artk
১ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বুধবার ১৬ আগস্ট ২০১৭, ৯:০১ অপরাহ্ন

শিরোনাম

খালেদা জিয়া কি একবারও হাওরে গিয়েছেন: কাদের

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২১২১ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ১৮ মে ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ০৯১৬ ঘণ্টা, শুক্রবার ১৯ মে ২০১৭


খালেদা জিয়া কি একবারও হাওরে গিয়েছেন: কাদের - রাজনীতি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, “যারা ঢাকায় বসে ত্রাণ নিয়ে কথা বলছেন, তাদের নেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া একবারও কি হাওর এলাকায় গিয়েছেন?”

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর রমনা রেস্তোরাঁয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ হল শাখা ছাত্রলীগের নব-গঠিত কমিটির সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “অনেকে ঢাকায় বসে বড় বড় কথা বলে, সুনামগঞ্জের দুর্গম হাওর এলাকায় প্রধানমন্ত্রী গিয়েছেন। আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, এমপি ও নেতারা টোকেন হিসেবে দুই/তিনটি ত্রাণ দিয়ে চলে যান। বাকিগুলো অন্যরা বিতরণ করেন। আজকে ২২৮ জনের তালিকায় ছিল, কথা ছিল প্রধানমন্ত্রী ১০ জনকে ত্রাণ দেবেন কিন্তু তিনি ত্রাণ দিয়েছেন ২২৮ জনকে। এটা শুধু আজকের জন্য নয়। ৩০ কেজি করে চাল ও ১ হাজার করে টাকা নতুন ফসল ওঠার আগ পর্যন্ত চলবে। যাদের ঘর নেই, তাদের ঘর করে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।”

তিনি বলেন, “অনেকে ক্ষমতায় আসতে চায় নিজেদের জন্য, লুটপাটের জন্য, পকেটের উন্নয়নের জন্য। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থেকে মানুষের জন্য একটা মমতা নিয়ে কাজ করেন। ফখরুল সাহেব একটা এলাকায় গিয়েছেন, ত্রাণ দেননি। যারা ত্রাণ নিতে এসেছিলেন তারা খালি হাতে ফিরে গেছেন। উনি (ফখরুল) ফটোসেশন করে উনাদের এক কারাবন্দি নেতার জন্য দোয়া চেয়ে ফিরে এসেছেন। মদন এলাকায় উনি কেন গিয়েছিলেন?”

সেতুমন্ত্রী বলেন, “নারী ক্ষমতায়ন, একটি বাড়ি-একটি খামার, গৃহহীনদের আশ্রায়ন ও ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য শেখ হাসিনা কিংবদন্তি হয়ে থাকবেন। নেতারা পুরুষ শাসিত আওয়ামী লীগ বানাতে চায়। স্থানীয় সরকারের নারী প্রার্থী থাকলে নেতারা ঢাকায় তাদের নাম পাঠান না। তবুও নেত্রী (শেখ হাসিনা) কোথাও নারী প্রার্থী থাকলে মনোনয়ন দিয়ে দেন।”

তিনি বলেন, “একটা মৃত্যুর প্রতিবাদ করতে গিয়ে যদি রাস্তা অবরোধ করা হয় তাহলে মূমূর্ষু রোগীর কী হবে? প্রতিবাদের নামে হাজার হাজার মানুষকে রাস্তায় কষ্ট দেয়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই। এটা কোনো প্রতিবাদের ভাষা নয়। এই ভাষা গ্রহণযোগ্য নয়।”

ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে কাদের বলেন, “ছাত্র রাজনীতিকে আকর্ষণীয় করতে হবে। তোমরা যারা লিডার আছো, তাদের আকর্ষণীয় হতে হবে। ছাত্র নেতাদের নৈতিকতার ভিত্তি শক্তিশালী না হলে ছাত্র রাজনীতি আকর্ষণীয় হবে না। আওয়ামী লীগের যে যেখানে কাজ করে তাদের আচরণ শেখ হাসিনাকে প্রতিনিধিত্ব করে। তাই এটা খেয়াল রাখতে হবে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শামসুন্নাহার হল, কবি সুফিয়া কামাল হল, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল, কুয়েত মৈত্রী হল-এই ৫ হল শাখা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির নেতাদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মারুফা আক্তার পপি, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান, সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স প্রমুখ।

নিউজবাংলাদেশ.কম/আরআর/এসডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত