artk
৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বুধবার ২২ নভেম্বর ২০১৭, ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

খালেদার বিরুদ্ধে মানহানি মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৮০৯ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২০ এপ্রিল ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৮১২ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২০ এপ্রিল ২০১৭


খালেদার বিরুদ্ধে মানহানি মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন - রাজনীতি
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া: ফাইল ফটো

মুক্তিযুদ্ধের দায়িত্ব কলঙ্কিত, বাংলাদেশের মানচিত্র ও জাতীয় পতাকাকে অপমানিত করার অভিযোগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে করা মানহানি মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে তেজগাঁও থানা পুলিশ। তবে এ মামলা থেকে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম রায়হানুল ইসলামের আদালতে জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিকী বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন অনেক আগে দেয়া হলেও বৃহস্পতিবার বিষয়টি জানিয়েছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সৈয়দ জয়নুল আবেদিন মেজবাহ।

তিনি জানান, চলতি বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ বি এম মশিউর রহমান এ প্রতিবেদন দাখিল করেন। বিচারক ২২ মার্চ প্রতিবেদনটি আমলে নিয়ে আগামী ১১ জুন খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

পুলিশের দাখিলকৃত প্রতিবেদনে জানা যায়, ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি জয়লাভ করলে দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মন্ত্রিপরিষদ গঠন করেন। ওই মন্ত্রিপরিষদে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে যারা পাকিস্তানের দোসর হিসেবে নিজেদের পরিচয় প্রতিষ্ঠা করেছিল, সেই জামায়াতে ইসলামী, ছাত্রশিবির, আলবদর, আলশামস কমিটির সদস্যদের মন্ত্রী ও এমপি বানানো হয়। পরবর্তী সময়ে ওই ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকেই আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে মৃত্যুদণ্ডসহ বিভিন্ন দণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন। এর মধ্যে খালেদা জিয়ার সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মতিউর রহমান নিজামী এবং আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মুত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। কিন্তু তারা ক্ষমতায় থাকাকালে মন্ত্রিত্বের সুবিধা নিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্র এবং জাতীয় পতাকা তাদের বাড়ি এবং গাড়িতে ব্যবহার করেছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, খালেদা জিয়া স্বাধীনতাবিরোধী ব্যক্তিদের তার মন্ত্রিসভায় মন্ত্রিত্ব দিয়ে ৩০ লাখ শহিদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত পতাকাকে ওই স্বাধীনতা বিরোধীদের গাড়িতে তুলে দিয়ে সত্যিকারের দেশপ্রেমিক জনগণের মর্যাদা ভূলুণ্ঠিত করেছেন। তাই তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৫০০ ধারায় মানহানির অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

অপরদিকে প্রচলিত আইনে মৃত ব্যক্তির বিচারের সুযোগ না থাকায় সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে অব্যাহতির প্রদানের সুপারিশ করা হয়েছে।

নিউজবাংলাদেশ.কম/এসজে/এএইচকে

 

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত