artk
১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বুধবার ২৪ মে ২০১৭, ১২:০৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম

সুনামগঞ্জে মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবায় সফল কেয়ার-জিএসকে

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২২৪২ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২০ এপ্রিল ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২২৪৩ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২০ এপ্রিল ২০১৭


সুনামগঞ্জে মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবায় সফল কেয়ার-জিএসকে - স্বাস্থ্য-পুষ্টি

সুনামগঞ্জে মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবায় সফলতা অর্জন করেছে কেয়ার-জিএসকে। এই দুটি প্রতিষ্ঠানের যৌথ উদ্যোগে ৩০০ জন দক্ষ স্বাস্থ্য সেবাদানকারী এলাকায় সেবা দিয়ে অবস্থার পরিবর্তন ঘটিয়েছে।

গত ১৮ এপ্রিল কেয়ার-জিএসকে কমিউনিটি হেলথ ওয়ার্কার ইনিশিয়েটিভের মধ্যবর্তী মূল্যায়নের ফলাফল ও শিখন বিনিময় ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হয় ঢাকার হোটেল লেকশোরে।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইসিডিডিআরবি ২০১৬ সালের এই প্রকল্পটির কর্ম এলাকায় পরিচালিত মা ও শিশু স্বাস্থ্য জরিপের তথ্য উপস্থাপন করে। তথ্য অনুযায়ী, গত তিন বছরে সুনামগঞ্জে মা ও শিশুর দক্ষ সেবা গ্রহণের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন গুনেরও বেশি। দক্ষ স্বাস্থ্যসেবা দানকারীদের দুই তৃতীয়াংশরও বেশি সেবা পেয়েছে দরিদ্র ও হত দরিদ্র পরিবারের সদস্যরা। সরকার ও উন্নয়ন সহযোগী পার্টনারদের সহায়তায় শিশু মৃত্যুর হার কমেছে অনেকাংশে। এছাড়া প্রকল্পের মনিটরিং তথ্য সূত্র মতে, ৫০ ভাগের মতো দক্ষ স্বাস্থ্য উদ্যোক্তরা প্রতিমাসে পাঁচ হাজার ও তার বেশি টাকা রোজগার করছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (প্রশাসন) আব্দুল গফ্ফার খান বলেন, “এটা স্পষ্ট যে দুর্গম এলাকাগুলোতে সেবা প্রদানের কৌশলগুলো কাজ করছে না। এই পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ উদ্যোগ সুনামগঞ্জে মা ও শিশু স্বাস্থ্যের উন্নয়নে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।”

বিশেষ অতিথি প্রাইমারি হেলথ কেয়ারের ডিরেক্টর ডা: জাহাঙ্গীর আলম সরকার বলেন, “মাঠ পর্যায়ে এই প্রকল্পের কার্যক্রম পরিদর্শন করে আমার অভিজ্ঞতার আলোকে আমি বলতে পারি, যে ৩০০ জন স্বাস্থ্য উদ্যোক্তা তৈরি হয়েছে তারা সবাই স্থানীয় এবং এই প্রকল্প শেষে স্থায়ীভাবে কাজ চালিয়ে যাবে। এই উদ্যোগটি স্থানীয় সরকার এবং কমিউনিটি সাপোর্ট গ্রুপের সাথে ওতোপ্রতোভাবে জড়িত।”

এমসিএইচ পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের ডিরেক্টর ডা: মো: শরীফ বলেন, “এই উদ্যোগটি স্থায়ীত্বশীল সেবা প্রদানের সিষ্টেম এর ক্ষেত্রে একটি অনন্য দৃষ্টান্ত যা সরকারের কাজকে এই ধরনের দুর্গম এলাকাতে পরিপূরক হিসেবে কাজ করছে।”

মি: ডেবিড প্রিটচার্ড, আফ্রিকা ও এশিয়া অঞ্চল, গ্লাক্সোস্মিথক্লাইন বলেন, “গত পাঁচ বছর আগে শুরু হওয়া এই উদ্যোগটি স্বাস্থ্যে জনবলের ঘাটতি পূরণে এই অঞ্চলে মা ও শিশু স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ সংশ্লিষ্ট আচরণ ইতিবাচক পরিবর্তন দেখে সত্যিই গর্ববোধ করছি।”

মূল স্টেকহোল্ডারেদের মধ্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর, সিভিল সার্জন সুনামগঞ্জ, উপ পরিচালক সুনামগঞ্জ, বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী পার্টনার, জাতিসংঘের অঙ্গ সংগঠন সমূহ, অবসটেট্রিক এবং গাইনোকলজিক্যালসোসাইটি অব বাংলাদেশ, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক এনজিও, সুনামগঞ্জের তৃণমূল কমিউনিটি গ্রুপ, ইউনিয়ন পরিষদ এবং দক্ষ স্বাস্থ্য উদ্যোক্তারা এই ইভেন্টে অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ছিলেন নাহিদ সুলতানা মল্লিক।

নিউজবাংলাদেশ.কম

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত