artk
৬ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৭:২৯ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

‘পাঠ্য বইয়ে একাত্তরের গণহত্যা তুলে ধরা আমাদের দায়িত্ব’

জেলা সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৮২১ ঘণ্টা, সোমবার ১৭ জুলাই ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২০৪৩ ঘণ্টা, সোমবার ১৭ জুলাই ২০১৭


‘পাঠ্য বইয়ে একাত্তরের গণহত্যা তুলে ধরা আমাদের দায়িত্ব’ - শিক্ষাঙ্গন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘উচ্চশিক্ষা কারিকুলামে ৭১ এর গণহত্যা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা সোমবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশিষ্ট লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির এবং পাকিস্তানের দুজন গবেষক মিস আনাম জাকারিয়া ও হারুন খালিদ এ আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট হলে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন অর রশিদ।

উপাচার্য ড. হারুন অর রশিদ বলেন, “১৯৭১ সালে বাংলাদেশে পাকিস্তানী বাহিনীর গণহত্যা মানব জাতির ইতিহাসে এক কলঙ্কময় ঘটনা। ওই সময় ৩০ লাখ বাঙালি নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়। ৩ লাখ মা-বোন তাদের সম্ভ্রম হারান। আর ১ কোটি গৃহহারা মানুষ শরণার্থী হয়ে ভারতে আশ্রয় নেয়। স্বাধীনতার জন্য বাঙালি জাতির নজিরবিহীন আত্মত্যাগ ও পাকিস্তানী বাহিনীর এই বর্বর গণহত্যা বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে শিক্ষা কারিকুলামে সঠিক চিত্র গুরুত্ব সহকারে অন্তর্ভুক্ত করা আমাদের জাতীয় দায়িত্ব। সেটি মনে রেখেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চশিক্ষা কারিকুলামে ‘স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস’ শীর্ষক একটি পূর্ণ কোর্স সকল শ্রেণির শিক্ষার্থীর জন্য আবশ্য পাঠ্য করা হয়েছে।”

সভায় শাহরিয়ার কবির তার আলোচনায় বলেন, “যেকোনো সংজ্ঞা বিচারে ৭১ এ পাকিস্তানী বাহিনীর নির্বিচার বাঙালি হত্যা ছিল একটি জাতিকে নিশ্চিহ্ন করার হত্যাকাণ্ড বা জোনোসাইড। পাকিস্তানের উচিত ছিল বহু পূর্বেই এজন্য বাঙালিদের কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়া। পাকিস্তানী দুই গবেষক মিস আনাম জাকারিয়া ও হারুন খালিদ বলেন, ৭১ এ বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যাকাণ্ড ছিল মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ।”

কোনো অবস্থাই কোনো মানুষ অপর কোনো মানুষের ওপর এরূপ হত্যাকাণ্ড চালাতে পারে না। এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে ৭১ এর গণহত্যার ওপর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক তৈরিকৃত ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য প্রফেসর ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু, প্রফেসর নোমান উর রশীদ, ট্রেজারার, ডিন, বিপুলসংখ্যক শিক্ষক ও কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। রেজিস্ট্রার মোল্লা মাহফুজ আল-হোসেন অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএইচ/এসডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য