artk
৮ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রোববার ২৩ জুলাই ২০১৭, ৬:৪৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম

কে হবেন ভারতের প্রেসিডেন্ট?

বিদেশ ডেস্ক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১২১২ ঘণ্টা, সোমবার ১৭ জুলাই ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১২৪১ ঘণ্টা, সোমবার ১৭ জুলাই ২০১৭


কে হবেন ভারতের প্রেসিডেন্ট? - বিদেশ

সোমবার স্থানীয় সময় সকাল দশটায় ভারতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। দেশটির ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটিংয়ের মাধ্যমে নির্বাচিত হবেন দেশটির পরবর্তী প্রেসিডেন্ট। লোকসভা এবং রাজ্যসভার সাংসদ ও বিধানসভার বিধায়করা নির্বাচকমণ্ডলীতে আছেন বলে জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

মূলত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াই হবে মাত্র দুইজন প্রার্থীর মধ্যে। এদের একজন হলেন বিহোরের সাবেক গভর্নর এবং ভারতীয় জনতা পার্টির নেতৃত্বাধীন জোটের শরীক ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের রামনাথ কোবিন্দ। অপরজন হলেন লোকসভার সাবেক স্পিকার ও ইউনাইটেড প্রোগ্রেসিভ অ্যালায়েন্সের মীরা কুমার।

ভারতের নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, ইলেক্টোরাল কলেজে রয়েছে ৪ হাজার ৮৯৬ জন সদস্য। যাদের মধ্যে লোকসভার ৫৪৩ জন, রাজ্যসভার ২৩৩ এবং স্টেট অ্যাসেম্বলির ৪ হাজার ১২০ জন সদস্য রয়েছে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিধানসভার সদস্যদের ভোট কার্যকর বলে গন্য হয় না। প্রার্থীদের মধ্যে মোট ভোটের ৫১ শতাংশ পেলেই তাকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত করা হবে।

তবে ভারতীয় মিডিয়া এনডিটিভির এক জরিপে দেখা যায় রামনাথ কোবিন্দ ৬২ দশমিক ৮ শতাংশ সমর্থনে এগিয়ে এবং তার বিপরীতে ৩৫ দশমিক ৪ শতাংশ সমর্থন রয়েছে মীরা কুমারের। এছাড়াও অন্যান্যদের ক্ষেত্রে রয়েছে মাত্র ১ দশমিক ৮ শতাংশ সমর্থন।

বিশ্লেষকদের মতে, বিজেপির জন্য প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী দেয়া অনেকটা চ্যালেঞ্জের হয়ে দাড়িয়েছিল। কারণ দলটির জোটের মধ্যে একজন সর্বজনগৃহীত নেতা পাওয়া যাচ্ছিল না। এমতাবস্থায় দলিতদের পাশে চেয়ে রামনাথ কোবিন্দকে প্রেসিডেন্ট পদে দাড় করিয়ে রাজনৈতিকভাবে ফায়দা লুটতে চাচ্ছে বিজেপি। একই হিসেবে বিরোধী দলগুলোও একজন দলিত প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়েছেন যাতে কংগ্রেসের ধরাবাধা গণ্ডি পেরিয়ে এবার দলিতদের দলে ভেড়ানো যায়।

ভোটিংয়ের হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ পশ্চিমবঙ্গ। এই প্রদেশে এনডিএ প্রার্থী রামনাথ কোবিন্দের জনপ্রিয়তা রয়েছে ভালোই। আশা করা হচ্ছে তিনি পশ্চিমবঙ্গ থেকে ২ হাজার ৩২২টি ভোট পেতে পারেন। তবে পশ্চিমবঙ্গে কোবিন্দ এগিয়ে থাকলেও অন্যান্য প্রদেশে কিন্তু মীরা কুমার বেশ ভালোই লড়াই করবেন কোবিন্দের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, আগামী ২০ জুলাই রাজধানী নয়াদিল্লিতে ভোট গণনা করা হবে। সকল রাজ্য থেকে ব্যালট বাক্স দিল্লিতে আসার পরেই গণনা শুরু হবে। আর সেই গণনার দিকে তাকিয়ে থাকবে ভারতের সবগুলো রাজনৈতিক দল। কারণ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের উপর নির্ভর করছে আগামী নির্বাচনে জনগণের সামনে দলগুলোর ইমেজ।

নিউজবাংলাদেশ.কম/কেকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য