artk
১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, শুক্রবার ২৬ মে ২০১৭, ৫:৫৫ পূর্বাহ্ণ
ব্রেকিং
সুপ্রিম কোর্টের ভাস্কর্য সরিয়ে ফেলার কাজ চলছে                    

শিরোনাম

পানামা পেপারস কেলেঙ্কারি
নির্দোষ না হয়েও রেহাই পেলেন নওয়াজ শরীফ

বিদেশ ডেস্ক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ১৬২৭ ঘণ্টা, বৃহস্পতিবার ২০ এপ্রিল ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ০৯২১ ঘণ্টা, শুক্রবার ২১ এপ্রিল ২০১৭


নির্দোষ না হয়েও রেহাই পেলেন নওয়াজ শরীফ - বিদেশ

গত বছরের বহুল আলোচিত পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির ঘটনায় হওয়া মামলা থেকে কোনো মতে রেহাই পেলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের বিভক্ত রায়ের ফলেই তিনি কেলেঙ্কারি মামলা থেকে বেঁচে গিয়েছেন বলে জানায় দেশটির মিডিয়া দ্য ডন।
‘মধ্যপ্রাচ্যের সমস্যার মূলে ইরান’
সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের এই রায়ে কার্যত উল্লাস প্রকাশ করেছে দেশটির ক্ষমতাসীন দল। তবে নওয়াজ শরীফের পরিবারের বিরুদ্ধে আনীত অর্থ পাচার মামলার অভিযোগ খতিয়ে দেখতে একটি ‘যৌথ তদন্ত কমিটি’ গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আগামী দুই মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

পাকিস্তানে রাজনীতিবিদ ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই), জামাত-ই-ইসলামী, ওয়াতান পার্টি ও অল পাকিস্তান মুসলিম লীগ সম্মিলিতভাবে সুপ্রিম কোর্টে ওই মামলাটি দায়ের করেছিলেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক আসিফ সাঈদ খোসা, বিচারক গুলজার আহমেদ, বিচারক ইজাজ আফজাল খান, বিচারক আজমত সাঈদ এবং বিচারক ইজাজুল আহসানের গঠিত বেঞ্চ এই বিভক্ত রায় ঘোষণা করেন।
কি ঘটতে যাচ্ছে নওয়াজ শরীফের ভাগ্যে?
এদিকে ২০১৮ সালে পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। এই বিভক্ত রায় ঘোষণার ফলে আপাতত স্বস্তি ফিরে এসেছে নওয়াজ শরীফের দল পাকিস্তান মুসলিম লীগে। যদিও রায়ের আগেই নওয়াজ শরীফের মেয়ে মারিয়াম নওয়াজ বলেছিলেন যে, তার বাবা আদালতের এই রায় নিয়ে উদ্বিগ্ন নয়।

গত বছর পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির ঘটনায় নওয়াজ শরীফ ও তার পরিবারের সংশ্লিষ্টতা ফাঁস হলে গোটা দেশজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল। তখন দেশটির বিরোধী দলগুলো প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ চেয়ে আন্দোলন করেছিল। কিন্তু সেই আন্দোলন পরবর্তীতে আদালত পর্যন্ত গড়ায়। কথা ছিল, আদালত থেকে যদি নওয়াজকে দোষি সাব্যস্ত করে তবে তাকে প্রধানমন্ত্রীত্ব ছাড়তে হবে।

নিউজবাংলাদেশ.কম/কেকে

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য