি কারণে এরকম দুঃস্বপ্নগুলো এসে রাতের ঘুম ভাঙ্গিয়ে দিয়ে যায়।

জীবনের যতো দুঃস্বপ্ন:

এসবের পেছনেই রয়েছে কিছু গবেষণালব্ধ কারণ। যেমন ক্যারল ওয়াশারম্যান নামের এক গবেষক জানান একটি মজার তথ্য। তিনি বলেন, যে রাতে তিনি চিংড়ি দিয়ে ডিনার সারতেন, সে রাতেই তিনি ভয়াবহ দুঃস্বপ্নে বিশ্রামহীন রাত পার করতেন। পরবর্তীতে তিনি চিংড়ি খাওয়া বন্ধ করে দেন এবং সে সব দুঃস্বপ্নের ইতি ঘটান। এর পেছনে যেটা গবেষণালব্ধ ফলাফল তিনি জানালেন সেটা ছিল এমন- তার প্রচন্ড অ্যালার্জি সমস্যা এবং সে সম্পর্কে তিনি সচেতন ছিলেন না। তাই তিনি চিংড়ি থেকেই মূলত দুঃস্বপ্নের ডানায় চেপে রাত্রি পার করতেন।

সুতরাং শুধুমাত্র অধিক দুশ্চিন্তা থেকেই নয়, অধিক অসচেতনতা থেকেও দুঃস্বপ্নের উৎপত্তি ঘটে। জেনে নিন কিছু দুঃস্বপ্নের কারণ কি কি হতে পারে!

ক. ঝড়ের রাতের দুঃস্বপ্ন

কোনো ঝড়, প্রচন্ড বজ্রপাত, বিদ্যুৎ চমকানো এর মাঝে আপনারই প্রতিচ্ছবি কি দেখেছেন কখনও? খুব পালিয়ে বাঁচতে চাইচেন কিন্তু পারছেন না তো?

উত্তর: চলমান জীবনের চাপ, উৎকণ্ঠা এসবেরই প্রতিচ্ছবি হলো এমন দুঃস্বপ্ন। যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘনঘটা আপনার জীবনে ঘটে যাওয়া যেকোনো অনির্ণেয় জটিলতাগুলোয় ঝড়ের প্রতিরুপ হয়ে স্বপ্নে এসে ভীড় জমায়। এক্ষেত্রে আপনার জটিলতার অবসানের সাথে সাথেই দুঃস্বপ্নের ইতি ঘটতে পারে। তা না হলে মনোরোগ বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হতে ভুলবেন না কিন্তু। কাউন্সেলিং এক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

চলমান জীবনের চাপ, উৎকণ্ঠা থেকে উদিত হয় প্রাকৃতিক দুর্যোগ সম্পর্কিত দুঃস্বপ্ন

খ. ধেয়ে আসা মৃত দেহ

স্বপ্নে কি আপনি খুব সম্প্রতি গত হওয়া নিকট প্রিয়জনকে দেখেছেন? অথবা এমন অশরীরী কিছু কি আপনাকে খুব ধাওয়া করে বেড়াচ্ছে? অথবা আপনাকেই আপনি মৃত দেখতে পাচ্ছেন স্বপ্নে- এমন কি কিছু ঘটেছে?

উত্তর: স্বপ্নে মৃতজনকে দেখা মানে আবেগের জগতে আপনার টানাপোড়েন চলছে, আর নিজের মৃত্যু দেখার অর্থ আপনার মানসিক জগতে কোনো নেতিবাচক ঘটনার ঘনঘটা চলছে। সাধারণত যাদের বয়স শেষ মুহূর্তে অথবা যাদের জীবন খুব সংকটাপন্ন সময়ে পৌঁছে গিয়েছে, মূলত তারাই এমন সব দুঃস্বপ্ন বেশি দেখে থাকেন। দুঃস্বপ্নে মৃত অশরীরীকে ছুটে আসতে দেখা

গ. গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা বা পরীক্ষার সময়সূচি ভুলে যাওয়া

সাধারণত ছাত্রজীবনের খুব পরিচিত দুঃস্বপ্ন বোধ হয় এই ধরণের স্বপ্নকে বললে বেশি একটা ভুল হবে না। পরীক্ষায় ফেল করা বা পরীক্ষার হলে কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে না পারা এই জাতীয় স্বপ্নের উদাহরণ।

উত্তর: বাহ্যিক চাপ বা নিজের কাছে নিজের প্রত্যাশা যখন অত্যধিক হয়ে যায় তখনই এই জাতীয় দুঃস্বপ্নের দেখা মেলে। এটা মূলত মনের ভেতরের না-বাচক অস্থিরতার বহিঃপ্রকাশ।

ঘ. দাঁত পড়ে যাওয়া এবং রক্ত পড়া:
স্বপ্নে দেখেছেন আপনার সামনের পাটির দাঁতগুলো সব বিশ্রীভাবে পড়ে গিয়েছে। খুব রক্ত ক্ষরণ হচ্ছে তাতে?

উত্তর: জীবনের নিরাপত্তাহীনতা অথবা উদ্বিগ্ন পরিস্থিতির কারণেই এমন দুঃস্বপ্ন এসে ধরা দেয়। দুঃস্বপ্নে দাঁত পড়ে যাওয়ার দৃশ্য উদ্বিগ্ন পরিস্থিতি থেকে উদ্ভুত বলে মনে করা হয়।

ঙ. দুঃস্বপ্নে আঘাত

কেউ আপনাকে মেরে নাক ফাটিয়ে দিয়েছে তো? হাজার চেষ্টা করেও তকে দু’টো দিতে পারলেন না আপনি!

