artk
১২ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ২৭ জুলাই ২০১৭, ৬:৪৬ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার নির্মল আনন্দে ভাসলো ময়মনসিংহবাসী

উবায়দুল হক | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ২১২৩ ঘণ্টা, শনিবার ১৫ এপ্রিল ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২২৩৫ ঘণ্টা, শনিবার ১৫ এপ্রিল ২০১৭


ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতার নির্মল আনন্দে ভাসলো ময়মনসিংহবাসী - ফিচার

ময়মনসিংহ: বাঙালি জাতির কয়েকশ বছরের ঐতিহ্য ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা। নতুন প্রজন্মের কাছে হারিয়ে যেতে বসা এ ঐতিহ্য তুলে ধরতেই নববর্ষকে ঘিরে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ময়মনসিংহ পৌরসভা। আর এতে নির্মল আনন্দে ভেসেছে ময়মনসিংহবাসী।

শনিবার বিকেলে গ্রাম-বাংলার মানুষের চিত্তবিনোদনের প্রধান এ আকর্ষণকে ঘিরে উৎসব মুখর হয়ে উঠেছিল নগরীর সার্কিট হাউজ মাঠ। গোটা মাঠের যেখানেই চোখ যায় শুধু মানুষ আর মানুষ। সবার চোখ আটকে আছে মাঠের মাঝখানে।

এ ঘোড়দৌড় উপভোগ করতে হাজার হাজার মানুষ ছুটে আসে মাঠে। মাঠে স্থান সংকোলন না হওয়ায় কেউ বিভিন্ন ভবনের ছাদে আবার কেউ বা গাছের ডালে উঠে উপভোগ করেন এ আয়োজন।

কদম ও দাপট এই দুই ধরনের দৌড়ে অংশ নেয় ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, জামালপুর, শেরপুর, গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার ঘোড়সওয়াররা। জয়ের লক্ষ্য নিয়ে লড়াইয়ে নামে প্রায় ৪০টি ঘোড়া। এসময় গতিতে ঘোড়া ছুটিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার যেন যুদ্ধে নামেন এসব ঘোড়সওয়াররা।

প্রতিযোগিতার শুরুতে মাইকে যখন ঘোষণা করা হয় যে, “আপনারা যারা ১নং কদম দৌড়ে অংশ নেবেন তারা ঘোড়া নিয়ে লাইনে এসে দাঁড়ান।” সঙ্গে সঙ্গে দর্শকদের কাছ থেকে ভেসে আছে উল্লাস ও উচ্ছ্বাস। শুরু হয় কদম দৌড় প্রতিযোগিতা। এসময় আবারও মঞ্চ থেকে মাইকে উপস্থাপক বলছিলেন, “কদম ভাঙ্গলে সে ঘোড়া বাতিল পুরস্কার দেয়া হবে না। এক নম্বর কদম দৌড়ে ৪টি চক্কর হবে।

কদমদৌড় শেষ হলে শুরু হয় সবচেয়ে আকর্ষণীয় দাপট দৌড়। আবারও তখন উপস্থাপকের কন্ঠে ভেসে আসছে- “মাঠের চারিদিকে যারা আছেন, তারা নিরাপদ দূরত্বে থাকেন। সর্বোচ্চ গতিতে ঘোড়াগুলো দৌড়াবে। আপনারা চিন্তাও করতে পারবেন না!” এসব শুনে আবারো উল্লাসে ফেটে পড়ে সার্কিট হাউজ মাঠের এক প্রান্ত থেকে ওপর প্রান্ত।

দাপট দৌড়ে দাপট ও চমক নিয়ে উপস্থিত হয় ১৩ থেকে ১৫ বছরের শিশুরা। তাদের কৌশলে ঘোড়ার ক্ষিপ্র গতি নজরকাড়ে অতিথি ও দর্শকদের। প্রথম দাপটদৌড়ে প্রথম হয় একটি প্রতিবন্দ্বী শিশু। প্রশংসায় ভাসাতে থাকেন অতিথিরা। বেশ কয়েকজন তাৎক্ষণিক অর্থপুরস্কারও প্রদান করে তাকে।

পরে কদম ও দাপট এই দুই ধরনের দৌড়ে জয়ীদের হাতে ফ্রিজ, রঙ্গিন টেলিভিশনসহ আকর্ষণীয় পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা। প্রথম রাউন্ড কদমদৌড় প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন শরিফ, দ্বিতীয় রাউন্ডে মকবুল, তৃতীয় রাউন্ডে রুহুল আমিন। দাপটদৌড়ে প্রথম রাউন্ডে রনি মিয়া, দ্বিতীয় রাউন্ডে সেকান্দর আলী ও তৃতীয় রাউন্ডে আবুল হাশেম।

এর আগে, এ অনুষ্ঠানে পৌরসভার মেয়র ইকরামুল হক টিটুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার জিএম সালেহ উদ্দিন। তিনি বলেন, নির্মল এ বিনোদন উপভোগের মাধ্যমে মানুষের প্রতি মানুষের সৌহার্দ্য গড়ে উঠবে। বিলুপ্তি প্রায় এ গ্রামীণ ঐতিহ্যবাহী খেলা সবার মাঝে তুলে ধরায় পৌরমেয়রকে ধন্যবাদও জানান তিনি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, জেলা প্রশাসক খলিলুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম।

সভাপতির বক্তব্যে পৌর মেয়র ইকরামুল হক টিটু বলেন, “নতুন প্রজন্মকে নির্মল বিনোদন দিতে ও আবহমান বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে আমাদের এ প্রয়াস অব্যাহত আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।”

নিউজবাংলাদেশ.কম/ওএইচ/এসডি

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য