artk
২ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ১৭ আগস্ট ২০১৭, ৫:৩৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম

চবিতে নতুন ১১ বিভাগের অনুমোদন, স্থাপিত হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’

চবি সংবাদদাতা | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৭৪৬ ঘণ্টা, সোমবার ১৯ জুন ২০১৭


চবিতে নতুন ১১ বিভাগের অনুমোদন, স্থাপিত হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ - শিক্ষাঙ্গন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছয় অনুষদের অধীনে চালু হতে যাচ্ছে নতুন ১১টি বিভাগ। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অধীনে ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াও চলছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেট সভায় এসব বিভাগ অনুমোদনের পর এখন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।

এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ইনস্টিটিউটকে অনুষদে উন্নতি করা হয়েছে। তবে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে নতুন সবকটি বিভাগের কার্যক্রম চালু না হলেও কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অধীনে বাংলাদেশ স্টাডিজ ও মুক্তিযুদ্ধ নামে নতুন বিভাগটি চালু করা হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে নতুন তিনটি, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে দুটি, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের অধীনে একটি, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের অধীনে দুটি এবং কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অধীনে একটি বিভাগসহ মোট ১১টি নতুন বিভাগ চালু করা হচ্ছে।

অন্যদিকে বিজ্ঞান অনুষদ থেকে দুই ইনস্টিটিউটকে আলাদা করে ফ্যাকল্টি অব মেরিন সায়েন্স অ্যান্ড ফিশারিজ এবং ফ্যাকাল্টি অব ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস নামে দুই অনুষদে উন্নতি করা হয়েছে।

বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ডিপার্টমেন্ট অব নিউক্লিয়ার সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, ডিপার্টমেন্ট অব ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন সায়েন্স এবং ডিপার্টমেন্ট অব ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ডিজেস্টার ম্যানেজমেন্ট নামে তিনটি বিভাগের অনুমোদন হয়েছে। সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে ডিপার্টমেন্ট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ এবং ডিপার্টমেন্ট অব ক্রিমিনোলজি অ্যান্ড পুলিশ সায়েন্স নামে দুটি বিভাগের অনুমোদন হয়েছে। ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের অধীনে ডিপার্টমেন্ট অব মেটেরিয়াল সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়িারিং এবং ডিপার্টমেন্ট অব ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং নামে দুটি বিভাগের অনুমোদন হয়েছে।

এছাড়াও ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের অধীনে ডিপার্টমেন্ট অব ইন্স্যুরেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট নামে একটি এবং কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অধীনে বাংলাদেশ স্টাডিজ ও মুক্তিযুদ্ধ নামে একটি বিভাগের অনুমোদন হয়েছে। মেরিন সায়েন্স অ্যান্ড ফিশারিজ অনুষদের অধীনে ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্স, ডিপার্টমেন্ট অব ওশানোগ্রাফি এবং ডিপার্টমেন্ট অব ডিপার্টমেন্ট অব ফিশারিজ পরিচালিত হবে। আর ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস অনুষদের অধীনে ইনস্টিটিউট ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস পরিচালিত হবে।

ইউজিসির অনুমোদন মিললেও যেসব অনুষদের এখনও ক্লাস সংকট সেখানে এখনই নতুন বিভাগ চালু করা হবে না বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. এএফএম আওরঙ্গজেব বলেন, “ব্যবসায় অনুষদের অধীনে ইন্স্যুরেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট নামে নতুন একটি বিভাগ চালু করতে ইউজিসির নির্দেশনা আছে। কিন্তু তিন বছর আগে চালু হওয়া দুই বিভাগের ক্লাস রুম সংকটের কারণে চালাতে কষ্ট হচ্ছে। তাই এখনই নতুন বিভাগ চালু করা হবে না। অনুষদের নতুন ভবন নির্মাণের পর চালু করা হবে।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. কামরুল হুদা বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেট সভায় নতুন নয়টি বিভাগ ও দুটি অনুষদ চালুর অনুমোদন হয়েছে। মেরিন সায়েন্স অ্যান্ড ফিশারিজ অনুষদে দুটি বিষয়কে স্বতন্ত্র বিভাগ হিসেবে চালুর অনুমোদনও হয়েছে। এখন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। তবে বাংলাদেশ স্টাডিজ ও মুক্তিযুদ্ধ নামে নতুন বিভাগটি চালু ব্যাপারে ইউজিসির অনুমোদন পাওয়া গেছে। বিভাগটি ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে চালু করা হবে।”

তিনি আরও জানান, ১১টি বিভাগের চালুর ব্যাপারে ইউজিসি থেকে প্রতিনিধি দল এসে দেখবে। আশা করি, আগামী শিক্ষাবর্ষের ৫-৬টি নতুন বিভাগ চালু করা সম্ভব হবে। আর ‘বঙ্গবন্ধু চেয়ার’ বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে অনুমোদন পাওয়া গেছে। নীতিমালা করা হচ্ছে। বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে।

নিউজবাংলাদেশ.কম/জেডসি/এসডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য