উত্তর: এই রকম দুঃস্বপ্ন মূলত ব্যক্তিগত জীবনের কোনো দুর্বলতা থেকেই গড়ে উঠে। দুঃস্বপ্নে আপনার মস্তিষ্কের ইনজুরি বাস্তব জীবনের দুর্বলতার প্রতিচ্ছবি মাত্র।

চ. জীবন সঙ্গীর চলে যাওয়ার বা সন্দেহ মুহূর্তের দুঃস্বপ্ন

আপনার জীবন সঙ্গীকে কি অন্য কারো সাথে দেখতে পাচ্ছেন? নাকি আপনার গার্লফ্রেন্ড আপনাকে পাত্তা না দিয়ে উল্টো দিকে হেঁটে চলে যাই যাই করছে? ঠিক কোনটি দেখেছেন?

উত্তর: এমন দুঃস্বপ্নের অর্থই হলো আপনি চরম হতাশা আর নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এমনকি বিজ্ঞানীরা এটাও উল্লেখ করেছেন যে আপনার অবচেতন মন আপনাকে হয়তোবা জীবন সঙ্গী/সঙ্গিনীর অযোগ্য ভাবতে শুরু করেছে যা আপনার দুঃস্বপ্নের হয়েই বাসা বেঁধেছে।

ছ. কোনো প্রাণী বা এমন কোনো ফোবিয়াগ্রস্থ কীট দুঃস্বপ্ন

হতেই পারে আপনার তেলাপোকা, মাকড়সা, টিকটিকি অথবা সাপ, ব্যাঙ ইত্যাদি ফোবিয়া রয়েছে। তাই বলে তাদেরকে স্বপ্নে আসতে কেন হবে? ফোবিয়াগ্রস্ত লোকদের দুঃস্বপ্নে কীটপতঙ্গ দেখা।

উত্তর: এ ধরণের দুঃস্বপ্নে আপনিই কিন্তু বিজেতা। স্বপ্নে মাকড়সা দেখলেও ভয়কে জয় করতেও পারেন, আবার না ও করতে পারেন। তা নির্ভর করে আপনার মনের জোরের উপরেই। বুঝতে হবে কোনো নেতিবাচক চিন্তার বিরুদ্ধে আপনাকে রক্ষা করার মতো কোনো শক্তি আপনার জীবনে রয়েছে। স্বপ্নে সাপ দেখার বিবিধ অর্থ থাকতে পারে। তবে সাধারণত স্বপ্নে সাপ দেখলে আপনি বুঝবেন কোনো সমস্যাসঙ্কুল পরিস্থিতি থেকে আপনি ক্রমশ বেরিয়ে আসছেন।

জ. দুঃস্বপ্নে পতন

হঠাৎ কোনো পাহাড়চূড়া থেকে সমুদ্র বা সমতলে পড়তে পড়তে ঘুমটাই গেলো ভেঙ্গে? অবাক হবেন না আমি কি করে জানলাম ভেবে, আমিও কিন্তু অমন দুঃস্বপ্নের সারথি।

উত্তর: জীবনের স্বাধীনতা ও ক্ষমতা অপ্রাপ্তির অভাব অনুভব করলে এই ধরনের স্বপ্ন দেখতে পারেন। প্রত্যাশার কোনো সমাপ্তি নেই, সুতরাং এই দুঃস্বপ্নেরও ইতি নেই হয়তোবা! জীবনের কোনো বিষয়ের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললেও এমন স্বপ্ন ঘুরে ফিরে দেখতে পারেন।

ঝ. দেয়ালজুড়ে দুঃস্বপ্ন

স্বপ্ন দেখতে দেখতে হঠাৎ দেয়ালগুলো চেপে ধরেছে, ছাদটা নিচু হয়ে যাচ্ছে, নিঃশ্বাসটুকুন আটকে যেতে যেতেই ঘাম ছেড়ে যেন প্রাণ ফিরে এলো! হয়েছে কখনো এমনটি স্বপ্নের মাঝে?

উত্তর: আপনার ঘরের পরিবেশের প্রভাবই আপনার স্বপ্নে এসে ধরা দিচ্ছে। খুঁজে বের করুন তো আপনার ঘরেই অপছন্দের কি আছে?

ঞ. দুঃস্বপ্নে তাড়া

কেউ বা কারা যেন কিডন্যাপ করতে চাইছে? কিছুতেই মুখখানা স্পষ্ট না।

উত্তর: এই স্বপ্নে মাঝেই জীবনে কোনো অবস্থা বা পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে না পারার প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠে। পালিয়ে যাওয়াই একমাত্র বাঁচার পথ মনে হচ্ছে। দুঃস্বপ্নে কেউ তাড়া করছে যা পারিপার্শ্বিক জীবনের পরিস্থিতি তুলে ধরে।

আসলে আমাদের ঘুমের মাঝেই রয়েছে ৩টি পর্যায়। দুঃস্বপ্নের মুহূর্ত হল র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট (REM) অর্থাৎ ঘুমন্ত পর্যায়ের শেষ তৃতীয়াংশ। প্রথম পর্যায় হলো স্লিপ অনসেট, দ্বিতীয় পর্যায় পড়ে লাইট স্লিপ, তারপর তৃতীয় এবং চতুর্থ পর্যায় নিয়ে হয় ডিপ স্লিপ বা র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট স্টেজ। এই পর্যায়েই মূলত দুঃস্বপ্নগুলো দেখা হয়।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য