artk
৮ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, রোববার ২৩ জুলাই ২০১৭, ৬:৪৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম

কেমন হবে আপনার বসার ঘর  

লাইফস্টাইল প্রতিবেদক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১১৪৬ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ০৬ জুলাই ২০১৭


কেমন হবে আপনার বসার ঘর    - লাইফস্টাইল
ফাইল ফটো

যেহেতু ড্রয়িংরুম বা বসার ঘরেই আমাদের রুচির পরিচয় মেলে তাই সবাই এ ঘরটিকে সাজাতে চান মনের মতো।

আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব এমনকি যেকোনো নতুন অতিথি আসলেই আমরা যে ঘরটিতে বসতে দেই মূলত সেই ঘরটাই হল বসার ঘর।

বসার ঘরটির সাজ সজ্জা সুন্দর ও আর্কষণীয় হওয়া চাই। বসার ঘরের ভেতরের সাজসজ্জা কেমন হবে তা নির্ভর করবে ফ্ল্যাটের আয়তন, লাইস্টাইল এবং বাজেটের ওপর। চলুন তাহলে সবকিছুর সাথে তাল মিলিয়ে কীভাবে নিজের বসার ঘরটি সুন্দর করে সাজানো যায় তার কৌশল জেনে নেই।

যেহেতু বসার ঘর-বাড়ির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ, তাই সফিস্টিকেশনের সঙ্গে সঙ্গে কমফোর্টের বিষয়টা অত্যন্ত জরুরি। আপনি যদি নতুন বাড়ি বানান কিংবা কেনেন, তাহলে চেষ্টা করুন যাতে আপনার বাড়ির ড্রয়িং, ডাইনিং রুম দক্ষিণ কিংবা দক্ষিণ-পূর্ব দিকে হয়। এতে শীতের সময় পর্যাপ্ত পরিমাণে রোদ আসার ফলে ঘর গরম থাকবে এবং গরমের সময় বিকেল থেকে সন্ধ্যার দিকে ঘরে ঢুকবে দক্ষিণের খোলা হাওয়া, যা খুবই আরামদায়ক।

ফ্ল্যাটকে বড় দেখানোর জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ড্রয়িং ডাইনিংয়ের ব্যবস্থা একসঙ্গে করা হয়। ডাইনিং এবং ড্রয়িং স্পেস আলাদা করার জন্য দুটি জায়গার মাঝখানে নানা রকমের পার্টিশন, বুক শেলফ বা ক্যাবিনেট দিতে পারেন।

রঙের সঠিক ব্যবহার বাড়িয়ে দিতে পারে ঘরের সৌন্দর্য।

মনে রাখবেন উজ্জ্বল এবং হালকা রং ঘর বড় দেখাতে সাহায্য করে। যদি ঘরে সূর্যের আলো কম ঢোকে তাহলে কোনো ভাবেই দেয়ালে গাঢ় রঙ করাবেন না। ঘর আরও অন্ধকার দেখাবে। যদি গাঢ় রং করাতে চান তাহলে একটি দেয়ালে কমলা, লাল, হালকা নীল রঙ করে অন্য দেয়ালগুলোয় নিউট্রাল রঙ করান। কন্ট্রাস্ট রঙের ব্যবহারে ঘরের স্যাঁতসেঁতে এবং মনমরা ভাব দূর হবে।

কালারফুল এবং ব্রাইট মোড আনার জন্য কন্ট্রাস্ট রঙের কুশন কভার অথবা পর্দা ব্যবহার করতে পারেন। পর্দার ডিজাইন অনেকটাই নির্ভর করে জানালা-দরজার ডিজাইনের ওপর। ছোট ফ্ল্যাটে বেশি ভারী পর্দা ব্যবহার না করাই ভালো। রিচ ফেব্রিকের পর্দা লাগালে ঘরে একটি আলাদা আমেজ আসে। নিজের পছন্দের পাশাপাশি অন্য দেয়ালের রং ও আসবাবের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কর্নারের রং নির্বাচন করতে হবে। সাধারণত অনেকেই বসার ঘরের দেয়ালজুড়ে হলুদ বা কমলা রঙ ব্যবহার করেন। সে ক্ষেত্রে ঘরের কর্নারে লাল রঙের প্লাস্টিক টাইলস অথবা শ্লেট ব্যবহার করতে পারেন।

এরপর দেয়ালের রঙের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে টেরাকোটা বা পেইন্টিং কর্নারের দেয়ালে টাঙিয়ে রাখুন। কোনায় রাখতে পারেন সুদৃশ্য পটারিতে গাছ। চাইলে পটারির পরিবর্তে রাখতে পারেন হালকা রঙের স্ট্যান্ডিং ল্যাম্পশেড। তবে পটারি বা ইনডোর প্ল্যান্টস, যেটাই রাখুন না কেন, খেয়াল রাখবেন এগুলো যাতে তিন থেকে চার ফুট আকৃতির লম্বা হয়। খেয়াল রাখা দরকার, মেঝেতে কার্পেট পাতলে ঘর অনেক বেশি এলিগেন্ট লাগে। বাজেট কম থাকলে শতরঞ্জি ব্যবহার করতে পারেন।

ঘরের কর্নারগুলোতে রাখতে পারেন ইনডোর প্ল্যান্টস, বিভিন্ন ধরনের ল্যাম্পশেড এবং ফুলদানি। ঘরের ইন্টিরিয়র প্ল্যান করার আগে লাইটিংয়ের ব্যবস্থার ওপর বিশেষ নজর দেয়া প্রয়োজন।

তাই আসুন বসার ঘর রুচিসম্মত ও মনের মতো করতে উপরের টিপসগুলি অনুযায়ী করা চেষ্টা করি।

 

নিউজবাংলাদেশ.কমএমএস

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য