artk
৬ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ২:৩৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম

টাইগারদের বোলিং নৈপূণ্যে ১৮১ রানে অলআউট আয়ারল্যান্ড

স্পোর্টস রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৫৫৭ ঘণ্টা, শুক্রবার ১৯ মে ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৯৫৭ ঘণ্টা, শুক্রবার ১৯ মে ২০১৭


টাইগারদের বোলিং নৈপূণ্যে ১৮১ রানে অলআউট আয়ারল্যান্ড - খেলা

অনেকদিন পর চেনা মুস্তাফিজ। তার সঙ্গে ছিলেন প্রায় সবাই। ডাবলিনে টাইগারদের বোলিং নৈপুণ্যে আজ দিশেহারা স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড। টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে ১৮১ রানে অলআউট হয়েছে আইরিশ শিবির, ৪৬.৩ ওভারে। জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ১৮২ রান। 

ডাবলিনের মালাইহাডে ব্যাট হাতে আইরিশদের হয়ে গোড়াপত্তন করেন জয়েস ও স্টারলিং। তবে বল হাতে শুরুটা দারুণ হয় বাংলাদেশের। প্রথম ওভারেই উইকেটের দেখা পান মুস্তাফিজুর রহমান। আউট করেন ওপেনার স্টারলিংকে। মুস্তাফিজের প্রথম ওভারের তৃতীয় বলে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দেন তিন বলে শূন্য রান করা স্টারলিং।

শুরুর বিপর্যয় রোধ করার চেষ্টা করেন অধিনায়ক উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড ও অ্যাড জয়েস। ৭.২ ওভারে এই জুটি বিচ্ছিন্ন হতে পারত। তবে মাশরাফির বলে পোর্টারফিল্ডের দেয়া সহজ ক্যাচ লুফে নিতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

নিজের ভুলের প্রায়শ্চিত্ত মোসাদ্দেক করেন ৮.৩ ওভারে। নিজের ওভারেই সেই পোর্টারফিল্ডকে নিজের হাতে ক্যাচ বানান মোসাদ্দেক। দুই উইকেটের পতন আয়ারল্যান্ডের। দলীয় রান ৩৭। ২৫ বলে তিন চার ও এক ছয়ে ২২ রান করে সাজঘরে ফেরেন আইরিশ অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড।

এরপর দৃশ্যপটে হাজির সাকিব আল হাসান। ক্রমশ জমে যাওয়া জয়েস-বালবিরনি জুটি বিচ্ছিন্ন করেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। ১৪.২ ওভারে রক্ষণাত্মক খেলেও লাভ হয়নি। ব্যাটকে ফাঁকিয়ে দিয়ে সাকিবের বল উড়িয়ে দেয় স্ট্যাম্প। ২৪ বলে ১ চারে ১২ রান করে সাজঘরে ফেরেন বালবিরনি। তিন উইকেটে আয়ারল্যান্ডের সংগ্রহ তখন ৬১ রান। 

চতুর্থ উইকেট জুটিতে ক্রমেই ভয়ংকর হয়ে উঠছিলেন। জয়েস ও নেইল ও ব্রায়ান যোগ করেন ৫৫ রান। তবে এই জুটি বিচ্ছিন্ন করেন কাটার স্পেশালিস্ট মুস্তাফিজুর রহমান। ২৭.৩ ওভারে মুস্তাফিজের বলে তামিমের হাতে ক্যাচ দেন নেইল ও ব্রায়ান। ৪২ বলে ৩০ রান করেন তিনি। ৪ উইকেটের পতন, আয়ারল্যান্ডের রান তখন ১১৬। 

অভিষেকে বল হাতে চমকটা দেখান এরপর সানজামুল ইসলাম। ক্রমেই ভয়ংকর হয়ে ওঠা আইরিশ ওপেনার অ্যাড জয়েস হাঁটছিলেন ফিফটির পথে। তাতে পথের কাঁটা হিসাবে হাজির হন অভিষিক্ত সানজামুল। নিজের প্রথম ওভারেই ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রথম উইকেটের দেখা পান তিনি।

২৮.৬ ওভারে সানজামুলের বলে তামিমের হাতে ক্যাচ দেন জয়েস। তার আগে খেলে যান ৭৪ বলে তিন চারে ৪৬ রানের ধৈর্যশীল এক ইনিংস। ১২৬ রানে আয়ারল্যান্ডের নেই পাঁচ উইকেট। 

কাটার মাস্টার মুস্তাফিজের চমক বাকি ছিল আরও। পরপর দুই ওভারে আরও দুটি উইকেট বগলদাবা করেন সাতক্ষীরার এই বিস্ময় পেসার। ৩১.৪ ওভারে ১০ রান করা কেভিন ও ব্রায়ানের হাওয়া ভাসানো শট দুর্দান্ত ড্রাইভ দিয়ে তালুবন্দী করেন মোসাদ্দেক হোসেন। ৩৩.১ ওভারে মুস্তাফিজের বলে উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দেন ৬ রান করা উইলসন। সাত উইকেটে পতন, আয়ারল্যান্ডের সংগ্রহ ১৩৬ রান।

শেষের দিকে মাশরাফি তুলে নেন দুটি উইকেট। সানজামুল পান নিজের দ্বিতীয় উইকেট। সব মিলিয়ে দিশেহারা আয়ারল্যান্ড। বল হাতে সবচেয়ে সফল মুস্তাফিজুর রহমান। ৯ ওভারে দুই মেডেন, ২৩ রানে চার উইকেট। ৬.৩ ওভারে ১৮ রানে দুই উইকেট নেন ক্যাপ্টেন মাশরাফি। ৫ ওভারে ২২ রানে দুই উইকেট নেন অভিষিক্ত সানজামুল। মোসাদ্দেক ও সাকিব নেন একটি করে উইকেট।   

বাংলাদেশ দলে আজ অভিষেক হয়েছে সানজামুল ইসলামের। বাদ পরতে হয়েছে মেহেদী হাসান মিরাজের। আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়েছিল। একই ভেন্যুতে দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ করেছিল ৯ উইকেটে ২৫৭ রান। জবাবে নিউজিল্যান্ড জয়ের বন্দরে পৌঁছেছিল ১৫ বল হাতে রেখে ছয় উইকেটে।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিমান, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সানজামুল ইসলাম, মোসাদ্দেক হোসেন, রুবেল হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা ও মুস্তাফিজুর রহমান।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সানজামুলের অভিষেক

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএনসি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য