artk
৩ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৭, ৪:১৭ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী

স্টাফ রিপোর্টার | নিউজবাংলাদেশ.কম
প্রকাশ: ০৯০৮ ঘণ্টা, রোববার ১৯ মার্চ ২০১৭ || সর্বশেষ সম্পাদনা: ২২৫২ ঘণ্টা, রোববার ১৯ মার্চ ২০১৭


কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী - শিল্প-সাহিত্য
ফাইল ফটো

ঢাকা: ‘মাগো, ওরা বলে,/ সবার কথা কেড়ে নেবে/ তোমার কোলে শুয়ে/ গল্প শুনতে দেবে না। বলো, মা, তাই কি হয়?’

অমর একুশের স্পর্ধিত এ উচ্চারণ যার, যিনি কিংদন্তীর কথা বলে নিজের স্থানটুকু করে নিয়েছেন অবলীলায়, সেই কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী রোববার।

দিবসটি উপলক্ষে কবির গ্রামের বাড়ি বরিশালের বাবুগঞ্জের বাহেরচর গ্রামে কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ স্মৃতি পাঠাগারের উদ্যোগে দোয়া-মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকায় কবির আত্মীয় স্বজন ও পরিবারের পক্ষ থেকেও দোয়া-মিলাদ মাহফিল ও অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ ১৯৩৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি বরিশালে জন্মগ্রহণ করেন। কিশোর বয়স থেকেই তার কবিতা লেখা শুরু। ছাত্রজীবনে তিনি আকৃষ্ট হয়েছেন বামপন্থি রাজনীতির দিকে। বায়ান্নর ২১শে ফেব্রুয়ারি ১০ জন ১০ জন করে মিছিলে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করা হয়। এর একটি মিছিলের সামনে ছিলেন তিনি। পুলিশ তাদের ট্রাকে তুলে নিয়ে ঢাকার বাইরে রেখে এসেছিল। সেই ভাষা আন্দোলনের শহিদদের স্মরণেই বাংলা কবিতায় তার স্পর্ধিত আত্মপ্রকাশ ঘটেছিল ‘মাগো, ওরা বলে’ কবিতায়।

তার কবিত্বশক্তি দেখে স্তম্ভিত হয়েছেন সমসাময়িক কবিরা। আবু জাফর ওবায়দুল্লাহর ‘আমি কিংবদন্তীর কথা বলছি’ পড়ে এদেশের প্রধান কবি শামসুর রাহমান নিঃসংকোচে বলেছিলেন, “তিনি যদি আর কোনও কবিতা নাও লেখেন তবুও তিনি অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবেন একজন শক্তিশালী কবি হিসেবে।”

আর পশ্চিম বাংলার অন্যতম প্রধান কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের মন্তব্য ছিল, “এমন কবিতা বাংলা ভাষায় লেখা সম্ভব সেটা আমার জানা ছিল না।”

ইংরেজি সাহিত্যের একজন মেধাবী ছাত্র আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ এমএ পরীক্ষার ফল বেরুনোর আগেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান। টেকনোক্রেট মন্ত্রী হিসেবে এদেশের কৃষি ব্যবস্থাপনার অবকাঠামো গড়ে তোলেন তিনি।

তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদক ও অন্যান্য সংগঠনের অনেক পুরস্কার লাভ করেন। 

নিউজবাংলাদেশ.কম/ এফএ

নিউজবাংলাদেশ.কমে প্রকাশিত যে কোনও প্রতিবেদন, ছবি, লেখা, রেখাচিত্র, ভিডিও-অডিও ক্লিপ অনুমতি ছাড়া অন্য কোনও মাধ্যমে প্রকাশ, প্রচার করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।
আপনার মন্তব্য