artk
৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার ২১ নভেম্বর ২০১৭, ৩:১০ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

ব্রেইন ইঞ্জুরি: অকুপেশনাল থেরাপিতে সমাজে ফিরে আসা

শম ফারহান বিন হোসেন   | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ০৯৫৮ ঘণ্টা, শুক্রবার ০৫ মে ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৪৩৮ ঘণ্টা, শুক্রবার ০৫ মে ২০১৭


ব্রেইন ইঞ্জুরি: অকুপেশনাল থেরাপিতে সমাজে ফিরে আসা - স্বাস্থ্য-পুষ্টি

মস্তিষ্কে আঘাতজনিত অবস্থাকে সাধারণত ব্রেইন ইঞ্জুরি বলে। ব্রেইন ইঞ্জুরির ফলে মানুষের অনুভূতি, মুভমেন্ট, চেতনাগত, আচরণগত এবং দৈনিক কাজ সম্পাদনে সমস্যা দেখা যায়। একজন ব্রেইন ইঞ্জুরিতে আক্রান্ত ব্যক্তির দুর্ঘটনার পর কর্মক্ষেত্রে বা বিদ্যালয়ে, গুরুত্বপূর্ণ কাজে ফিরে যাওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। এছাড়াও ভারসাম্য ও সমন্বয় থাকে না, স্মৃতিতে ব্যাঘাত ঘটে। আগের মতো যে কোনো একটি কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করতে পারে না, নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নিতে পারে না, দৃষ্টিগত এবং শ্রবণেও সমস্যা দেখা যায়। ব্রেইন ইঞ্জুরিতে আক্রান্ত রোগীর অধপতন ঘটে, তাদের মধ্যে হতাশা বেড়ে যায় এবং অমূলক আচরণের বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

দুর্ঘটনাজনিত ব্রেইন ইঞ্জুরিতে রোগীর চেতনা-বোধগত সমস্যা, শারীরিক ও মানসিক সমস্যা, অনুভূতিজনিত সমস্যাগুলো দৈনিক জীবনযাপনকে অসহনীয় ও দুর্বিষহ করে তোলে, যার ফলে রোগী আগের মতো দৈনিক কাজ সম্পাদন করতে পারে না, অন্যের ওপর সম্পূর্ণ নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় একজন অকুপেশনাল থেরাপিস্ট রোগীকে তার সামর্থ্য অনুযায়ী যথাসম্ভব দৈনিক কাজসমূহে স্বাবলম্বী করে কর্মক্ষম এবং উপভোগ্য জীবনযাপনে চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

অকুপেশনাল থেরাপির ভূমিকা

অকুপেশনাল থেরাপিস্টরা পুনর্বাসন ব্যবস্থাপনায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে থাকেন। ব্রেইন ইঞ্জুরিতে আক্রান্ত ব্যক্তিকে সমাজে ফিরিয়ে নেয়ার জন্যে সহায়তা করে থাকেন। এক্ষেত্রে একজন রোগীর সামর্থ্যকে বিশ্লেষণ ও মূল্যায়ন করে তার কাজের চাহিদা অনুযায়ী প্রশিক্ষণ এবং নির্দেশিকা দিয়ে থাকেন। কিভাবে কাজ ও পরিবেশের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেবে সেই ব্যাপারেও অকুপেশনাল থেরাপিস্ট গাইড করে থাকেন। ধাপে ধাপে উপযুক্ত নির্দেশিকার মাধ্যমে অকুপেশনাল থেরাপিস্টরা রোগীকে তার বাড়ি, সমাজ, কর্মক্ষেত্রেও মানিয়ে নিতে সহায়তা করেন। মূলত রোগীকে বিভিন্ন স্থানে কর্মক্ষম করা এবং তার কর্মউদ্যমতা ফিরিয়ে আনার জন্যে অকুপেশনাল থেরাপিস্টরা বিভিন্নভাবে চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

ব্রেইন ইঞ্জুরি রোগীর সামগ্রিক পুনর্বাসনের জন্য অকুপেশনাল থেরাপিস্ট। একটি মাল্টি ডিসিপ্লিনারি টিম এ কাজ করেন আর এ টিমে থাকেন ডাক্তার, ফিজিওথেরাপিস্ট, স্পিচ-ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্ট, নিউরোসাইকোলজিস্ট, সমাজকর্মী এবং অন্যান্য পেশাজীবী যেমন শিক্ষক অথবা ভোকেশনাল রিহ্যাবিলিটেশন কাউন্সেলর।

ব্রেইন ইঞ্জুরিতে আক্রান্ত রোগীদের অবস্থা ভিন্নভিন্ন, তবে অকুপেশনাল থেরাপিস্টরা এ বিষয়গুলোর দিকে বেশি নজর দেন:

১. দৈনিক রুটিন, প্রযুক্তিগত সহায়ক ডিভাইস, চেকলিস্ট, কিউ সিস্টেমের ব্যবহার সম্পর্কে প্রশিক্ষণ।

২. কার্যকরী রুটিন তৈরিতে সহায়তা করা।

৩. রোগী এবং রোগীর পরিবারকে আচরণগত পরিবর্তন এবং বিষণ্ণসীমা সম্পর্কে নির্দেশিকা প্রদান।

৪. শারীরিক, উপলব্ধিগত, চেতনাগত দিকগুলোর উন্নতির জন্যে পারিপার্শ্বিক পরিবর্তন আনা। এছাড়াও সহজে মনযোগ আকর্ষণ করে এবং স্মৃতিতে থাকে সেভাবে উপযুক্ত কর্ম পরিবেশ তৈরি করা।

৫. বিকল্প কৌশলের মাধ্যমে সামাজিক দক্ষতা পুনঃনির্মাণে সহায়তা করা এবং সেই সঙ্গে সামাজিক প্রতিবন্ধকতা সহজে মোকাবিলা করার বিষয়গুলো সম্পর্কে প্রশিক্ষণ।

৬. কগনিটিভ পুনঃপ্রশিক্ষণের মাধ্যমে চেতনাগত দক্ষতা যেমন মনোযোগ, স্মৃতি, সামগ্রিক সমন্বয় এর উন্নতি সাধন করা।

৭. দৈনিক কাজের প্রশিক্ষণ এবং উপযুক্ত পন্থায় সম্পাদন করা

৮. দৈনিক কাজ সুচারুরূপে সম্পাদনের জন্যে সহায়ক সামগ্রী প্রদান করা

৯. স্বাস্থ্যবান ও সুস্থতা রক্ষার্থে শখ কিংবা অবসরমূলক কাজ নির্বাচন এবং বিকশিত করা।

১০. কর্মক্ষেত্রের বস কিংবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের সঙ্গে রোগীর সামগ্রিক সীমাবদ্ধতা এবং কর্মদক্ষতা বৃদ্ধির বিষয়ে পরামর্শ বিনিময়।

এছাড়াও অকুপেশনাল থেরাপিস্টরা থেরাপিউটিক এক্সারসাইজ, উদ্দেশ্যমূলক ও অর্থবহ কাজে অংশগ্রহণের মাধ্যমে রোগীকে যথাসম্ভব সামর্থ্যবান করে তোলার চেষ্টা করেন।

অকুপেশনাল থেরাপিস্ট রোগীর কর্মচাহিদা এবং কর্মদক্ষতা নিরীক্ষণে অভিজ্ঞ এবং সমস্যার আলোকে অকুপেশনাল রিহ্যাবিলিটেশন সম্পন্ন করতে টিমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকেন। কাজের বিশ্লেষণ এবং পরিবেশগত রূপান্তরের মাধ্যমে রোগীকে সমাজে পুনরায় ফিরিয়ে নেয়ার জন্যে পুরো চিকিৎসা পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে থাকেন। যার ফলে রোগী সর্বোচ্চ পর্যায়ে স্বাবলম্বিতা অর্জন করতে সক্ষম হয়।

লেখক: শম ফারহান বিন হোসেন
ক্লিনিক্যাল অকুপেশনাল থেরাপিস্ট,
অকুপেশনাল থেরাপি বিভাগ, সিআরপি-মিরপুর।
ই-মেইল: farhan_crp@yahoo.com

নিউজবাংলাদেশ.কম/ এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত